শনিবার   ০৪ এপ্রিল ২০২০   চৈত্র ২১ ১৪২৬   ১০ শা'বান ১৪৪১

দেওভোগে দুই ভবনের অবৈধ অংশ উচ্ছেদ, ১০ লাখ টাকা জরিমানা

প্রকাশিত: ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : শহরের দেওভোগ এলাকায় নিয়ম বহির্ভূতভাবে বহুতল ভবন নির্মাণ করায় দুইটি ভবন ভেঙ্গে দিয়ে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। 

 

এর মধ্যে প্রয়াত পরিবহন নেতা আমিনুল সেক্রেটারির ছেলে রুবেলকে ৭ লাখ টাকা জরিমানাসহ ভবনের নিচতলা ভেঙে দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে অজিত সাহার মালিকানাধীন অপর একটি নির্মাণাধীন ভবনে অভিযান চালিয়ে একই অভিযোগে ৩ লাখ টাকা জরিমানা এবং বর্ধিত অংশ ভেঙে দেওয়া হয়েছে।

 

নারায়ণগঞ্জ রাজউক জোন-৮ এর নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট জিয়াসমিন আক্তারের নেতৃত্বে রোববার (২৩ ফেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে এগারটার দিকে শহরের দেওভোগ এলএন রোড এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত এ অভিযান চালায়। এসময় উপস্থিত ছিলেন রাজউক অথরাইজড অফিসার তৌফিকুর রহমান।

 

জানা গেছে, আমিনুল সেক্রেটারির ছেলে রুবেল রাজউক থেকে ১০ তলা ভবনের প্লান পাস করেন। এই প্লানে রাস্তার দিকে পর্যাপ্ত জায়গা ছাড়া এবং গাড়ি পার্কিং ব্যবস্থা রাখার কথা ছিল স্পষ্ট। এবং প্লানে নির্দিষ্ট একটি নকশা করে দেওয়া হয়েছিলো। কিন্তু ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে ১০ তলার স্থলে ১১ তলা এবং কোনোরকম গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা রাখা হয়নি। 

 

এমনকি রাজউকের প্লানে যে নকশা ছিল তাও মানা হয়নি। রাস্তার দিকেও ছাড়া হয়নি পর্যাপ্ত জায়গা। এমনই অভিযোগে রাজউক অভিযান চালিয়ে এর সত্যতা পায় এবং ভবন মালিক রুবেলকে ৭ লাখ টাকা জরিমানা এবং নিচতলার কিছু অংশ ভেঙে দিয়ে বাকিটা নিজেদের দায়িত্বে ভাঙার নির্দেশ দেন। একই সাথে ১১ তলা পর্যন্ত না করার কড়া নির্দেশনা আরোপ করা হয়।

 

এছাড়াও দেওভোগ ১৭/২ এলএনএ রোডের অজিত সাহার মালিকানাধীন নির্মাধীন অপর এক ভবনে অনিয়ম থাকায় ৩ লাখ টাকা জরিমানা এবং বর্ধিত অংশ উচ্ছেদ করেছে রাজউক জোন-৮।

 

রাজউক জোন-৮ এর অথরাইজড অফিসার তৌফিকুর রহমান আমিনুল সেক্রেটারির বাড়ি সম্পর্কে বলেন, ভবনটি ১০ তলার অনুমোদ ছিল কিন্তু তারা এগার তলা করেছে এবং তারা রাজউক থেকে যে নকশা নিয়েছে সে মোতাবেক কোনো কাজ করেনি। রাস্তার উপর বিল্ডিং চলে আসছে। নিচতলায় গাড়ি পার্কিং ব্যবস্থা রাখার কথা। কিন্ত তা না রেখে তারা সেখানে দোকান করেছে। তাই আমরা এই উচ্ছেদ চালিয়েছি। তাদেরকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ৭ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

 

অভিজিত সাহার ভবন সম্পর্কে তিনি বলেন, এই ভবনটি স্টিল স্ট্রাকচার। ভবনটি চারতলা করেছে। কিন্তু এটির কোনো নকশা নেই। নির্ধারিত স্থানে সিঁড়ি না রাখা, আবাসিক ভবনের স্থলে কর্মাশিয়াল ভবন নির্মাণ এবং স্টিল স্ট্রাকচার দিয়ে ভবন নির্মাণ করায় তিন লাখ টাকা জরিমানাসহ ভবনটির বর্ধিত অংশ উচ্ছেদ করা হয়েছে।

এই বিভাগের আরো খবর