সোমবার   ০৪ মার্চ ২০২৪   ফাল্গুন ২১ ১৪৩০

ভোটের পর প্রথম কর্মসূচি নিয়ে রাজপথে নামছে বিএনপি    

লিমন দেওয়ান

প্রকাশিত: ২২ জানুয়ারি ২০২৪  


বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী বিএনপি ও সমমনা দলগুলোর কয়েক দফার কঠোর আন্দোলনের মধ্য দিয়েই গেল ৭ জানুয়ারী দ্বাদশ জাতীয় সাংসদ নির্বাচনের অবসান ঘটেছে। এই নির্বাচন নিয়ে ছিল নানা উৎকন্ঠা কিন্তু ভোট ঠোকানো সম্ভব হয়নি শেষ পর্যন্ত নির্বাচন হলে ও বিএনপির নেতাকর্মীদের দাবি, ভোটার ঠেকাতে তারা সক্ষম ও সফল হয়েছেন। কিন্তু তারপর ও নির্বাচন হয়ে যাওয়ায় বিএনপির নেতাকর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে একটি হতাশা বিরাজমান দেখা গিয়েছে।

 

 

তা ছাড়া নির্বাচনের পর বিএনপির আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণায় ঝিমুনীভাব দেখা যাওয়ায় বিএনপি থেকে অনেকে নেতাকর্মী প্রকাশ্যে না হলে ও গোপনে মুখ ফিরিয়ে নেওয়ার ভাব বুঝতে পরেই নেতাকর্মীদের আবারো রাজপথে চাঙ্গা করার লক্ষে কেন্দ্রীয়ভাবে দুইদিনের কর্মসূচি ঘোষনা করা হয়েছে।

 

 

জানা গেছে, রাজবন্দিদের মুক্তিসহ দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদ, বর্তমান ডামি সংসদ বিলুপ্ত, নতুন নির্বাচনের একদফা দাবি নিয়ে দুই দিনের কালো পতাকা মিছিল কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। গতকাল রোববার (২১ জানুয়ারি) সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

 

 

তিনি জানান, দ্রব্যমূল্যের সীমাহীন ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদে, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ সকল রাজবন্দিদের মুক্তি, সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, অবৈধ সংসদ বাতিলসহ একদফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে দুই দিনের কালো পতাকা মিছিলের কর্মসূচি ঘোষণা করছি। আগামী ২৬ জানুয়ারি দেশের সকল জেলা সদরে এবং ২৭ জানুয়ারি দেশের সকল মহানগরে কালো পতাকা মিছিল কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হবে।

 

 

রিজভী আরও বলেন, দুঃশাসন আর অনিয়ম করে ভোটাধিকার কেড়ে নেওয়ায় জনগণ সরকারকে প্রত্যাখ্যান করেছে। জনগণ ভোটকেন্দ্রে না গিয়ে নীরব প্রতিবাদ জানিয়েছে। জনগণ বিএনপির সঙ্গে আছে। বিএনপি ডামি সরকারের বিরুদ্ধে রাজপথে আন্দোলন চালিয়ে যাবে। এই ঘোষণার মাধ্যমে বিএনপির তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মী থেকে শুরু করে সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা নানাভাবে নির্বাচনের পরের এই প্রথম কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করে দিয়েছে।

 

 

কিন্তু গত ২৮ জানুয়ারীর পর থেকে দফায় দফায় কঠোর আন্দোলনের মধ্য দিয়ে বিএনপির হাজারো নেতাকর্মীদে বিরুদ্ধে মামলা হয়। জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জের প্রায় ২ হাজারের অধিক নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে এর থেকে প্রায় হাজারের উপরে নেতাকর্মী জেল হাজতে রয়েছেন এখন জজ কোর্ট, হাই কোর্ট থেকে জামিন করিয়ে করিয়ে নেতাকর্মীদের কারামুক্ত করানো হচ্ছে।

