সোমবার   ২৫ মে ২০২০   জ্যৈষ্ঠ ১০ ১৪২৭   ০২ শাওয়াল ১৪৪১

নবীগঞ্জ গুদারাঘাট পয়েন্টে নিত্য যানজট : দরকার ট্রাফিক পুলিশ

প্রকাশিত: ১৩ জানুয়ারি ২০২০  

নুরুল ইসলাম (যুগের চিন্তা ২৪) : নবীগঞ্জ গুদারাঘাট পয়েন্টে নিত্য যানজটে সাধারন মানুষ অতিষ্ট হয়ে পড়েছে। গুরুত্বপূর্ন এই পয়েন্টে নেই ট্রাফিক পুলিশ।

 

এই সড়কটি ভি আকৃতির  হওয়ায় একদিকের পরিবহন অন্যদিক থেকে দেখা যায় না। তাই এখানে এসে দুই প্রান্তের সব পরিবহনের গতি কমে যায়। এতে করে দিনভর এই সড়কে থেমেথেমে যানজট লেগেই থাকে। 

 

এছাড়া ফেরীতে উঠার যানবহনের লাইন সহ আদমজী রোডের প্রতিটি যানবাহনের যাত্রী উঠানামার কারনে এখানে যানজট আরো ভয়াবহ আকারের রূপ নিয়েছে। ফলে এই সড়কে চলাচলকারী মানুষের দূর্ভোগের শেষ নেই। তাই এই পয়েন্টে ট্রাফিক পুলিশ জরুরী হয়ে পড়েছে বলে অনেকেই মনে করছেন। 

 

সরেজমিনে দেখাগেছে , নবীগঞ্জ গুদারাঘাট পয়েন্টে দিনদিন যানজোট ক্রমেই বাড়ছে। প্রতিদিন এ সড়কে দীর্ঘ হচ্ছে যানজট। নিত্য এই যানজটের কারনে স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রীসাহ প্রতিনিয়ত দূর্ভোগে পড়ছেন যাত্রীরা। এই পয়েন্টের যানজটের কারনে সময়ের কাজ সময় মতো করতে পারছেন না অনেকে। 


যাত্রীদের অভিযোগ নবীগঞ্জ গুদারাঘাট এই পয়েন্টে বিশেষ করে দূরন্ত পরিবহন যানজট সৃষ্টির মূল কারন। এই পয়েন্ট দিয়ে আসা যাওযার সময় দূরন্ত পরিবহন সহ লেগুনার সড়কের মাঝ খানে গাড়ি ষ্টপিজ করে যাত্রী উঠামানা করে থাকে।

 

এছাড়া ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সা এই যানজটের জন্য অনেক অংশে দায়ী। এতে করে কিল্লাপুল অপর দিকে হাজীগঞ্জ মুরগী ফার্ম পর্যন্ত সড়কে সৃষ্টি হচ্ছে তীব্র যানজট। 

 

এছাড়া নারায়ণগঞ্জ টু আদমজী সড়ক অতন্ত গুরুত্ববহন বহন করে। কারন আদমজী ইপিজেড সাইলো সহ সরকারী বেসরকারী অনেক মিল ইন্ডাষ্ট্রিজ রয়েছে। তাই এই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন যাতায়াত করে শত শত যানবাহন। কিন্তু নবীগঞ্জ গুদারাঘাটের এই গুরুত্বপূর্ন পয়েন্টে নেই ট্রাফিক পুলিশ। এই সড়কটি ভি আকৃতির হওয়ায় এক পাশ থেকে অন্যপাশের যানবাহন দেখা যায় না। ফলে অনেক সময় দূর্ঘটনাও হচ্ছে এই পয়েন্টে। 

 

অন্যদিকে এই সড়কের কিছু অংশ দখল করে দোকানপাটও নির্মান করা হয়েছে। এতে করে গুদারাঘাটের ওই সড়কটি সরু হয়ে পড়েছে। অপর দিকে ট্রাফিক পুলিশ না থাকায় এই সড়কে চলাচল করা পরিবহন গুলো নিজেদের ইচ্ছেমতো যাত্রী উঠানামা সহ ষ্টপিজ করে রাখে। অপর দিকে রিকসা, অটো রিকসা, টেম্পু, লেগুনার এই পয়েন্ট স্ট্যান্ডে পরিনত করেছে। তাই নিত্য যানজটে অতিষ্ঠ এ রোডের যাত্রীরা। 


এদিকে সাইলো নিবাসী নজরুল জানান, নবীগঞ্জ গুদারাঘাট পয়েন্টের সড়কটি ভি আকৃতির হওয়ায় এটা ডেঞ্জার পয়েন্ট। শুধু যানজট নয় এই পয়েন্টে দূর্ঘটনাও ঘটছে। কয়েক দিন পূর্বেও এই পয়েন্টে একটি দূর্ঘটনা ঘটেছে। এই গুরুত্বপূর্ন পয়েন্টে নেই ট্রাফিক পুলিশ।

 

 তাই এই গুরুত্বপূর্ন পয়েন্টে যানজট মুক্ত করতে এখানে ট্রাফিক পুলিশ নিয়োগ দেওয়া জরুরী। অন্যথায় এই পয়েন্টে যানজট আরো দীর্ঘ হবে। তাই সৃষ্ট যানজট নিরশনে পূর্ব পার্শ্বের দেয়ালটি ভেঙ্গে সড়কটি সোজা করা হলে যানজট মুক্ত করা সম্ভব হতো বলে অনেকেই জানান।   

 

ভুক্তভোগী অনেকেই জানান, প্রতিদিন এক চরম ভোগান্তির মধ্য দিয়ে এ সড়ক দিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে। নিত্য দিনের যানজটে আমরা অতিষ্ট। আমরা এই যানজটের কবল থেকে মুক্ত হতে চাই।

 

সিদ্ধিরগঞ্জ চৌধুরী বাড়ি এলাকার আমেনা বেগম জানান, প্রতিদিন তিনি এই সড়ক দিয়ে যাওয়া আসা করেন। চাষাড়ায় অবস্থিত একটি প্রাইভেট অফিসে চাকুরী করেন। তাই চাকুরীর সুবাদে যাতায়াত করতে হয় এই সড়কটি দিয়ে। নবীগঞ্জ গুদাঘাট এই পয়েন্টে এলেই পড়তে হয় যানজটে।  


এদিকে এই পয়েন্টে ট্রাফিক পুলিশ না থাকায় দিনদিন সাধারন মানুষের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হচ্ছে।  তাঁরা ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান যেখানে পুলিশ থাকার কথা সেখানে নেই। নবীগঞ্জ গুদারাঘাট সড়কে প্রতিদিন তীব্র যানজটের সৃষ্টি হলেও দেখার কেউ নেই। অথচ হাজীগঞ্জ আইইটি স্কুল সংলগ্ন চেকপোষ্টে তল্লাশীর নামে যাত্রী হয়রানী করছে পুলিশ। 

এই বিভাগের আরো খবর