দলের সাংগঠনিক কাজ গুছিয়ে নির্বাচনের প্রস্তুতি নেওয়ার আহবান- বি এন পি

প্রকাশিত: ১৩:০৪, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১

আপডেট: ১৩:৪৩, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১

দলের সাংগঠনিক কাজ গুছিয়ে নির্বাচনের প্রস্তুতি নেওয়ার আহবান- বি এন পি

দলের সাংগঠনিক কাজ দ্রুত গুছিয়ে নির্বাচনের বিষয়ে এগিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিএনপির মধ্যম সারির নেতারা। দলের শীর্ষনেতাদের সঙ্গে ধারাবাহিক বৈঠকের দ্বিতীয় দিনে প্রায় সবাই মন খুলে কথা বলেছেন। তাদের পরামর্শ- দল গোছানোর ক্ষেত্রে জনসম্পৃক্ত নেতাদের যুক্ত করা গেলে রাজনৈতিকভাবে উপকৃত হবে বিএনপি। বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) বিকাল সোয়া ৪টা থেকে শুরু হয়ে বৈঠক এদিন রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত অব্যাহত ছিল। এর আগে মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) ভাইস চেয়ারম্যান ও উপদেষ্টাদের পর বুধবার মহাসচিব, যুগ্ম মহাসচিব, সাংগঠনিক ও সম্পাদকমন্ডলীর অন্তত ৬০-৬২ জন নেতা বক্তব্য রাখেন। প্রায় প্রত্যেকেই বক্তব্যে দলের শীর্ষ নেতৃত্বের মনখোলা প্রশংসা করেন। প্রথম দিনের মতো এদিনও দলের প্রয়াত নেতাদের স্মরণে মোনাজাতের মধ্য দিয়ে বৈঠক শুরু হয়। দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্ত সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্সের সঞ্চালনায় উদ্বোধনী বক্তব্য দেন মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি সবাইকে সংক্ষিপ্ত, টু দ্য পয়েন্টে আলোচনা করার অনুরোধ করেন। বৈঠক থেকে বেরিয়ে দলের একাধিক সাংগঠনিক সম্পাদক এ প্রতিবেদককে জানান, নেতারা দল গোছানো, দ্রুততম সময়ে সংগঠনের কাজ শেষ করা, নির্বাচনের প্রস্তুতি নেওয়া, খালেদা জিয়ার মুক্তি, বর্তমান সরকারের অধীনে নির্বাচনে না যাওয়ার পক্ষে মত দিয়ে বক্তব্য রাখেন।প্রথমদিনের মতো বুধবারও নেতাদের শীর্ষপর্যায় থেকে গণমাধ্যমে কথা না বলার অনুরোধ করা হয়। এ কারণে বেশ কয়েকজন নেতার কাছে এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তারা স্বপরিচয়ে উদ্ধৃত হতে অনিচ্ছা প্রকাশ করেন। বৈঠকসূত্র জানায়, বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদকদের প্রায় প্রত্যেকেই চলতি বছরের মধ্যে দলের সকল সাংগঠনিক কাজ গোছানোর ওপর জোর দেন। একাধিক নেতা জানান, সাংগঠনিক কাজে জনসম্পৃক্ত নেতাদের সামনে আনার পরামর্শ দিয়েছেন কেউ-কেউ। জানতে চাইলে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ বলেন, ‘নির্বাহী কমিটির নেতাদের সঙ্গে বৈঠক ছিলো। রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন সবাই।’ দলের সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য মাসুদ আহমেদ তালুকদার বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘রাজনৈতিক দল, রাজনৈতিক বিষয়, সংগঠন নিয়ে আলোচনা হয়েছে।’ বৈঠকে অংশ নেওয়া আরেকজন জানান, নেতারা বিএনপির ঘরবন্দি অনুষ্ঠান থেকে বেরোনোর পরামর্শ দিয়েছেন। একইসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে খালেদা জিয়ার মুক্তির আবদার করার বিষয়টিও ‘হাস্যকর’ বলে আলোচনায় উল্লেখ করেন কোনও-কোনও নেতা। কেউ-কেউ নেতাদের কাছে জানতে চেয়েছেন- বিএনপির এই দুরাবস্থা কেন? বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) রাত ১২টার কিছু সময় আগে কার্যালয় থেকে বেরিয়ে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অপেক্ষমাণ সাংবাদিকদের সামনে বলেন, ‘প্রায় সাড়ে সাত ঘণ্টা আলোচনা হয়েছে। ১২২ জন উপস্থিত ছিলেন। ধারাবাহিকভাবে সাংগঠনিক কার্যক্রমের অংশ হিসেবে গতকাল ভাইস চেয়ারম্যান ও উপদেষ্টাদের সঙ্গে মতবিনিময় হয়েছে। আগামীকাল আরও একটি সভা হবে। এরপর আরও সভা হতে পারে। পরের শনিবার সিদ্ধান্ত হবে। এরপর বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের সঙ্গে আলোচনা করবো।’ মির্জা ফখরুল বলেন, ‘বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি ও সাংগঠনিক বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। মিডিয়ার কেউ কেউ তারেক রহমানের বিষয়ে বানোয়াট প্রচারণা চালিয়েছে। আমরা তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’