সোমবার   ৩০ মার্চ ২০২০   চৈত্র ১৬ ১৪২৬   ০৫ শা'বান ১৪৪১

পেঁয়াজ নিয়ে কত কথা

প্রকাশিত: ৪ ডিসেম্বর ২০১৯  

পেঁয়াজের উচ্চমূল্যের কারণে গৃহিনীরা কিছুটা বিপাকে পড়লেও আমরা কিন্তু পেঁয়াজ কম খাওয়ায় অভ্যস্ত হয়ে গেছি! বন্ধু রাষ্ট্রের কোন কোন প্রদেশে আট রুপি কেজিতে পেঁয়াজ বিক্রয় করতে গিয়ে কৃষকরা কাঁদছে বলে সামাজিক যোগাযোগ মধ্যমে জানা যায়!


দুঃখজনক বিষয় হলো তারপরও বন্ধু রাষ্ট্র আমাদেরকে পেঁয়াজ দেয়নি! এর অর্থ হলো দাদারা আমাদেরকে এটাই বুঝাতে চাচ্ছেন আমাদেরকে ছাড়া তোরা অচল!


এখন আমাদের দেশি পেঁয়াজ বাজারে আসতে শুরু করেছে।এখন হয়তো তারা আমাদেরকে পেঁয়াজ দিতে আগ্রহী হবেন!এটা হবে আমাদেরকে পরনির্ভরশীল করে রাখার অপকৌশল মাত্র।আমরা মনে করি এ ধরনের অপকৌশলের ফাঁদে পাঁ দেয়া উচিৎ হবেনা।


পেঁয়াজ না খেলে বা সল্পমাত্রায় খেলে আমরা মরেতো যাবনা। পেঁয়াজের এই উচ্চ মূল্যের বাজারে দেশি পেঁয়াজ এলে আমাদের কৃষক দুটি টাকা বেশি পেলে তারা আগামীতে অধিক পরিমাণে পেঁয়াজ উৎপাদনে আগ্রহী হবে।ফলে একসময় ধানের মত পেঁয়াজেও আমরা স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে পারবো। এটা হয়তো আমাদের বন্ধু রাষ্ট্র ও মিয়ানমার চাইবেনা! 


আমার কথা হলো-তাদের চাওয়া-পাওয়া আমাদের কিচ্ছু যায় আসেনা।আমাকে আমার দেশের স্বার্থটাই আগে দেখতে হবে। তাই ভারত বা মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমদানির সকল এলসি বন্ধ করা হউক।আমরা বিগত কয়েক মাস পেঁয়াজে কষ্ট করেছি। আরও একমাস না হয় কষ্ট করবো। পড়নির্ভর না হয়ে সামান্য সময় কষ্ট করাটাই শ্রেয় নয় কি?


এর পর রইলো গরু ও ইলিশ মাছ! সরকারকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে এক পিস ইলিশ মাছও আমরা রফতানি করবোনা। সেই সঙ্গে চোরাই পথে কেউ ইলিশ পাঁচারের চেষ্টা করলে প্রতিহত করবে বিজিবি।


গরু চোরদের দমন করা গেলে ভারত এক সময় বাধ্য হবে গরু আমদানি করার জন্য বাংলাদেশ সরকারকে সুপারিশ করতে! বঙ্গবন্ধুর কন্য এটা অবশ্যই স্বীকার করবেন পরনির্ভরশীল জাতি কখনোই উন্নতির শিখরে উপনীত হতে পারেনা।


তাই সময়ের সার বর্তমান এখনি আমাদেরকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে আমরা নিজের পাঁয়ে দাঁড়াবো। ইঁদুরের মত শতবছর বেঁচে থাকার চেয়ে সিংহের মত সল্প সময় বেঁচে থাকা উত্তম নয় কি?


চোরাই পথে কোন ব্যবসায়ী পেঁয়াজ আনার চেষ্টা করলে বিজিবিকে হুকুম দিতে হবে প্রতিহত করার জন্য।কারণ এধরনের কালো বাজারিরাই দেশে প্রধান শত্রু।ওদেরকে বাংলার মাটি থেকে উৎখাত করতে হবে।


আমাদে মহান মুক্তিযুদ্ধের পর জাতি যে কষ্ট পেয়েছে তার জন্য নব্বই ভাগ দায়ী ঐ সকল নরপিচাশরা! বাকি দশভাগ স্বধীনতাবিরোধী তথাকথিত রাজনৈতিক নেতাগণ। ওদেরকেও সমূলে উৎপাটন এখন সময়ের দাবি।

 

এমএ মাস্উদ বাদল
৪ ডিসেম্বর, ২০১৯
আদমজী নগর, সিদ্ধিরগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