বুধবার   ২৭ মে ২০২০   জ্যৈষ্ঠ ১৩ ১৪২৭   ০৪ শাওয়াল ১৪৪১

পুরো নগরী ট্রাকময় : যানজট নিরসনে সকল চেষ্টা বাঁধাগ্রস্থ

প্রকাশিত: ১৫ মে ২০১৮   আপডেট: ১৫ মে ২০১৮

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : আসন্ন রমজানে যানজট নিরসন করে মানুষের নির্বিঘ্নে মানুষের চলাচল নিশ্চিত করতে আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, সিটি করপোরেশন, এমপিগণ, ছাত্রলীগসহ সংশ্লিষ্ট অনেকে। কিন্তু এসব প্রচেষ্টাগুলো বাঁধাগ্রস্থ হচ্ছে দিনের বেলায় ট্রাক চলাচলে। যানজট নিরসনে কোন কথায়ই কানে তুলছেন না ব্যবসায়ীরা।

 

রমজানে নগরীকে যানজট মুক্ত রাখতে জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া প্রস্তাব করেছিলেন এক সভায় নগরীতে দিনের বেলায় কোন ট্রাক ঢুকতে পারবে না। সে সভায় নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ সেলিম ওসমান ব্যাবসায়ীদের হুঁশিয়ারী দিয়ে বলেন আজকের সভা যানজট নিরসনে নেয়া আইনকে যখনই ভাঙ্গা হবে তখনই আমরা আইনগত ব্যবস্থা নেবো। তখন আর কোন মিটিং হবে না। কিন্তু মঙ্গলবার (১৫ মে) সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, বিকেল ৩টা ৩০ থেকে শুধুমাত্র চাষাঢ়া বিজয় স্তম্ভের চতুর্দিকে রাস্তায় মাত্র ১০ মিনিটে বিশৃঙ্খলভাবে যানজট পাকিয়ে ঠায় দাঁড়িয়ে ৬৩ টি ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, পিকআপ।

 

কুমিল্লা মেট্রো-ট-১১০০৭৬, ঢাকা মেট্রো-ট-১৬৮৮৮০ ঢাকা মেট্রো-ট-১৩৪৮২৮, ঢাকা মেট্রো-ন-১৩৪৮২৮, ঢাকা মেট্রো-ড-১৪১৯০৬, ঢাকা মেট্রো-ন-২২০২১৭, ঢাকা মেট্রো-ড-১১০০৭৬, ঢাকা মেট্রো-ট-১৮৮২৩৩, ঢাকা মেট্রো-ট-২০১৬১৯, ঢাকা মেট্রো-ড-১৪৫২৮৩, ঢাকা মেট্রো-ট-৪৪০০৩১, ঢাকা মেট্রো-ড-১১০৪৯৯, ঢাকা মেট্রো-ট-২০১৬১৯, ঢাকা মেট্রো-ট-১৬২৯৩২, ঢাকা মেট্রো-ট-০২০৪৯২, ঢাকা মেট্রো-ট-১৮৮৮৮৯, ঢাকা মেট্রো-ট-২০২০০১, ঢাকা মেট্রো-ট-২০৬৬৩৪, ঢাকা মেট্রো-উ-১৪২৪২০, ঢাকা মেট্রো-ট-১৮৬৬০৯, ঢাকা মেট্রো-ট-১৪৮৯৫৬, ঢাকা মেট্রো-ট-১৪৬৮৬১, ঢাকা মেট্রো-ট-১১০৪৯১, ঢাকা মেট্রো-ড-১৪৫৯৫৪, ঢাকা মেট্রো-ড-২০৯৮২২, ঢাকা মেট্রো-ট-২০৩৫৯৯, ঢাকা মেট্রো-ট-২০৮৮৬৬, ঢাকা মেট্রো-ট-১৪২৫৪০, ঢাকা মেট্রো-উ-১৪০১৫৫, ঢাকা মেট্রো-ট-২৮২৫৪০, ঢাকা মেট্রো-ট-২৪২০৮২, ঢাকা মেট্রো-উ-১৪২২১৫, ঢাকা মেট্রো-উ-১৬৫০২৩, ঢাকা মেট্রো-ড-১৪৬৯১০, ঢাকা মেট্রো-উ-১৬৫৬২৩, ঢাকা মেট্রো-ট-১৩১৪৪০, ঢাকা মেট্রো-ট-২০৭৫৩০, ঢাকা মেট্রো-ট-১১১৭২৭, ঢাকা মেট্রো-ট-১১৮৪৭৫, ঢাকা মেট্রো-ট-১১২৬০৭, ঢাকা মেট্রো-ট-১৪৭১২৫, ঢাকা মেট্রো-ট-২২১৫৩২, ঢাকা মেট্রো-ট-১১০৫০১, ঢাকা মেট্রো-ট-২০৬১৬৯, ঢাকা মেট্রো-ট-১৪৯৪৮৩। পুরো নগরীই হয়ে পড়েছে ট্রাকময়।

