শনিবার   ০৪ এপ্রিল ২০২০   চৈত্র ২১ ১৪২৬   ১০ শা'বান ১৪৪১

উদ্ধার, আটক ৩

ছাত্রলীগ নামধারীরা তুলে নিল জুয়াড়ি শাজাহানকে

প্রকাশিত: ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

যুগের চিন্তা রিপোর্ট : বড় শাজাহান, নগরীর চিহ্নিত জুয়াড়ি হিসেবে পরিচিত। দশ লাখ টাকার দাবিতে ফিল্মি স্টাইলে ছাত্রলীগ নামধারীরা তাকে তুলে  নিয়ে যায় চাষাড়ায় হক প্লাজা সংলগ্ন একটি নির্মাণাধিন ভবনে।

 

যেটি শহরে টর্চার সেল হিসেবে পরিচিত। সেখানেই দশ লাখ টাকার জন্য তার উপর চলে টর্চার। টর্চার সেলের ভেতর থেকে মারধরের শব্দ শোনা গেলেও স্থানীয় পর্যায়ের কেউ এগিয়ে যেতে সাহস দেখায়নি।  রোববার (১৬ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যা ৬টা ২০ মিনিটের দিকে ঘটে এই ঘটনা।


খবর পেয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) শাফীউল আলম ও র‌্যাবের একটি দল ঘটনাস্থলে এসে অভিযান চালিয়ে ৩ ঘন্টা পর রাত ৯টার দিকে শাজাহানকে উদ্ধারসহ তিনজনকে আটক করে। এ সময় র‌্যাব পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে এ ঘটনার সাথে জড়িত অন্যরা পালিয়ে যায়।


আটককৃতরা হলেন, পাইকপাড়া পুল এলাকার আলাউদ্দিনের ছেলে মো. সানি (২৮), ২১৭ নং বিবি রোডের মৃত নাছির আহম্মেদের ছেলে মো. হানিফ নাঈম (৩০) এবং দেওভোগ আখড়া দিঘির পাড় এলাকার বাবল বিশ্বাসের ছেলে শ্রী রতন বিশ্বাস (২৯)। তারা সকলেই শহরের মধ্যে নিজেদেরকে ছাত্রলীগের কর্মী হিসেবে পরিচয় দিয়ে থাকে। তবে, এদের কোনো পদপদবী নেই বলে কয়েকটি সূত্রে জানা গেছে।


প্রতক্ষদর্শী সূত্র জানায়, পাঁচটি মোটর বাইকে করে দশ যুবক বাস টার্মিনাল এলাকা থেকে জুয়াড়ি বড় শাজাহানকে তুলে নিয়ে আসে। তারা শাজাহানকে হক প্লাজা সংলগ্ন একটি নির্মাণাধিন ভবনে আটকে রেখে দশ লাখ টাকা চাঁদার দাবিতে। এসময় কয়েকজন যুবক ওই ভবনের বাইরে অবস্থান করে মহড়া দিতে দেখা যায়।


এদিকে হক প্লাজা সংলগ্ন ওই ভবনের আশপাশের কয়েকটি সূত্র জানায়, ভবনটির বাইরে আরিফসহ কয়েকজনকে মহড়া দিতে দেখা যায়। আর ভবনের গেট ভেতর থেকে আটকিয়ে এক যুবক সেখানে পাহারায় থাকে। ভেতর থেকে মারধরের শব্দ শোনা গেলেও স্থানীয় পর্যায়ের কেউ এগিয়ে যেতে সাহস দেখায়নি।


এসআই শাফীউল আটকের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে আমরা অভিযান চালিয়েছি। র‌্যাবও ছিল। শাজাহান নামে একজনকে উদ্ধার করেছি। এসময় তিনজনকে আটক করা হয়েছে।


এ প্রসঙ্গে সদর মডেল থানা পুলিশের অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) মো. আসাদুজ্জামান জানান, শাজাহান নামে একজনকে উদ্ধারসহ তিনজনকে আটক করেছি। তবে, মামলা বা অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

 

 

এই বিভাগের আরো খবর