বুধবার   ১৬ অক্টোবর ২০১৯   আশ্বিন ৩০ ১৪২৬   ১৬ সফর ১৪৪১

সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানাই : আব্দুল হাই

প্রকাশিত: ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই বলেছেন, যারা আওয়ামী লীগের হয়েও নিজ স্বার্থে আঘাত লাগলে আবার নৌকার বিরুদ্ধে অবস্থান নেয় তাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে। সাংগঠনিকভাবে তাদের বিরুদ্ধে যাতে ব্যবস্থা নেয়া হয় এমন দাবি আমরাও জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে জানিয়েছি। 
 
শুক্রবার সোনারগাঁয়ের জামপুর ইউনিয়নের আমগাঁও এলাকায় জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ডা. আবু জাফর চৌধুরী (বিরু)’র বাসভবনে আব্দুল হাই এসব কথা বলেন।
 
তিনি আরও বলেন, কেন্দ্রের নির্দেশে আমরা কাজ করছি এবং আজকের এই সভা কেন্দ্রের নির্দেশেই হচ্ছে। তারপরেও এই সভায় আসার সময় আমাদের বিভিন্ন নেতা-কর্মীদের উপর অতর্কিত হামলা চালানো হয়েছে এতে আমরা তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করছি এবং জড়িতদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি। 
 
আব্দুল হাই আরো বলেন, দলের মধ্যে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার চেষ্টা করবেন না। অনুপ্রবেশকারীদের নিয়ে শক্তি দেখাবেন না। এগুলো বর্জন করুন নতুবা আস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হবেন। শেখ হাসিনা বর্তমানে বিশ্বের মধ্যে শ্রেষ্ঠ মহিলা শাসক হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছেন কারণ তিনি সংগঠন বুঝেন ও নেতৃত্ব দিতে জানেন। তার নেতৃত্বে উন্নয়নের মহাসড়কে বাংলাদেশ। তাই দেশের উন্নয়ন তরান্বিত করতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহবান জানাচ্ছি। 
 
প্রধান বক্তার বক্তৃতায় জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহীদ মো.বাদল বলেন, সাধারণ ও ত্যাগী কর্মীদের সাথে জননেত্রী শেখ হাসিনা, শামীম ওসমান এবং আমরা আছি। ভয়ের কোন কারণ নেই। আওয়ামী লীগের সভায় আসার পথে জেলা মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগের যুগ্ম সম্পাদক জুয়েল ও সহ-সভাপতি হাবিবের উপর অতর্কিত হামলা করে ব্যানার ও মটর সাইকেল ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে এবং তাদের মারাত্মকভাবে  মেরে আহত করা হয়েছে। আমরা চুপ করে বসে থাকবোনা। শেখ হাসিনার কর্মীরা বসে থাকবেনা। দলের সিনিয়র নেতাদের কাছে এর বিচার চাই। এর শাস্তি আপনারা পাবেন। আপনাদের পদ থাকবেনা। সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের উপযুক্ত দাঁত ভাঙা জবাব দেয়া হবে।
 
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান বাচ্চু যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর চৌধুরী (বিরু), সোনারগাঁও উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এডভোকেট সামছুল ইসলাম ভূঁইয়া, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ড.শিরিন বেগম। 
 
এর আগে এই কথিত আহবায়ক কমিটির বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের ওটমা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সভার ডাক দিয়ে প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারি করে। পরবর্তীকে ডা. বীরুর বাসায় জামপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রস্তুতি সভার আয়োজন করা হয়। অনেক সিনিয়র নেতা-কর্মীরা সেখানে এসে বিষয়টি অবগত হন। কিন্তু উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান কালামের সমর্থকরা ডা.বীরুর বাসায় যাবার প্রাক্কালে নেতা-কর্মীদের বাধা দেন এবং অনেককে মারধর করেন বলে জানানো হয়েছে। পরে নেতা-কর্মীরা একটি মিছিল নিয়ে এশিয়ান হাইওয়েতে পুলিশের ও কালাম সমর্থকদের অবস্থান নেয়া স্পট পর্যন্ত যায় এবং নির্বিঘেœ সভা করার জন্য সোনারগাঁও থানা পুলিশ ভিপি বাদল ও ডা. বীরুকে আশ্বস্ত করেন এবং তখন কালাম সমর্থকরা পিছু হটতে বাধ্য হয় এবং পুলিশও তাদেরকে সেখান থেকে সরিয়ে দেন।
 

এই বিভাগের আরো খবর