মঙ্গলবার   ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ১৩ ১৪২৬   ০১ রজব ১৪৪১

ভুলে ভরা স্মার্ট কার্ড, ভোগান্তির শেষ নাই

প্রকাশিত: ২৪ জানুয়ারি ২০২০  

রূপগঞ্জ (যুগের চিন্তা ২৪) : ভুলে ভরা জাতীয় পরিচয়পত্র বা স্মার্ট কার্ড। কারো কার্ডে নিজের নাম, কারো কার্ডে বাবার নাম। আবার কারো কারো কার্ডে দুইটাই ভুল। অনেকের কার্ডে ঠিকানা ভুল। অনেক কার্ডে ইংরেজি লিখতে ভুল। মোট কথা জাতীয় পরিচয়পত্র নামে স্মার্ট কার্ডগুলো একেবারেই ভুলে ভরা। 

 

এই কার্ড নিয়ে মানুষের ভোগান্তির আর শেষ নাই। কিভাবে এর সংশোধন হবে এ নিয়ে মানুষের মধ্যে দেখা দিয়েছে নানা প্রশ্ন। এ ভুলের জন্য দায়ী কারা? উত্তরে বলা যায় যারা লেখা লেখির কাজ করেছে তারাই ভুল করেছে। তাহলে এদের কি হবে ?

 

গত বৃহস্পতিবার রূপগঞ্জের গোলাকান্দাইল মুজিবুর রহমান ভুইয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে গোলাকান্দাইর ইউনিয়ন ১নং ওয়ার্ডের ভোটারদের হাতে যখন জাতীয় পরিচয়পত্র নামের এই স্মার্ট কার্ড তুলে দেয়া হয় তখনই দেখা যায় এধরনের ভুলের চিত্র। কার্ডের ভুল নিয়ে চলে নানা সমস্যার কথা। 

 

নারায়ণগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপারের অফিসের অফিসার মোঃ কফিল উদ্দিন বলেন যে সকল স্মার্ট কার্ডে নাম, বাবার নাম বা ঠিকানা ভুল হয়েছে তাদের ভোগান্তির শেষ নেই। 

 

সংশোধনের ব্যাপারে কথা হলে জানা যায়, এই কার্ডে ভুল সংশোধন করতে হলে নির্বাচন অফিসে গিয়ে ফরম পূরন করে জমা দিয়ে সংশোধন করতে হবে। সচেতন মহল মনে করে গ্রামের সহজ সরল মানুষ এই স্মার্ট কার্ড কিভাবে কোথায় গিয়ে সংশোধন করতে হবে আদৌ তারা জানেনা।

 

আমলাব কালী এলাকার রুপালী বেগম জানান তার বাবার নাম মোঃ হাবিবুর রহমান খাঁন, সেখানে লেখা হয়েছে আঃ রহমান খান। তার এসএসসি সার্টিফিকেটে বাবার নাম দেয়া আছে মোঃ হাবিবুর রহমান খাঁন। 

 

গোলাকান্দাইল মধ্যপাড়া এলাকার সুমন মজুমদার জানান, তার জাতীয় পরিচয়পত্রে ভুলে লেখা হয়েছে শুমন মজুমদার। তার এই ভুলের কারণে বিদেশে (ভারত) চিকিৎসা করতে গিয়ে পড়তে হয়েছ বিপদে। এসময় ডাক্তার তার নাম ভুর থাকায় চিকিৎসার ব্যবস্থাপত্র লিখতে রাজি হয়নি। 

 

মাধবদী এলাকার পারভেজ মিয়া বলেন, তার ইংরেজি নাম ভুল করা হয়েছে। যেখানে সে নিজেই তার লিখে দিয়েছে বলে দাবি করে। সেখানে তথ্য সংগ্রহকারীরা কেমন করে তার নামে ভুল হলো এমন প্রশ্ন করে পারভেজ।  শুধু পারভেজ বা রুপালীই নয় জাতীয় পরিচয়পত্রের মধ্যে এরকম শত শত, হাজার হাজার ভোটারের নাম ভুল করে রেখেছে।

 

পারভেজ বলেন, যারা ভোটার তালিকা বা তর্থ সংগ্রহ করেছেন তারা অশিক্ষিত ও অর্ধশিক্ষিত লোক ছিল। যে কারণে এত ভুলের স্বিকার হয়েছে সাধারণ ভোটাররা। শিক্ষিত লোকদিয়ে ভোটার তালিকা বা তথ্য সংগ্রহের কাজ করার দাবী জানান তিনি। 

 

এছাড়াও তিনি আরো বলেন, ইতিমধ্যে যেসকল স্মার্ট কার্ডে ভুল করা হয়েছে সে সকল কার্ডগুলো সহজ ভাবে সংশোধন করা হোক।
 

এই বিভাগের আরো খবর