এক-দুইবার নয়, চারবার একই ‘কাণ্ড’

প্রকাশিত: ১০:৫০, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

এক-দুইবার নয়, চারবার একই ‘কাণ্ড’

ক্যারিয়ারের প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমেই আলোচনার জন্ম দিলেন ক্যামেরুনের নারী ক্রিকেটার মাইভা দুমা। দারুণ কোনও পারফরম্যান্স করে নয়, ১৬ বছরের তরুণীর আলোচনায় আসা ‘মানকড়’ আউটে চার ব্যাটারকে প্যাভিলিয়নের পথ দেখিয়ে। রবিবার আইসিসি উইমেন্স টি-টোয়েন্টি আফ্রিকা অঞ্চলের বাছাই পর্বে উগান্ডার বিপক্ষে এই ‘কাণ্ড’ ঘটিয়েছেন দুমা। এক ম্যাচে চারজনকে এভাবে আউট করার ইতিহাস আর নেই। মানকড় আউট নিয়ে বিতর্কের শেষ নেই। এর আগেও অনেক বোলার এমন কাণ্ড ঘটিয়ে সমালোচিত হয়েছিলেন। তবে ম্যাচে ‘মানকড়’ হয়তো এক-দুইবারই ঘটেছে। কিন্তু দুমা যেটি করলেন, সেটি বিস্ময় জাগানিয়া বটে! ১৬ বছর বয়সী এই তরুণী এক ম্যাচেই চার ব্যাটারকে ‘মানকড়’ আউটে ফিরিয়ে আলোচনায়। অথচ বোলিংয়ে আহামরি কোনও পারফরম্যান্স নয়। ৪ ওভারে ৩২ রান দিয়ে পেয়েছেন মাত্র ১ উইকেট। বলার মতো পারফরম্যান্স নয় মোটেও। তারপরও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আলোচনায় চলে এসেছেন ক্যামেরুনের এই ক্রিকেটার। প্রশ্ন আসতে পারে ‘মানকড়’ আউট কী? বোলাররা বল করতে এসে বল না ছুঁড়ে নন স্ট্রাইকিং প্রান্তের ব্যাটসম্যানকে রান আউট করার ‘অদ্ভূত নিয়ম’কে ‘মানকড়’ আউট বলা হয়। ১৯৪৭ সালের ডিসেম্বরে অস্ট্রেলিয়া সফরে গিয়ে ভারতের ভিনু মানকড় দুবার অস্ট্রেলিয়ার বিল ব্রাউনকে এভাবে আউট করেছিলেন। ফলে তার নামেই এই আউটের নামকরণ করা হয়। ক্রিকেটের আইনে এটি আউট। তবে এ ধরনের আউট ক্রিকেটীয় খেলোয়াড়সুলভ চেতনার সঙ্গে যায় কিনা তা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। তবে তারপরও টেস্ট এবং সীমিত ওভারের খেলা মিলে একাধিকবার এমন ঘটনা ঘটেছে। এই বিতর্কিত সুবিধা নিয়েছেন কপিল দেব, গ্রেগ চ্যাপেলের মতো খেলোয়াড়েরা।তবে ব্যতিক্রমও আছে। অনেকেই আছেন সুযোগ পেয়েও প্রতিপক্ষকে মানকড় আউটের ফাঁদে না ফেলে উদারতা দেখিয়েছেন। এমন উদারদের মধ্যে আছেন বাংলাদেশের মোহাম্মদ রফিকও।