বুধবার   ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ২ ১৪২৬   ১৮ মুহররম ১৪৪১

আজমেরী ওসমানের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা 

যুগের চিন্তা

প্রকাশিত : ০৪:০০ পিএম, ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ শুক্রবার

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : নারায়ণগঞ্জ-৫ (সদর-বন্দর) আসেনের জাতীয় পার্টির প্রয়াত সাংসদ একেএম নাসিম ওসমানের ছেলে আজমেরী ওসমানের বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করা হয়েছে।


বৃহস্পতিবার (৫ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাতে শহরের আমলাপাড়ার বাসিন্দা মৃত হাজী আহসান উল্লাহ’র ছেলে বাচ্চু মিয়া বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন।


মামলায় এজাহারনামীয় এক নম্বর আসামি করা হয়েছে আজমেরী ওসমানকে। অন্য আসামিরা হলো- জেলা ছাত্রসমাজের আহ্বায়ক ও ফতুল্লার ইসদাইর এলাকায় মো. ফকির চানের ছেলে শাহাদাৎ হোসেন রুপু (৩২), সোনারগাঁয়ের নাজিরপুর এলাকার গোলজার হোসেনের ছেলে ও শহরের গলাচিপা ডিএন রোডের বাসিন্দা মোখলেছুর রহমান (৩৫) এবং জুয়েল।

 

মামলায় শাহাদাৎ হোসেন রুপু ও মোখলেসুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হলেও আজমেরী ওসমান ও জুয়েল পলাতক রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।


মামলার অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, বৃহস্পতিবার রাত ৮টায় একটি নম্বর থেকে কল করে আজমেরী ওসমানের পরিচয় দিয়ে মামলার বাদী বাচ্চু মিয়ার কাছে ৬৫ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদার টাকা আনার জন্য মোখলেসুর রহমান কালিমন্দিরের সামনে বাচ্চু মিয়ার সাথে দেখা করে। পরে আজমেরী ওসমান তাকে ডাকছে বলে মোখলেছুর রহমানসহ অজ্ঞাতনামা ৭/৮ জন জোর করে টেনে-হিচড়ে তাকে কালিরবাজারের মাংস পট্টির আফসু মহাজনের হোটেলের সামনে নিয়ে এলোপাথাড়ি মারধর করে। মারধরের পর চাঁদার টাকা না দিলে বাচ্চু মিয়াকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে তারা চলে যায়।


এদিকে এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সাড়ে  ১২টায় শহরের আল্লামা ইকবাল রোডের আজমেরী ওসমানের বাসা ও অফিস দেওয়ান মঞ্জিলে অভিযান চালায় জেলা গোয়েন্দা (ডিবি), ফতুল্লা মডেল থানা ও সদর মডেল থানার পুলিশের সদস্যরা। সেখানে আজমেরী ওসমানকে পাওয়া না গেলেও এজাহারনামীয় দুই আসামিকে গ্রেপ্তাতার করে পুলিশ।


বিষয়টি নিশ্চিত করে জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার কর্মকর্তা (ডিআইও-২) সাজ্জাদ রোমন জানান, মারধর ও চাঁদাবাজির অভিযোগে করা একটি মামলার আসামিদের গ্রেপ্তারের উদ্দেশ্যে আজমেরী ওসমানের বাসায় অভিযান চালানো হয়েছিল।