বৃহস্পতিবার   ২৮ মে ২০২০   জ্যৈষ্ঠ ১৩ ১৪২৭   ০৫ শাওয়াল ১৪৪১

বসুন্ধরা ও রংধনু’র সহযোগীতায় ক্ষুধার্তদের পাশে রূপগঞ্জ প্রেসক্লাব

প্রকাশিত: ৭ এপ্রিল ২০২০  

রূপগঞ্জ (যুগের চিন্তা ২৪) : এবার মধ্যবিক্ত পরিবারগুলোর পাশে দাঁড়ালেন রূপগঞ্জ প্রেসক্লাব। দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্প গ্রুপ বসুন্ধরা গ্রুপ ও রংধনু গ্রুপের সহযোগীতায় ‘ক্ষুধার্তদের জন্য খাবার’ কর্মসূচীতে ৫০৪ জন মধ্যবিক্ত পরিবারের মাঝে প্রেসক্লাবের স্বেচ্ছাসেবক দল বাড়িতে বাড়িতে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেন। মঙ্গলবার দিনব্যাপি এ খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। 


রূপগঞ্জ প্রেসক্লাব সূত্রে জানা গেছে, করোনা ভাইরাসের কারণে বিক্তশালী ও শিল্পপতিরা হতদরিদ্র-অসহায় পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করে আসছেন। কিন্তু সমাজে মধ্যবিক্ত নামে এক শ্রেণীর মানুষ রয়েছে। যারা কারো কাছে চক্ষু লজ্জায় হাত পাততে পারেননা। সরকারী-বেসরকারী ত্রাণের তালিকায়ও তাদের নাম লিপিবদ্ধ থাকেনা। 

কিংবা মধ্যবিক্ত পরিবারের লোকগুলো লোকলজ্জার ভয়ে ত্রাণের জন্য লাইনেও দাঁড়াতে চাননা তাদের জন্য গত কয়েকদিন ধরে নীরবে কাজ করে যাচ্ছেন কলামিষ্ট, গবেষক লায়ন মীর আব্দুল আলীম। গত কয়েকদিনে উপজেলার বেশ কিছু এলাকায় প্রেসক্লাবের সাংবাদিক ও স্বেচ্ছাসেবক দল রাতের আঁধারে বাড়ি বাড়ি খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন। 

এ উদ্যোগ লোক দেখানো কিংবা নিছক ফটোসেশনের জন্য না করায় রূপগঞ্জের সর্বমহলে ভূয়সী প্রশংসা পেয়েছেন মীর আব্দুল আলীম। এমন ব্যতিক্রমি উদ্যোগে নজর কাড়ে দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্প গ্রুপ বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান এবং রংধনু গ্রুপের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব রফিকুল ইসলাম রফিকের। মীর আব্দুল আলীমের এ কার্যক্রম চালিয়ে যেতে খাদ্য সামগ্রী প্রদানে ইচ্ছা প্রকাশ করেন দুই শিল্প গ্রুপ। 

এর অংশ হিসেবে মঙ্গলবার সকালে "ক্ষুধার্তদের জন্য খাবার" কর্মসূচিতে রূপগঞ্জ প্রেসক্লাবকে ৫০৪ প্যাকেট খাদ্য সামগ্রী প্রদান করেন এ দুই শিল্পপতি। 

রূপগঞ্জ প্রেসক্লাবের "ক্ষুধার্তদের জন্য খাবার" কর্মসূচির ভূয়শী প্রশংসা করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী গাজী গোলাম দস্তগীর (বীর প্রতীক), স্থানীয় উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শাহজাহান ভূঁইয়া ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মমতাজ বেগম। তাঁরাও একাত্মতা প্রকাশ করে মীর আব্দুল আলীম এর কার্যক্রমকে সহযোগিতা করে যাচ্ছেন।

মীর আব্দুল আলীম বলেন, সারাদেশে সরকার যে খাদ্য কর্মসূচী গ্রহণ করেছে তা প্রশংসার দাবিদার। রূপগঞ্জে দুস্থ্যদের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কর্মসূচী আরো ভালভাবে চলছে। কিন্তু যারা হাত পাততে জানে না যেমন শিক্ষক, নিম্ন পদস্থ্য কর্মচারীসহ মধ্যবিত্ত দরিদ্র শ্রেণীর মানুষ। 

যাদের নাম সরকারি-বেসরকারি তালিকায়ও নেই, লোকলজ্জায় নাম লেখাতে চান না তাদের সন্ধান পেলেই গোপনে বাড়িতে খাবার পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া যেসকল দরিদ্র ও দুস্থ্য পরিবারের নাম সরকারি তালিকায় নেই খবর পেলে তাদের বাড়িতেও খাবার পৌছে দেওয়া হচ্ছে।
 

এই বিভাগের আরো খবর