সোমবার   ২২ জুলাই ২০১৯   শ্রাবণ ৭ ১৪২৬   ১৯ জ্বিলকদ ১৪৪০

সবজির বাজারে স্বস্তি ফিরলেও কাঁচামরিচের বাজারে ঝাল

প্রকাশিত: ১৩ মে ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : রমজানের এক সপ্তাহ যেতে না যেতেই শান্ত হতে শুরু করেছে সবজির বাজারে, শাক-সবজির দাম। ৬ দিন আগের যেই সবজির দাম নিয়ে ক্রেতাদের মধ্যে হতাশার সৃষ্টি হয়েছিলো! এখন সেই সবজির দামেই ক্রেতারা সন্তুষ্ট। 


কিন্তু কাঁচামরিচের বাজারে ঝাল বেড়েছে আবার! সপ্তাহের ব্যবধানে কাচামরিচের দাম বেড়েছে কেজিতে ৩০ থেকে ৪০ টাকা পর্যন্ত। প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৭৫ থেকে ৮০ টাকা কেজি। 


বিক্রেতারা জানান, এক সপ্তাহের ব্যবধানে বাজারে সব ধরণের সবজির দাম কমেছে কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা! এছাড়া, ছোলা, মুড়ি, মিঠাইসহ অন্যান্য পণ্য বিক্রি হচ্ছে আগের দামেই। কিন্তু আবারো বেড়েছে কাঁচামরিচের দাম। 


মঙ্গলবার (১৩ মে) নগরীর দিগুবাবুর বাজারসহ বেশ কয়েকটি বাজার সরেজমিনে ঘুরে দেখাযায়, ঢেড়স বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ২০ টাকা কেজি। যা গত সপ্তাহেও ছিলো ৪০ টাকা কেজি! পটল ২০ টাকা কেজি। যা গত সপ্তাহে ছিলো ৩০ থেকে ৪০ টাকা কেজি এবং, টমেটো ৪০ টাকা কেজি, বেগুন ৬০ টাকা কেজি, উস্তা ২৫ টাকা কেজি, লুব্বা ৪০ টাকা কেজি, গাজর ৩০ টাকা কেজি, মিষ্টি কুমোড় ৩০ টাকা কেজি, শসা ২৫ টাকা কেজি, লাল-শাক ২০ টাকা কেজি, পালং-শাক ৩০ টাকা কেজি, পাট-শাক ৩০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। 


হঠাৎ করেই সবজির বাজারে দাম কমার কারণ জানতে চাইলে আব্দুল হালিম নামে এক সবজি বিক্রেতা জানান, আসলে সবজির বাজারে দর দাম কখন উঠা নামা করবে তা আমরাও বলতে পারিনা। এগুলো নির্ভর করে সবজির আমদানির উপরে। আমদানি বাড়লে দাম কমবে এবং আমদানি যদি কমে তাহলে দামটা একটু বাড়বে। 


দিগুবাবুর বাজারে সবজি কিনতে আসা রহিমা বেগম নামে একজন বলেন, সবজির বাজারে এই রকম পরিবেশ আজ বহুদিন পরে দেখলাম। দাম কমেছে প্রায় সব সবজিরই! স্বস্তিতে কিনতে পারছি। সব সময় এমন দাম থাকলেই সকলের জন্য ভালো হবে। 


কিন্তু কাঁচামরিচের বাজারে ঝাল বেড়েছে আবার! সপ্তাহের ব্যবধানে কাচামরিচের দাম বেড়েছে কেজিতে ৩০ থেকে ৪০ টাকা পর্যন্ত। প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৭৫ থেকে ৮০ টাকা কেজি। 


কাঁচামরিচ বিক্রেতা মোতালেব মিয়া বলেন, আসলে বাজারে কাচামরিচের আমদানি আজকে কম হয়েছে তাই দাম বেড়ে গেছে। এতে আমাদের কিছুই নাই। আবার আমদানি বেড়ে গেলে আমরা দাম কমিয়ে দিবো। 


এছারা, আলু, পিয়াজ, আদা, রসূনসহ অন্যান্য পণ্যের দাম রয়েছে আগের মতোই বিক্রি হচ্ছে, আলু ৭০ টাকা পাল্লা, পিয়াজ ১২০ টাকা পাল্লা, আদা ১০০ টাকা কেজি, রসূন ১০০ টাকা কেজি। 


পাইকারী ও খুচরা দোকানের দামের মধ্যে অল্প একটু ব্যবধান রেখে চিনি বিক্রি হচ্ছে ৫৫ টাকা কেজি, মিঠাই ৭০ টাকা কেজি, বুট ৩৬ টাকা কেজি, ছোলা ৭৫ টাকা কেজি এবং মুড়ি বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকা কেজিতে। 
 

এই বিভাগের আরো খবর