বুধবার   ১৬ অক্টোবর ২০১৯   আশ্বিন ৩০ ১৪২৬   ১৬ সফর ১৪৪১

আবারো সন্ত্রাসী সেলিম মজুমদারের হামলার শিকার দুই ব্যবসায়ী (ভিডিও)

প্রকাশিত: ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯  


স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : দাবিকৃত চাঁদা না পেয়ে সিদ্ধিরগঞ্জের আদমজী ইপিজেডের দুই ব্যবসায়ীর উপর হামলা চালিয়েছে আদমজীর চিহ্নিত দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী সেলিম মজুমদার (৩৮)। দুই ব্যবসায়িকে এলোপাথারী মারধর করে রক্তাক্ত জখম করেছে সেলিম বাহিনী। এবং শ্রমিকদের সরবরাহকৃত খাবার ছিনতাই করে নিয়ে যায়। 

 

আহত ব্যবসায়িরা হলো মাসুদ ও ইফতেখার আলম রাজু (৩৫)। তারা আদমজী ইপিজেডের ভেতর রেমি হোল্ডিং গার্মেন্টেসের খাবার সরবরাহকারী। এবং গোদনাইল বার্মাইষ্টানের হাজী ইয়াকুবের ছেলে।

 

শনিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) দুপুর ১ টায় আদমজী ইপিজেডের পাশে কদমতলী পুল এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে। ব্যবসায়ীদের উপর সন্ত্রাসীদের হামলার ঘটনায় আদমজী ইপিজেডের সাধারণ ঠিকদার ও ইপিজেডের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মালিকদের (বিনিয়োগকারী) মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে।
 

 

এ ঘটনায় আহত ব্যবসায়ি ইফতেখার আলম রাজু বাদী হয়ে সেলিম মজুমদারকে প্রধান আসামীকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। সন্ত্রাসী সেলিম মজুমদার নতুনবাজার এলাকার মোহাম্মদ আলীর ছেলে। তার বিরুদ্ধে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ছবি বিকৃতি, বিএনপির নাশকতার মামলসহ একাধিক মামলা রয়েছে। চাঁদাবাজি, বাটপারি, জবরদখল, প্রতারণা তার পেশা।


 
এরআগে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা না পেয়ে ২৬ আগস্ট দুপুরে কদমতলী পুল এলাকায় ইফতেখার আলী রাজুকে  মারধর করে আদমজী ইপিজেডের একটি ফ্যাক্টরীর ৩০০ শ্রমিকের খাবার ছিনতাই করে নিয়ে যায় সন্ত্রাসী সেলিম মজুমদার। ২৪ আগষ্ট রাজুকে চাঁদার দাবীতে হুমকি দেয়ায় ২৫ আগষ্ট সেলিম মজুমদারসহ তার অজ্ঞাত ৪/৫ সহযোগীর বিরুদ্ধে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগও দায়ের করেছিল রাজু।

 

কিন্তু থানা পুলিশ অভিযোগটি গুরুত্ব না দেয়ায় এই সুযোগে ক্ষিপ্ত হয়ে সেলিম মজুমদার রাজুর উপর হামলা চালায়। এবং নতুন করে শনিবার দুপুরে আবারো রাজু ও তার ভাই মাসুদের উপর হামলা চালিয়েছে সেলিম মজুমদার বাহিনী। তার সাথে যোগ দিয়েছে এবার সিরাজমন্ডলের ক্যাডার বাহিনী।

 

শনিবার দুপুরে হামলায় আহত ব্যবসায়ি থানায় লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেন, তিনি আদমজী ইপিজেডের ভেতর রেমি হোল্ডিং ফ্যাক্টরীতে (ইপিজেড) খাবার সরবারাহ করে আসছেন। তার ট্রেড লাইসেন্সের নাম মেসার্স শেখ আলী এন্টারপ্রাইজ। 

 

কিন্তু আসামী সেলিম মজুমদার (৩৮) পিতা মো. আলী সাং- নতুন বাজার (আদমজী) থানা সিদ্ধিরগঞ্জ সহ অজ্ঞাতনামা ৪-৫ জন আমার খাবার সরবরাহ করার সময় কর্মীদের মারধর করে ও অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে এবং খাবার সরবরাহ করতে নিষেধ করে। 

 

অত্র এলাকার বেশ কিছুদিন ধরে সে তার কিছু সাঙ্গ পাঙ্গ নিয়ে এলাকায় দাপটের সাথে চাঁদাবাজি এবং মাস্তানি করে। কেউ তার ভয়ে তার সাথে ঝামেলা করে না। কিছুদিন পূর্বে আমার থেকে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে।

 

আমি তাকে চাঁদা দিতে অস্বীকার করেলে ২৫ আগষ্ট ১২ টায় আমার খাবার গাড়ি ইপিজেড গেইটের সামনে (আদমজী) ১নং বিবাদী তার সাথে থাকা অজ্ঞাত ১০-১২ জন সন্ত্রাসী লাঠিসোটা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমাদের দিকে তেড়ে আসে। 

 

আমাদের চিৎকারে আশেপাশের লোক আসলে খাবার ছিনতাই করে চলে যায়। যাওয়ার সময় আমাকে বলে তুই আর খাবার সরবরাহ করিস তাহলে তোকে জানে মেরে ফেলব। উক্ত বিবাদীর হুমকিতে আমিসহ আমার পরিবার আতঙ্কে জীবন-যাপন করছি। কারণ বিবাদী সেলিম মজুমদার পূর্ব থেকেই সন্ত্রাসী।

 

 তার নামে রাষ্ট্রদ্রোহী মামলা, চাঁদাবাজি মামলাসহ অন্যান্য মামলা রয়েছে। উক্ত বিষয়টি এলাকার গন্যমান্য মানুষ ও আমার আত্বীয় স্বজনের সাথে আলাপ করে আপনার কার্যালয়ে অভিযোগ করতে বিলম্ব হইলো।


 
এদিকে সেলিম বাহিনীর অত্যচারের অতিষ্ঠ ইপিজেডের সাধারণ ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসী ক্ষোভ প্রকাশ বরে বলেন পল্টিবাজ এই সেলিম মজুমদার বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত এবং বিএনপি’র সহযোগী সংগঠন সিদ্ধিরগঞ্জ থানা স্বেচ্চাসেবক দলো যুগ্ন আহবায়ক হয়েও সরকার সমর্থিত লোকজনদের উপর একের পর এক হামলা করার সাহস পায় কোথায়? 

 

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ছবি বিকৃতি করে কারাগারে গিয়েছিল সেলিম মজুমদার। জামিনে  বেরিয়ে আওয়ামীলীগের একটি অংশের সাথে মিশে ফের অপকর্ম করে বেড়াচ্ছে সে। কখনো সে ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মতির সাথে আবার কখনো একই ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর সিরাজ মন্ডলের সাথে মিশে যায়। 

 

বতর্মানে সিরাজ মন্ডলের সাথে মিশে মতির লোকজনের উপর হামলা করে সিরাজ মন্ডলের বিশ্বাস অর্জন করছে। সিরাজ মন্ডলের শেল্টারের বেপরোয়া হয়ে উঠেছে দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী সেলিম মজুমদার। 
 

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ আজিজুল হক জানায়, ব্যবসায়ীদেরকে মারধরের ঘটনায় মামলা নেওয়া হচ্ছে। 
 

এই বিভাগের আরো খবর