বুধবার   ২৩ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৮ ১৪২৬   ২৩ সফর ১৪৪১

দেবী দুর্গার বিসর্জনের মধ্যে দিয়ে শেষ হল শারদীয় দুর্গোৎসব

প্রকাশিত: ৯ অক্টোবর ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) :  ভক্তকূলের ভক্তি আর ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে ঘোটকে চড়ে বিদায় নিলেন দেবী দুর্গা। এর মধ্য দিয়ে এ বছরের মত শেষ হল সনাতন ধর্মালম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। এক বছর পর আবার তার ভক্তদের মাঝে পিতৃগৃহে ফিরে আসবেন।


মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে নগরীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বের হতে থাকে বিজয়ার শোভাযাত্রা। শোভাযাত্রা শেষ করে শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে  শুরু হয়  বিসর্জনের পালা । সবশেষে পুরোহিতের মন্ত্রপাঠের মধ্য দিয়ে নৌকায় তুলে বিসর্জন দেয়া হয় দেবীকে। অতঃপর দেবীর বিসর্জন আর ‘শান্তিজল’ গ্রহণের মধ্যে দিয়ে শেষ হয় দেবী দূর্গার বিদায় সম্ভাষণ।


 মঙ্গলবার সকাল থেকেই বিজয়া দশমীর মূল আনুষ্ঠানিকতা। রামকৃষ্ণ মিশনসহ বিভিন্ন মন্ডপগুলোতে ৭টা ৩০ মিনিটে অনুষ্ঠিত হয়দশমী বিহিত পূজা। এরপর ৯টা ৫১মিনিটে অনুষ্ঠিত হয় সমাপন ও দর্পণ বিসর্জন পূজা। ষোড়শপ্রচার পূজার পাশাপাশি হাতে জরা,পান,শাপলা ডালা দিয়ে দেবী প্রতিমার আরাধনা করা হয়।

 

এ আরাধনায় সমবেত হয় সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। পূজার নিয়ম অনুযায়ী,সবশেষে দর্পণ বিসর্জনের সময় প্রতিমার সামনে একটি আয়না রেখে তাতে দেবীকে তার কাছ থেকে কিছুক্ষণের জন্য বিদায় নেয় ভক্তরা। পরে মায়ের পায়ে পুষ্পাঞ্জলী দিয়ে শেষবারের মত আর্শীবাদ নেন ভক্তরা।


সন্ধ্যায় মণ্ডপ-মন্দির প্রাঙ্গনগুলোতে শাখ,উলুধ্বনীতে আর ঢাকের তালে তালে ধুনচি নাচে মাতোয়ারা ছোট-বড় সকলে। মুখে পান পাতা বুলিয়ে, কপালে সিঁদুর ছুঁইয়ে আর মিষ্টি মুখ করিয়ে দেবী মাকে শেষবারের মত বরণ সেরে  নেয় ভক্তরা।


এবার দেবী দূর্গতিনাশিনী কৈলাসে ফিরবেন ঘোড়ায় চড়ে। এরপর আবারও এক বছরের অপেক্ষা। বিশুদ্ধ পঞ্জিকামতে, দেবী দুর্গা এবার ঘটক অর্থ্যাৎ ঘোড়ায় চড়ে পৃথিবীতে এসেছেন এবং আর ঘোড়ায় চড়েই কৈলাসে ফিরবেন।সনাতন ধর্মের বিশ্বাস অনুযায়ী, মহালয়ার দিন ‘কন্যারূপে’ ধরায় আসেন দশভূজা দেবী; বিসর্জনের মধ্য দিয়ে তাকে এক বছরের জন্য বিদায় জানানো হয়। তার এ ‘আগমন ও প্রস্থানের’ মাঝে আশ্বিন মাসের শুক্লপক্ষের ষষ্ঠী থেকে দশমী তিথি পর্যন্ত পাঁচ দিন চলে দুর্গোৎসব।


গত শুক্রবার বোধনে অরুণ আলোর অঞ্জলি নিয়ে আনন্দময়ী মা উমাদেবীর আগমন ঘটে মর্ত্যে। হিন্দু সম্প্রদায়ের বিশ্বাস মতে, টানা পাঁচদিন মৃন্ময়ীরূপে মন্ডপে মন্ডপে থেকে মা ফিরে যাচ্ছেন কৈলাসে স্বামী শিবের সান্নিধ্যে। আর ‘শান্তিজল’ গ্রহণে শেষ হল বাঙালি হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় এই আয়োজন।


এ বছর  পূজা উদযাপন পরিষদের তথ্যানুযায়ী নারায়ণগঞ্জ জেলায় এবার শারদীয় দূর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয় ২০৫টি মন্ডপে। এর মধ্যে নারায়ণগঞ্জ সদরে ৩৯টি, ফতুল্লায় ২৬টি, সিদ্ধিরগঞ্জে ৭টি, বন্দরে ২৬টি, সোনারগাঁয়ে ৩১টি, আড়াইহাজারে ৩১টি এবং রূপগঞ্জে ৪৮টি।

এই বিভাগের আরো খবর