বুধবার   ২৯ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ১৫ ১৪২৬   ০৩ জমাদিউস সানি ১৪৪১

বন্দরে সরকারি জমি ও নদী দখল  করে ডকইয়ার্ড নির্মানের অভিযোগ 

প্রকাশিত: ৭ ডিসেম্বর ২০১৯  

বন্দর (যুগের চিন্তা ২৪) : বন্দরে সরকারি কৃষি খাসের জমি ও ধলেরশ^রী নদী দখল করে অবৈধ ভাবে ডকইয়ার্ড নির্মানের গুরুত্বর অভিযোগ উঠেছে ভূমি দৎসু ও নদী খেকো হাজী বাদল গং এর বিরুদ্ধে। 


এ ব্যাপারে সচেতন মহল ক্ষোভ প্রকাশ করে জানিয়েছে, সম্প্রতি সময়ে রাতের আধারে বন্দর উপজেলার কলাগাছিয়া ইউনিয়নের মহনপুর এলাকার মৃত খালেক মিয়ার ছেলে হাজী বাদল মিয়া ও শুভকরদী এলাকার মৃত নুরুল হক মিয়ার ছেলে কালা বছির পেশি শক্তির বলে সাবেক কলাগাছিয়া  নৌ-ফাঁড়ি সামনে সরকারি কৃষি খাসের জমিটি দখল করে নেয়। 

 

পরে উল্লেখিত এলাকার দুই ব্যক্তি কৃষি খাসের জমিসহ ধলেরশ^রী নদীর একটি বিশাল অংশ বালু দিয়ে ভরাট করে সেখানে বীরদূর্পে ডকইয়ার্ড নির্মানের পাঁয়তারা চালাচ্ছে। উপজেলা প্রশাসনের নজরদারি না থাকায় নদী খেঁকোদের কবলে একে একে হারিয়ে যাচ্ছে ধলেশ^রী ব্রক্ষপুত্র, শীতলক্ষাসহ বহু নদী। 


এলাকাবাসীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে সোমবার দুপুরে সরজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে এলাকাবাসীর সাথে কথা বললে নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন এলাকাবাসী জানান, হাজী বাদল ও কালা বছির কলাগাছিয়া ও মহনপুর এলাকায়  প্রভাব বিস্তার করে সরকারি সম্পত্তী দখল করে নেয়। পরে সেখানে বালু দিয়ে ভরাট করে ডকইয়ার্ড বসানোর পাঁয়তারা করছে।  


এ ঘটনায় অভিযুক্ত হাজী বাদল ও কালা বছিরের ব্যাক্তিগত মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাদের মোবাইল ফোন গুলো বন্ধ পাওয়া যায়।


এ ব্যাপারে বন্দর উপজেল নির্বাহী কর্মকর্তা শুক্লা সরকারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিষয়টি আমার জানা ছিল না। বিষয়টি আমি তদন্ত করে দেখছি।   


হাজী বাদল ও কালা বছির গংদের কবল থেকে সরকারি কৃষি খাসের জমি ও ধলেরশ^রী  নদী উদ্ধারের জন্য স্থানীয় এলাকাবাসী বন্দর উপজেলার র্নিবাহী র্কমর্কতা শুক্লা সরকার ও বন্দর থানার অফিসার ইনচর্াাজ মো রফিকুল ইসলামের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছে সচেতন মহল।
 

এই বিভাগের আরো খবর