শনিবার   ০৪ এপ্রিল ২০২০   চৈত্র ২১ ১৪২৬   ১০ শা'বান ১৪৪১

আলীগঞ্জ ঘাটে ৭০ লাখ টাকার সার চুরি

প্রকাশিত: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : আলীগঞ্জ ঘাটে গত তিন মাসে বিভিন্ন জাহাজে করে আসা মোট ৭০ লাখ টাকা মূল্যের ৩৮৪ মেট্রিক টন সার চুরির ঘটনা ঘটেছে। জাহাজে কর্মরত সুপার ভাইজার, সুকানীসহ প্রভাবশালী একটি চক্র এই সার চুরির সাথে জড়িত বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় নোয়াপাড়া গ্রুপের  চিফ লিগ্যাল অফিসার আবু সাঈদ বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে।

 

প্রতিষ্ঠানের পণ্য খালাসের কাজে নিয়োজিত সুপার ভাইজার মুন্না সররকার, অডিট অফিসার সবুজ হোসেনসহ ৫টি জাহাজের সুকানী, মাস্টার, টালিম্যানের এ মামলায় আসমি করা হয়েছে। দায়েরের পর পুলিশ মামলায় অভিযুক্তদের গ্রেফতারে মাঠে নেমেছে বলে জানিয়েছে থানা সূত্র।

 

গত বছরের নভেম্বর থেকে চলতি বছরের জানুয়ারি পর্যন্ত আলীগঞ্জ ঘাটে এভি কিবলাতাইন-৮, এমভি, কিবলাতাইন-১৫, এমভি বাংলার মিলন, এমভি মুশফিক হাসান-১ ও এমভি স্টিফেন নামের জাহাজের করে মোট ৫ হাজার ৯৫১ টন সার আলীগঞ্জ ঘাটে খালাস হওয়ার কথা। কিন্তু সেখানে গত ৩ মাসে ৩৮৪.৫৫ মেট্রিক টন সার কম খালাস করা হয়। 

 

বিষয়টি নোয়াপাড়া গ্রুপ কর্তৃপক্ষের নজরে আসে। তারা দেখতে পায় আলীগঞ্জ ঘাটে মোট ৭০ লাখ টাকা মূল্যের সার চুরি হয়েছে। এরপরই পণ্য গ্রহণ ও খালাসের কাজে নিয়োজিত প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে নিয়োজিত সুপার ভাইজার মুন্্না সরকার এবং অডিট অফিসার সবুজ হোসেনকে তলব করে কর্তৃপক্ষ। মূলত এর পরেই থলের বিড়াল বেড়িয়ে আসে। কর্তৃপক্ষের কাছে মুন্না ও সবুজ স্বীকার করে, জাহাজের মাস্টার, ড্রাইভার, সুকানীসহ অন্যান্য শ্রমিকদের যোগসাজসে এবং আলীগঞ্জ ঘাটের প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় ঘাট থেকে ৩৮৪.৫৫ মেট্রিক টন সার চুরি হয়েছে। বিভিন্ন সময়ে চুরি করে তা অন্যত্র বিক্রি করে  দিয়েছে।

 

এ ব্যাপারে ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইন-চার্জ মো.আসলাম হোসেন বলেন, জাহাজ থেকে সার চুরির ঘটনায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

এই বিভাগের আরো খবর