শুক্রবার   ২২ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৮ ১৪২৬   ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

কখনো কোরবানির পশুর হাটে যাওয়া হয়নি : সাংসদ হোসনে আরা বাবলী

প্রকাশিত: ২১ আগস্ট ২০১৮  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪): ‘ছোটবেলার মত ঈদ উদযাপন করা এখন আর সম্ভব না। সময়ের সাথে সাথে আমাদের অনুভূতিরও অনেক পরিবর্তন হয়। তবে এখন ঈদের আনন্দটা অন্যরকম। সারাবছর পরিবারের সাথে সেভাবে একসাথে এক হওয়া হয় না। কিন্তু ঈদ আসলে পরিবার, বন্ধুবান্ধবদের সাথে একসাথে হওয়া যায়। এটাতেও এক অন্যরকম আনন্দ অনুভূত হয়! ঈদুল আজহা উদযাপনের নানা বিষয় জানিয়ে যুগের চিন্তা ২৪’কে  দেয়া এক সাক্ষাৎকারে কিছু কথা বলেছেন সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট হোসনে  আরা বাবলী। সাক্ষাৎকারটি নিয়েছে শামীমা রীতা।


ঈদ উদযাপন প্রস্তুতি প্রসঙ্গে সংসদ সদস্য হোসনে আরা বাবলী জানান, প্রতিবারের মত এবারো পরিবারের সাথেই ঈদ কাটাবো। তাছাড়া  আত্মীয়-স্বজন বন্ধু-বান্ধব কাছে যারা আছে তাদেরকে সময় দেয়া হবে।


ঈদের সারাদিনের দিন খুবই ব্যস্ততার মধ্য দিয়ে যায় বলে জানান জনপ্রিয় এই সাংসদ। তিনি বলেন, ‘ঈদে সাধারণত আমরা গণভবনে যাই,এবারো তাই। প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা সাক্ষাৎ ও শুভেচ্ছা বিনিময় করবো। তারপর কিছু জায়গায় নিমন্ত্রণ রয়েছে সেখানে যাব। সবমিলিয়ে মোটামোটি একটু ব্যস্ত ঈদেও দিনটি বরাবরের মত ব্যস্ততার মধ্যে দিয়েই পার হবে।’


কোরবানির গরু কেনা এখনো হয় নি বলে জানান সাংসদ হোসনে আরা বাবলী। তিনি বলেন, আমাদের যৌথ পরিবার। কোরবানির গরু  এখনো কেনা হয়নি ।  তাই সবাই মিলেই  হাটে গিয়ে গরু কেনে। ভাসুর-দেবরের সাথে ছেলেমেয়েরা গরু কিনতে সবাই মিলে যাচ্ছে


কোরবানির পশুর হাটে কখনো যাওয়া হয় নি বলে জানান সাংসদ। তিনি বলেন, ‘আসলে কখনও কোরবানির পশুর হাটে যাওয়া হত না। তবে আমার ছোটবেলায় আমার নানা বাড়িতে অনেক গরুর ছিলো সেগুলো দেখতাম।’


ঈদের গরুর মাংসের তৈরী প্রিয় রেসিপি সম্পর্কে অ্যাডভোকেট হোসনে আরা বাবলী জানান, কোরাবনির মাংস সাধারণত খুবই সুস্বাদু হয়। তবে আমার  ব্যক্তিগতভাবে গরুর কলিজা আর মগজ ভুনাটা খুব প্রিয়। রান্না-বান্না প্রসঙ্গে তিনি জানান, আমার নিজেরও রান্না করা হয়। বিশেষ করে ঈদ আসলে পরিবারের সকলের জন্য গরুর মাংসের কাবাব, টিকিয়া তৈরী করার চেষ্টা করি।


ঈদুল আজহায় কোরবানির মাধ্যমে আমাদের শিক্ষণীয় বিষয়  ও তাৎপর্য সম্পর্কে সাংসদ অ্যাডভোকেট হোসনে আরা বাবলী বলেন, কোরবানি ঈদ যেমন ত্যাগের তেমনিই আনন্দেরও। এই দিনটিতে আমাদের উচিত যারা কোরবানি দেয় না বা কোরবানি দিতে পারে না, অসহায়, গরীব-দুঃখি তাদের মাঝে মাংস বিতরণ করা। এতে করে তাঁরা যেমন খুশি হয় তেমনি আল্লাহতায়ালাও খুশি হন। কোরবানির মাধ্যমে নিজের মনে প্রশান্তি অনুভূত হয়।


ঈদের পর রাজনৈতিক কর্মপরিকল্পনা সম্পর্কে সাংসদ হোসনে আরা বাবলী জানান, সামনে তো আমাদের নির্বাচন। আমরা নিবার্চনকে সামনে রেখেই এগিয়ে যাচ্ছি। প্রধানমন্ত্রী  শেখ হাসিনার দিক নির্দেশনা অনুুসরণ করেই আমরা আমাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি।  ঈদের পরেও আমাদের নির্বাচনী  কার্যক্রম অব্যহত থাকবে।


গরীব-দুঃস্থ, সকল দলের নেতা-কর্মী, নারায়ণগঞ্জবাসসহ  সকলকে ঈদ শুভেচ্ছা জানিয়ে  সংরক্ষিত নারী আসনের সাংসদ অ্যাডভোকেট হোসনে আরা বাবলী বলেন, ‘সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা। সবার ঈদ ভালো কাটুক, শান্তিতে কাটুক এই কামনা করি।’

এই বিভাগের আরো খবর