মঙ্গলবার   ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ১৩ ১৪২৬   ০১ রজব ১৪৪১

দিপুর কথা শুনলেননা দুই প্রার্থী 

প্রকাশিত: ২১ জানুয়ারি ২০২০  

যুগের চিন্তা রিপোর্ট : বার নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ ও গণতান্ত্রিক আইনজীবী পরিষদ এর যৌথ প্যানেলের ১৫ প্রার্থী অসহায় আত্মসমর্থণ করে তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। তবে এই প্যানেলেরই দুই প্রার্থী তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার না করে দুঃসাহসিকতার পরিচয় দিয়েছেন। 


নির্বাচনের আগেই এই দুই প্রার্থীর জয়জয়কার চলছে আইনজীবীদের মাঝে। আইনজীবীরা বলছেন, নির্বাচনে হার-জিত যাই হোক এই দুইজন যে দুঃসাহসিকতার পরিচয় দিয়েছে তা একটা জ্বলজ্যান্ত উদাহরণ হয়ে থাকবে। যাকে প্রতিবাদের প্রতীক ভাবা হয়েছিলো এই প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী এড.আনিসুর রহমান দিপু তিনি নিজেই লেজ গুটিয়ে আত্মসমপর্ণ করায় বিস্মিত আইনজীবীরা। 


কিন্তু আপ্যায়ন সম্পাদক পদে প্রার্থী মামুন সিরাজুল মজিদ এবং সমাজসেবা সম্পাদক পদে এড. রোমেল মোল্লা নির্বাচনে পিরাপিডের মতো ঠাঁয় দাঁড়িয়ে থাকায় অদৃশ্য যেই চাপের অযুহাত তুলছেন দিপু-পলু প্যানেলের বাকিরা তা ধোপে টেকেনি। আইনজীবীদের মাঝে এখন দুই বিস্ময় পুরুষ মামুন সিরাজুল মজিদ ও রোমেল মোল্লা। ইতিমধ্যে তাদের দুইজনের মনোনয়নপত্র চূড়ান্তভাবে বৈধ ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন।    


সমাজসেবা সম্পাদক পদে প্রার্থী এড. রোমেল মোল্লা বলেন, নির্বাচনে দাঁড়ানোর আগে বহুবার আমাদের ডেকে নেয়া হয়েছিলো, কিন্তু প্রত্যাহারের সময় তারা একাই সব করেছে, আমাদের জানানোর প্রয়োজনও মনে করেনি। যেহুতু তারা আমাদের জানায়নি, আমরাও আর জিজ্ঞাসা করতে যাইনি কেন প্রত্যাহার করলেন। সর্বোপরি এখন আইনজীবীদের ভালোবাসা পেলে তাদের ভোটে জয়ী হবো ইনশাআল্লাহ। 


রাজনৈতিক পরিচয় সম্পর্কে রোমেল মোল্লা বলেন, আমি কায়েতপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্য, স্বেচ্ছাসেবক লীগ জেলার সদস্য, বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ নারায়ণগঞ্জের সদস্য, যুব আইনজীবী পরিষদ নারায়ণগঞ্জের সদস্য সচিব, বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগ নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি, আওয়ামী  আইন ছাত্র পরিষদ নারায়ণগঞ্জের সাবেক সদস্য সচিব এবং নারায়ণগঞ্জ আইন কলেজের সাবেক ভিপি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি। 


আপ্যায়ন সম্পাদক পদে প্রার্থী মামুন সিরাজুল মজিদ বলেন, প্রত্যাহারের ব্যাপারে প্রাথমিক আলোচনা কিংবা সিদ্ধান্ত নেয়ার বিষয়ে আমাদের সাথে কোন আলোচনা হয়নি। আমরা যেহুতু প্রচারণা করতে হবে আমরা তাই করছিলাম, এরমধ্যে দেখলাম তারা প্রত্যাহার করেছে। যাই হোক এখন ঘাবড়ানোর কিছু নেই।  ইতিপূর্বে ২০১২ সালে যখন আওয়ামী প্যানেলের খুব কম সংখ্যক আইনজীবী জয়ী হতেন তখন আমি নির্বাচনে জয়ী হয়েছিলাম। এখনও আমি শতভাগ জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী।   


রাজনৈতিক পরিচয় সম্পর্কে সিরাজুল মজিদ বলেন, আমি নাসিক ২৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্য, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নারায়ণগঞ্জ জেলার সদস্য, বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ নারায়ণগঞ্জের সদস্য, যুব আইনজীবী পরিষদ নারায়ণগঞ্জের যুগ্ম আহবায়ক, বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের জেলার সাংগঠনিক সম্পাদক, আওয়ামী আইন ছাত্র পরিষদ নারায়ণগঞ্জের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক এবং নারায়ণগঞ্জ আইন কলেজের সাবেক এজিএস এবং ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি।


প্রসঙ্গত, ২৯ জানুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ ও গণতান্ত্রিক আইনজীবী পরিষদ এর যৌথ প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী এড.আনিসুর রহমা দিপু, সেক্রেটারি প্রার্থী এড.হাবীব আল মুজাহিদ পলুসহ ১৫ প্রার্থী অসহায় আত্মসমর্থন করে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন। এখন নির্বাচনে ৩৬ প্রার্থীকে চূড়ান্তভাবে বৈধ ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। 
 

এই বিভাগের আরো খবর