বুধবার   ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ৭ ১৪২৬   ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪১

শ্রম আইন বাস্তবায়নসহ শুক্রবার দোকান বন্ধের দাবিতে স্মারকলিপি

প্রকাশিত: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

যুগের চিন্তা ২৪ : বিভিন্ন দোকান প্রতিষ্ঠান শুক্রবার বন্ধের দাবীতে নারায়গঞ্জ জেলা প্রসাশক জসিম উদ্দিন বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছে দোকান ও প্রতিষ্ঠান কর্মচারী ইউনিয়ন।

 

বৃহষ্পতিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সকালে এ স্মারক লিপি প্রদান করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক তুলসী ঘোষ ও সাংগঠনিক সম্পাদক একে পিন্টু, নির্বাহী সদস্য আফসার মামুন। স্মারক লিপিতে উল্লেখ রয়েছে সংগঠনটি ১৯৭৩ সাল থেকে বহুবার উক্ত প্রতিষ্ঠানের শ্রম আইন বাস্তবায়ন করার জন্য আবেদন করেও সুফল পায়নি।

 

যার অনুলিপি স্থানীয় সাংসদ,  পুলিশ সুপার, র‌্যাব, শ্রম সহ বিভিন্ন অধিদপ্তরে দেয়া হয়েছে।এতে সভাপতি মোজাম্মেল হক ও সাধারণ সম্পাদক  তুলশী ঘোষের স্বাক্ষরিত ১৩ দফা দাবি পেশ করা হয়েছে।

 

দাবী গুলো হলো :

১। বাংলাদেশ শ্রম আইন ২০০৬ এর ধারা ৫ মোতাবেক প্রতিষ্ঠানে নিয়োজিত প্রত্যেক শ্রমিককে নিয়োগপত্র ও ছবিসহ পরিচয়পত্র প্রদান করতে হবে।

২। বাংলাদেশ শ্রম আইন-২০০৬ এর ধারা ৬ মোতাবেক প্রত্যেক মালিক তাহার নিজস্ব খরচে নিয়োজিত শ্রমিকের জন্য সার্ভিস বইয়ের ব্যবস্থা করতে হবে।

৩। বাংলাদেশ শ্রম আইন-২০০৬ এর ধারা ৯ মোতাবেক সকল শ্রমিকদের জন্য একটি রেজিষ্টার রাখতে হবে।

৪। বাংলাদেশ শ্রম আইন-২০০৬ এর ধারা ৫৮ মোতাবেক প্রতিষ্ঠানে নিয়োজিত শ্রমিকদের জন্য বিশুদ্ধ ও সুপেয় পানি সরবরাহের সার্বক্ষণিক ব্যবস্থা করতে হবে।

৫। বাংলাদেশ শ্রম আইন-২০০৬ এর ধারা ১০০ মোতাবেক দৈনিক ০৮(আট) ঘন্টা কাজের নিশ্চয়তা বিধান করতে হবে। অধিক কাজের জন্য বর্ণিত আইনের ১০৮ ধারা মোতাবেক দ্বিগুন হারে ভাতা দিতে হবে।

৬। বাংলাদেশ শ্রম আইন-২০০৬ এর ধারা ১১৪ মোতাবেক প্রত্যেক দোকান প্রতিষ্ঠান প্রতি সপ্তাহে অন্তত দেড় দিন সম্পূর্ণ বন্ধ রাখতে হবে। এক্ষেত্রে কলকারখানা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর কর্তৃক জারীকৃত প্রজ্ঞাপণ বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্ট সকলকে নিজ নিজ দায়িত্ব পালনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে।

৭। বাংলাদেশ শ্রম আইন-২০০৬ এর ধারা ১১৫ মোতাবেক অসুস্থ্য শ্রমিকের ক্ষেত্রে প্রতি পঞ্জিকা বর্ষপূর্ণ মজুরীতে ১০ (দশ) দিনের নৈমিত্তিক ছুটি দিতে হবে।

৮। বাংলাদেশ শ্রম আইন-২০০৬ এর ধারা ১১৬ মোতাবেক অসুস্থ্য শ্রমিকের ক্ষেত্রে প্রতি পঞ্জিকা বর্ষে পর্ণ।  মজুরীতে ১৪ (চৌদ্দ দিনের নৈমিত্তিক ছুটি দিতে হবে।

৯। বাংলাদেশ শ্রম আইন ২০০৬ এর ধারা ১১৭ মোতাবেক চাকরীর মেয়াদকাল ০১ (এক) বৎসর পূর্ণ হওয়া পর বর্ণিত আইন মোতাবেক বাত্সরিক ছুটি দিতে হবে।

১০। বাংলাদেশ শ্রম আইন-২০০৬ এর ধারা ১১৮ মোতাবেক প্রত্যেক শ্রমিককে ঐ ১১৮ মোতাবেক প্রত্যেক শ্রমিককে প্রতি পঞ্জিকা বর্ষের ১১ (এগার) দিনের মজুরীসহ উৎসব ছুটি প্রদান ও অন্যান্য সুবিধা প্রদান করতে হবে।

১১। বর্তমান বাজার মূল্যের সাথে সঙ্গতি রেখে শ্রমিকদের ন্যায্য বেতন বৃদ্ধি।

১২। শ্রমিকদের ছেলে-মেয়েদের জন্য খেলাধুলা ও সাগতিক প্রতিযোগিতার আলো

১৩। দূর্ঘটনাজনিত কারণে শ্রমিকদের যথাযথ চিকিৎসা ও ক্ষতিপূরণ প্রদান করতে হবে।
 

এই বিভাগের আরো খবর