তাদের হারের কারণ জানালেন পাপন

প্রকাশিত: ২০:০৪, ৭ অক্টোবর ২০২১

তাদের হারের কারণ জানালেন পাপন

শেষ হয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পরিচালনা পর্ষদ নির্বাচন। তাতে আগের পরিচালনা পর্ষদ থেকেই বেশিরভাগ নির্বাচিত হয়েছেন। ১৯ জন পুনরায় ও নতুন মুখ এসেছেন ৬জন। তবে আলোচিত দুই প্রার্থী খালেদ মাসুদ পাইলট ও নাজমুল আবেদীন ফাহিম নির্বাচিত হতে পারেননি। পাইলটের হেরে যাওয়ার কারণ হিসেবে নির্বাচনের পূর্ব প্রস্তুতির অভাবকে দায়ী করলেন নাজমুল হাসান পাপন। অন্যদিকে নাজমুল আবেদীনের হেরে যাওয়ার পেছনে ভুল পজিশন ও খালেদ মাহমুদের জনপ্রিয়তাকেই সামনে আনলেন বিসিবি সভাপতি।

নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার জন্য মনোনয়নপত্র কিনতে হয়। সেই মনোনয়পত্রে একজন প্রস্তাবকসহ দুইজন সমর্থকের স্বাক্ষর প্রয়োজন পড়ে। সবমিলিয়ে তিনজন। কিন্তু নিজের ভোটসহ খালেদ মাসুদ পেয়েছেন দুই ভোট। মোট ভোটার ছিল ৯জন! ফলে ৭-২ ভোটে এগিয়ে থেকে জয় পেয়েছেন প্রতিদ্বন্দ্বী সাইফুল আলম স্বপন চৌধুরী।


নির্বাচনে পাইলটের ভরাডুবির কারণ হিসেব নাজমুল হাসান বলেছেন, ‘নির্বাচন বিপরীত জিনিস। আমি যত পরিচিতই হই না কেন, নির্বাচনে কাউন্সিলররা কী করবে সেটা কিন্তু বলা যায় না। পাইলটের তো কমপক্ষে তিনটি ভোট পাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু পেয়েছে দুইটা ভোট। সুতরাং বুঝতেই পারছেন, আমার ধারণা ও হোমওয়ার্ক ছাড়া নেমেছে।’

এদিকে পরিচালনা পর্ষদের নির্বাচনে ক্যাটাগরি-৩ (পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, সাবেক ক্রিকেটার, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান) থেকে একটি পদের জন্য লড়াই করেছেন নাজমুল আবেদীন ফাহিম। কিন্তু আগের মেয়াদের পরিচালক খালেদ মাহমুদের কাছে বড় ব্যবধানে পরাজিত হয়েছেন তিনি। সাবেক এই অধিনায়ক পেয়েছেন ৩৭ ভোট, আর বিসিবির সাবেক গেম ডেভেলপমেন্টের ম্যানেজার ফাহিম পেয়েছেন মাত্র ৩ ভোট। 

খালেদ মাহমুদের জনপ্রিয়তার কারণেই ফাহিমের এমন ভরাডুবি বলে মনে করেন নাজমুল, ‘আমার মনে হয় কাউন্সিলরদের কাছে যাওয়ারও সময় পাননি ফাহিম ভাই। কখন করবেন ওখানে তো অনেকগুলো ভোট। আর তার প্রতিদ্বন্দ্বীকে হালকা মনে করার কারণও নেই। আমার তো মনে হয় সে আমার চেয়েও জনিপ্রয়, বুঝতে হবে। মানে ফাহিম ভাই ভুল জায়গায় দাঁড়িয়ে গেছেন। হঠাৎ করে দাঁড়ানোটা ভুল, পরিকল্পনা করে দাঁড়ালে এমন ফল হতো না।’