সোমবার   ০৪ মার্চ ২০২৪   ফাল্গুন ২১ ১৪৩০

ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সা বন্ধে কঠোর পদক্ষেপে মেয়র ও কাউন্সিলররা : প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল

প্রকাশিত: ১৬ মে ২০১৭   আপডেট: ১৬ মে ২০১৭

যুগের চিন্তা ২৪ ডটকম (সিদ্ধিরগঞ্জ) : সিটি মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর নির্দেশনায় সিদ্ধিরগঞ্জের ১০টি ওয়ার্ডের সকল কাউন্সিলরদের সম্মিলিত সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে ব্যাটারী চালিত অবৈধ অটো রিক্সা বন্ধে মাঠে নেমেছে কাউন্সিলররা। তারই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার (১৬ মে) দুপুর সাড়ে ১২টায় নাসিক ৮নং ওয়ার্ডের ২নং ঢাকেশ্বরী বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লা লোকজন নিয়ে ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সা চালকদেরকে রাস্তায় চলতে বাঁধা প্রদান করেন। এসময় পায়ে চালিত রিক্সা চালকদের সাথে ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সা চালকদের বাধানুবাধ হয়। পরে অটোরিক্স্রা মালিকÑশ্রমিক নেতারা এর প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিলে  ও সমাবেশ  করে। সমাবেশে ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সা মালিকরা সংগঠনের জেলার যুগ্ন আহবায়ক আব্দুল আজিজুল হক বলেন, গরীবের পেটে লাতি মারবেনা, গরীবরা চোরী করেনা।ব্যাংকের টাকা লটু করেনা। তারা মাথার গাম পায়ে ফেলে টাকা উপারজন করে সংসার চালায়। তাই সিটি কর্পোরেশনের মেয়রের ও স্থানীয় কাউন্সিলরদের প্রতি আহবান অন্যায় ভাবে অটোরিক্সা বন্ধ করবেনা। আর যদি বন্ধ করার পায়তারা করেন, সিদ্ধিরগঞ্জে ২৬টি শ্রমিক সংগঠন নিয়ে আন্দোলন করা হবে। এসময় সিটি কর্পোরেশনেরবিরুদ্ধে বিভিন্ন স্লোগান দেয় শ্রমিকরা। পরে ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সা মালিক ও শ্রমিকরা ২নং ঢাকেরশ্বরী বাসষ্ট্যান্ড  থেকে চৌধুরীবাড়ি পর্যন্ত একটি বিক্ষোভ মিছিল করেন। এ বিষয়ে ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লা জানান, গত ২৩ এপ্রিল রবিবার রাতে নাসিক ২নং ওয়ার্ডের সানারপাড়ে ফাইভওয়ে চাইনিজ রেষ্টুরেন্টে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের সিদ্ধিরগঞ্জ অঞ্চলের সকল কাউন্সিলরদের উপস্থিতিতে ব্যাটারী চালিত রিক্সা বন্ধ ও যানজট নিরসনে অটোবাইক নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। ১ মে থেকে ১৫ মে‘র মধ্যে সকল ব্যাটারী চালিত রিক্সার ব্যাটারী খুলে ফেলার সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়। এ লক্ষ্যে গত ৩০ এপ্রিল সিদ্ধিরগঞ্জের ১০টি ওয়ার্ডে মাইকিং করে ব্যাটারী চালিত রিক্সা মালিকদেরকে অবহিত করা হয়। তারই প্রেক্ষিতে ব্যাটারী চালিত রিক্সা মালিকদেরকে বেধে দেয়া নির্ধারিত সময় শেষে আমি মাঠে নেমেছি। পাশাপাশি প্রত্যেকটি ওয়ার্ড কাউন্সিলরগন তাদের এলাকায় এ কার্যক্রম বাস্তবায়নে কাজ করবে। তিনি আরো জানায়, সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে প্রতি বছর পায়ে চালিত রিক্সা চালকরা অন্তত ১ কোটি টাকা রাজস্ব দিয়ে আসলেও ব্যাটারী চালিত রিক্সা রাজস্ব এবং বিদ্যুৎ অপচয় করে সরকারের ব্যাপক ক্ষতি সাধন করছে। এছাড়াও পায়ে চালিত রিক্সা চালকরা ব্যাটারী চালিত রিক্সা বন্ধে সম্প্রতি সিটি কর্পোরেশন বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে।  এ বিষয়ে নগর ভবনে মাসিক সভায় তারা প্লেট নবায়ন না করারও অস্বীকৃতি জানায়। এতে সিটি কর্পোরেশন বিপুল পরিমান রাজস্ব বঞ্চিতের মুখে পরবে। এ ব্যাপারে মেয়র ডা. সেলিনা হয়াৎ আইভী বলেন, বিষয়টি তদারকিতে কাউন্সিলররা রয়েছে। আশা করি অবৈধ ব্যটারী চালিত রিক্সা যেগুলো সরকারের রাজস্ব ফাকি দিয়ে য়াচ্ছে সেগুলোর ব্যপাওে কাউন্সিলররা  একটি যথাপযগি ব্যবস্থা গ্রহন করবেন। ২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইকবাল হোসেন বলেন, সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে যারা অবৈধ ভাবে ব্যবসা পরিচালনা করেন তাদের বিরুদ্ধে আমরা আরো কঠোর থেকে কঠোর হবো। নাসিকের ৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শাহজালাল বাদল সকল কাউন্সিলরদের সাথে ঐক্যমত পোষন করে বলেন, সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিবে এমন কাউকে আমরা ছাড় দিবো না। ব্যাটারী বাদ দিয়ে পায়ের রিক্সা চালালে বছরে সিটি কর্পোরেশনে কয়েক লক্ষ টাকা রাজস্ব পায়। তাই আমার এলাকায় আমি মাইকিং করে অবৈধ ব্যবসায়ীদের সতর্ক করেছি আর সময় বেধে দিয়েছি। তারা যদি সতর্ক না হয় আমি কঠোর হতে বাধ্য হব। নাসিকের ৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আরিফুল হক হাসান সাংবাদিকদের বলেন, সকলে মিলে অবৈধ ব্যটারী চালিত রিক্সা বন্ধে সহযোগীতা করলে অব্যশই সম্ভব। আমি আমার এলাকায় কোন ধরনরে অবৈধ ব্যাটারী চালিত রিক্সা মাঠে নামতে দিবো না। নাসিক ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলহাজ্ব মতিউর রহমান মতি বলেন, সকল কাউন্সিলরদের সাথে ঐক্যমতের ভিত্তিতে রাজস্ব ফাঁকিবাজ ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সা বন্ধে একসাথে কাজ করবো।
এই বিভাগের আরো খবর