 

ট্রাকের কারণেই মূলত যানজটে জনগণের ভোগান্তিটা তীব্র আকার ধারণ করে। এদিকে যানজট নিরসনে সকালে রমজান উপলক্ষ্যে যানজট নিরসনে জেলা প্রশাসনের সহযোগী হিসেবে শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোসহ কয়েকটি মোড়ে ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবলীগ, যুবলীগের কর্মীরা অবস্থান নিয়ে মাইকিং করলেও অবস্থার পরিবর্তন হয় নি এতোটুকু। বিকেলে যানজট নিরসনে ও গণমানুষের দূর্ভোগ কমাতে সড়কে নামতে পারেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান।

 

কিন্তু ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, প্রাইমমুভারের চলাচলের কারণে যানজট মারাত্মক আকার ধারণ করে রয়েছে। অথচ গতকাল সোমবার জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে যানজট নিরসনে সভায় ব্যবসায়ীদের হুশিয়ারি দিয়ে পুলিশ সুপার মঈনুল হক বলেছেন,রমজানে যানজট নিরসনে সহযোগিতা করুন। যত কিছুই বলি না কেন রমজানে আইন প্রয়োগের ক্ষেত্রে এবার আমি অত্যন্ত কঠোর থাকবো। এক্ষেত্রে কেউ কষ্ট পেলেও কিছু করার নেই। এর আগে রোববার (৬ মে) দুপুরে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের আওতাধীন বঙ্গবন্ধু সড়কস্থ নিতাইগঞ্জ, মন্ডলপাড়া, চাষাঢ়াসহ তৎসংশ্লিষ্ট এলাকায় যানজট নিরসনের লক্ষে মতবিনিময় সভায় নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ সেলিম ওসমান হুঁশিয়ারী দিয়ে বলেন আজকের সভা যানজট নিরসনে নেয়া আইনকে যখনই ভাঙ্গা হবে তখনই আমরা আইনগত ব্যবস্থা নেবো। তখন আর কোন মিটিং হবে না। সাংসদ ও মেয়র এক টেবিলে বসতে পারলে আগামীদিনে যানজট নিরসনে আর কোন সভা করতে হবে না। চাঁদাবাজি না করে আপনারা যদি পকেট থেকে টাকা খরচ করেন, নিজস্ব লোককে কাজে না লাগান, জনগণ যে দিন থেকে অভিযোগ করবে সেদিন থেকে পঞ্চবটি থেকে, লিঙ্করোড থেকে, চিটাগাংরোড দিয়ে কোন ট্রাক নগরীতে ঢুকতে দেবো না। টানবাজার, উকিলপাড়া, নয়ামাটি,নিতাইগঞ্জ এ ব্যবসায়ীদের নিয়ে অতিসত্ত্বর সভার আয়োজন করেন।

 

আপনারা কথা দিয়েছেন যানজট হবে না। এটা নিশ্চিত করেন। শহরে দিনের বেলা প্রবেশ ৩০ ট্রাকে যদি যানজট নিয়ন্ত্রণ না হয়। তাহলে ট্রাকের সংখ্যা কমাইয়া দেন। রোজার মাস কন্ট্রোল করে যান। কিন্তু এসব কথা কানে তোলে নি ব্যবসায়ীরা। ওই সভায় জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া প্রস্তাব রেখেছিলেন, ঢাকা শহরের মতো নারায়ণগঞ্জেও যাতে দিনের বেলায় নগরীতের কোন ধরণে ট্রাক, কাভার্ডভ্যান না ঢুকতে পারে। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের রাস্তাগুলোর মধ্যে আপাতত সীমিত পরিসরে ট্রাক, কাভার্ডভ্যান চলাচল গ্রহণযোগ্য করেছিলাম। কিন্তু আমার প্রত্যাশা সবার মতানৈক্যের মাধ্যমে কিছুদিনের মধ্যে সকাল ৬ টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত কোন ট্রাক,কাভার্ডভ্যান এ ধরণের যান চলবে না। ওই সভায় যানজট নিরসনে পুলিশ সুপার মঈনুল হক বলেন সাংসদের সমর্থন পেলে চাষাঢ়া মোড় থেকে শুরু করে মুন্সীখোলা পর্যন্ত রাস্তার দুইপাশে আমরা পরিষ্কার করে দেবো। রাস্তা একদম পরিচ্ছন্ন থাকবে। পঞ্চবটি থেকে বিসিক পর্যন্ত এক দ্ইু কিলোমিটার রাস্তা আমরা পরিচ্ছন্ন করে দিবো। সভায় ডিসি, এসপি, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, নাসিক সিইও, পরিবহণ ব্যবসায়িক সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা মিলে এ সিদ্ধান্তে পৌছান।

