বৃহস্পতিবার   ১৪ নভেম্বর ২০১৯   কার্তিক ৩০ ১৪২৬   ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

এবার লাঞ্ছিত এড.বারী ভূঁইয়া ও এড.ভাষানী (ভিডিও)

প্রকাশিত: ৪ নভেম্বর ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও মহানগর বিএনপির সহসভাপতি এড.সাখাওয়াত হোসেন খানকে লাঞ্ছিত করার জেরে ১২ ঘন্টার মধ্যেই লাঞ্ছিত হয়েছেন আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও বিএনপিপন্থী আইনজীবী নেতা এড.আব্দুল বারী ভূঁইয়া। সোমবার (৪ নভেম্বর) সকালে আদালতপাড়ায় এঘটনা ঘটে। এই ঘটনার পরপরই আরো বেশ দুইদফা বিএনপি পন্থী আইনজীবীদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। এতে তৈমূরপন্থী বিএনপি আইনজীবী নেতা এড.আব্দুল হামিদ খান ভাষানী ও সাখাওয়াত পন্থী বিএনপি আইনজীবী নেতা আনোয়ার প্রধানও মারধরের শিকার হন। বিএনপিপন্থী আইনজীবী নেতাদের মধ্যে  মারধর ও হাতাহাতির ঘটনায় আদালতপাড়ায় উত্তেজনা তৈরি হয়।

 

দুই-তিনদফা হাতাহাতির পর এড.বারী ভূঁইয়া, এড.আব্দুল হামিদ খান ভাষানী, এড.আশরাফুল ইসলাম সিরাজী, এড.আবুল আল ইউসুফ খান টিপু এড.আজিজ আল মামুন, এড.শরীফুল ইসলাম শিপলু এবং অন্যদিকে এড.সরকার হুমায়ুন কবির, এড.খোরশেদ মোল্লা এড.আনোয়ার প্রধানসহ আরো বেশ কয়েকজন আইনজীবী আরেকদফা হাতাহাতি ও মারামারির প্রস্তুতি নেন। তবে শেষ পর্যন্ত আইনজীবী সমিতির সভাপতি এড.হাসান ফেরদৌস জুয়েল ও সাধারণ সম্পাদক মোহসিন মিয়ার হস্তক্ষেপে শেষ পর্যন্ত নিবৃত্ত হতে হয় বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের।

 

প্রত্যক্ষদর্শী বেশ কয়েকজন আইনজীবী জানান, গতকাল বিকেলে  নারায়ণগঞ্জ জেলা জাতীয়তাবাদী  আইনজীবী ফোরামের নতুন সদস্য সংগ্রহের কার্যক্রমের ফরম বিতরণ নিয়ে লাঞ্ছিত করা হয় বিএনপি নেতা সাখাওয়াত হোসেনকে। এনিয়ে ক্ষুদ্ধ ছিলেন বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা। এড.বারী ভূঁইয়ার বাড়াবাড়ির কারণেই গতকাল ওই ঘটনা ঘটেছিলো বলে মত তাদের। আজ সকালে আদালতপাড়ায় এড.বারী ভূঁইয়াকে পেয়েই ক্ষুদ্ধ হন বিএনপি আইনজীবীরা। এসময় তাকেও লাঞ্ছিত করেন তারা। আইনজীবী সমিতির অনেক সিনিয়র আইনজীবীরা এসময় বারী ভূ্্ঁইয়াকে ছাড়ান। তা না হলে বারী ভূ্্ঁইয়াকে লাঞ্ছিত করার মাত্রাটা আরো দীর্ঘস্থায়ী হতো বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা। কিন্তু  এই হাতাহাতির রেশ কাটতে না কাটতেই এড.আব্দুল হামিদ খান ভাষানীকে পেয়ে তার উপর চড়াও হয় বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের একটি গ্রুপ। তখন তাকেও হেনস্থা করেন তারা। কাছাকাছিই ছিলেন এড.আনোয়ার প্রধান। তার উপর এড.ভাষানীর একটি গ্রুপ চড়াও হয়। কয়েকদফা হাতাহাতিতে পুরো আদালত পাড়ায় উত্তেজনা তৈরি হয়। 

 

বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা পরস্পর আক্রমনাত্মক ভূমিকায় রয়েছে জানতে পেরে ছুটে আসেন আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। তারা দুপক্ষকেই দ্রুত সরে যেতে বলেন। পরে তাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হয়। বিএনপি পন্থী আইনজীবীদের মধ্যে কয়েকদফা হাতাহাতির ঘটনায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের সংখ্যাও আদালতপাড়া এলাকায় বাড়ানো হয়।    

 

নারায়ণগঞ্জ জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি এড.সরকার হুমায়ূন কবির অভিযোগ করেন, গত কয়েকবছর যাবত এড.বারী ভূঁইয়া বিএনপির কোন কার্যক্রমে যুক্ত ছিলেননা। তিনিও সব জায়গায় তাই বলেন। কিন্তু যখনই জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সদস্য সংগ্রহ ফরম বিতরণ করা হচ্ছে তখন তিনি এগুলি নিজের কব্জায় নিতে মরিয়া। মাত্র ৪০০ ফরম দিয়েছে। সে এগুলোকে নিজের কব্জায় নিতে চায়। এড.সাখাওয়াত গতকাল একটি বই নেয়ায় তাকে তারা লাঞ্ছিত করেছে। এরমূলে ছিলো এড.বারী ভূঁইয়া। সে এই ফরম বিতরণ নিয়ে গোপনীয়তা করতে চায় আর তা না করতে পেরে বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের নিয়ে সিনক্রেট করছে।এতে আরো কয়েকজনও মদদ দিচ্ছে। আমরা কেন্দ্রে জানিয়েছি। 

 

প্রসঙ্গত, রোববার (৩ নভেম্বর) দুপুর আড়াইটার দিকে নারায়ণগঞ্জ আদালত পাড়ায় এড.আজিজুর রহমান মোল্লার চেম্বারের সামনে এড.সাখাওয়াত ও এড.বারী ভূইয়ার মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছেন এড.আব্দুল হামিদ খান ভাষানী। এসময় এড.সাখাওয়াতকে লাঞ্ছিত করা হয় বলে জানান বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা। এঘটনার পরে গতকালও পুরো আদালত পাড়ায় থমথমে অবস্থার সৃষ্টি হয়। আর  নিজ দলীয় আইনজীবীদের হাতে এড.সাখায়াতের লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনায় আদালত পাড়ায় সর্বস্তরের আইনজীবীদের মধ্যে ক্ষোভ তৈরি হয়। যার দরণ ফের এই ঘটনা ঘটেছে বলে মত বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের। 

এই বিভাগের আরো খবর