 

 

তাদের দাবি, যারা এখানো জেল হাজতে রয়েছেন শীগ্রই মুক্ত হবেন। তার পর থেকে সকল কর্মসূচিতে দেখা মিলবে একের পর এক চমক। তা ছাড়া যারা এখনো মামলায় জামিন পায়নি তারা কর্মসূচির আগমুহুর্ত্ব পর্যন্ত জামিন না পেলে আত্মগোপনে থেকেই কৌশর অবলম্বন করে এই কালো পতাকা মিছিল সফল করবে বলে জানিয়েছেন নেতাকর্মীরা।

 


সূত্র মতে, গেল ৭ জানুয়ারি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়নি বিএনপি। ভোট-পরবর্তী নীরবে সরকারবিরোধী আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে দলটি। ভোটের আগে দাবি আদায় নিয়ে হাঁকডাক দিলেও এখন রাজপথে আন্দোলন কর্মসূচিতে নিস্কিয় দলটি। গত ২৮ অক্টোবর নয়াপল্টনে বিএনপির মহাসমাবেশ পণ্ড হওয়ার পর ২৯ অক্টোবর থেকে দলটি চার দফা হরতাল ও ১৩ দফা অবরোধ কর্মসূচি পালন করে।

 

 

এরপর লিফলেট বিতরণ ও গণসংযোগ কর্মসূচি দিয়ে আসছে দলটি। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরেও কর্মসূচি দিয়েছিল দলটি। নির্বাচনের আগে ঢাকাসহ সারা দেশে মিছিল ও গণসংযোগ করে বিএনপি। পরবর্তীতে নির্বাচনের পর এই প্রথম কালো পতাকা মিছিলের কর্মসূচি নিয়ে রাজপথে থাকবে বিএনপি। এর আগে দীর্ঘদিন যাবৎ হরতাল-অবরোধ পালনে বিএনপির নেতাকর্মীরা ঝটিকা মিছিলেই সীমাবদ্ধ ছিলেন।

 

 

রাজপথে সকলে একত্রিত হতে পারেননি। কিন্তু এই কর্মসূচি সফল করতে আবারো সেই পুরানোভাবে ঐক্যবদ্ধ হতে চায় বিএনপি। যার জন্যই এখন একটি আমেজমুখর ভাবে কালো পতাকা মিছিলের প্রস্তুতি নিয়ে আসছেন।

 


এ বিষয়ে মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক এড.সাখাওয়াত হোসেন খান যুগের চিন্তাকে বলেন, কেন্দ্রীয় বিএনপি আমাদের দুই-দিনের কর্মসূচি ঘোষনা করেছেন। যাকে ঘিরে নেতাকর্মীরা অনেকটাই উজ্জ্বীবিত হয়ে উঠেছে সকলেই কর্মসূচি সফল করতে ব্যাপকভাবে প্রস্তুত।

 

 

এই কর্মসূচি আমাদের রাজবন্দিদের মুক্তিসহ দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদ, বর্তমান ডামি সংসদ বিলুপ্ত, নতুন নির্বাচনের একদফা দাবি নিয়ে দুই দিনের কালো পতাকা মিছিল দেওয়া হয়েছে দুইদিনের এর মধ্যে একদিন জেলা আর আরেকদিন মহানগর।

 

 

আমরা এই কর্মসূচি সফল করতে নেতাকর্মীদের সাথে আলোচনা অবহৃত রেখেছি। তা ছাড়া বিএনপির একাধিক নেতাকর্মীদের নামে গায়েবী মামলা পাহাড় অনেকে জামিন নিচ্ছেন আবার অনেকে জামিন নিতে পিছিয়ে পরছেন কিন্তু আমাদের এই কালো-পতাকা মিছিলে যারা মামলা নিয়ে আসার তারা কৌশলেই আসবে।
 

এই বিভাগের আরো খবর