 

নিষেধাজ্ঞা অম্যান্য করে কার্ভাড ভ্যান, প্রাইম ভ্যান মুভারসহ সব ধরণের পণ্যবাহী গাড়ি চলাচলের কারণে পুরো নগরী যানজটে স্থবির হয়ে পড়েছে। সড়কগুলো বেহাল অবস্থায় থাকায় পণ্যবাহী গাড়ি গর্তে আটকে পড়ে দূর্ভোগ ও দূর্ঘটনা দুটিই বাড়িয়েছে। যানজট নিরসনে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, নাসিক ও এমপিদ্বয়ের সাথে সভায় জানানো হয় নগরীতে সকাল ৭টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত টা ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান, প্রাইম মুভারসহ সবধরনের পণ্যবাহী গাড়ি চলাচলে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। কিন্তু পুলিশের সামনেই প্রশাসনের এ নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ২৪ ঘণ্টা এসব গাড়ি চলছে। এতে নগরে যানজট অসহনীয় হচ্ছে। কোন ক্রমেই নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। ২০১৭ সালের জুলাই মাসে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান নিতাইগঞ্জের ট্রাক স্ট্যান্ড সরিয়ে দিয়ে দিনের বেলা বোটখাল ব্যাতীত সড়কে ট্রাকে করে লোড-আনলোড সহ পার্কিং নিষেধ করে দেয়। ফলে ওই বছরের ১ আগষ্ট থেকে নিতাইগঞ্জের ট্রাক স্ট্যান্ড অপসারণ করা হয়। একই সাথে দিনের বেলায় অবাধে পণ্যবাহী ট্রাক ঢুকতে না দেয়ারও সিদ্ধান্ত হয়। ট্রাকগুলো চারিদিকের সড়ক দখল করে যানজট বাধিয়ে রাখছে। এতে করে এখন প্রতিদিনই যানজটের সৃষ্টি হয়। নেতারা লোক দেখানোর জন্য ট্রাক স্ট্যান্ড খালি করার নামে নিজের ইমেজ বৃদ্ধি করেছিলেন। কিন্তু এখনতো তদারকির অভাবে সেই আগের অবস্থানে চলে গেছে। স্থায়ীভাবে এই সমস্যার সমাধান প্রয়োজন। এছাড়া সামনে নির্বাচন আসছে আর তাকে এইসব জনদুর্ভোগের কথা বিবেচনা করে জনগণ ভোট দিবে। আমদানি ও রপ্তানির পণ্যবাহী হাজার ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান ও প্রাইম মুভার প্রতিদিন নারায়ণগঞ্জ শহরে প্রবেশ করে। এ জন্য নগরের তিনটি সড়কে দিনের বেলায় অবাধে ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা রাখা হয়। উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে নগরীতে দিনের বেলায় ট্রাক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসন। তবে প্রশাসনের এ নিষেধাজ্ঞাকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে দিনরাত সবসময়ই নগরীতে ট্রাক কাভার্ডভ্যান অবাধে চলাচল করছে।

 

২০১৭ সালে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের বাজেট অনুষ্ঠানে বক্তৃতায় এমপি সেলিম ওসমানের দৃষ্টি আকর্ষণ করে শহরের নিতাইগঞ্জে ট্রাক স্ট্যান্ড উঠানো ও ফুটপাত হকারমুক্ত রাখার দাবী করেন সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। এর প্রেক্ষিতে ২০১৭ সালের ৩১ জুলাই নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলনকক্ষে এমপি সেলিম ওসমানের উপস্থিতিতে নিতাইগঞ্জের ট্রাকস্ট্যান্ড নিয়ে ব্যবসায়ী ও শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। যাতে সিদ্ধান্ত হয় ১ আগষ্ট থেকে নারায়ণগঞ্জের নিতাইগঞ্জে পাইকারী মোকামে লোড আনলোড রাতের বেলায় চলবে। দিনের বেলায় কোন ট্রাক থাকতে পারবেনা এমনকি তাদেরকে শহরের বঙ্গবন্ধু ও সিরাজদ্দৌলা সড়ক দিয়ে প্রবেশ করতে দেয়া হবেনা। রাত ৯টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত নিতাইগঞ্জের বোটখালের উপরে লোড আনলোড করবে ব্যবসায়ীরা। এর পর ১ আগস্ট থেকেই শহরের যানজটের চিত্রই বদলাতে শুরু করলেও এখনো আবার আগের অবস্থাতেই ফিরতে শুরু করেছে নগরী।

এই বিভাগের আরো খবর