ডিসেম্বর-জানুয়ারির মধ্যেই ড্যাপ চূড়ান্ত করা হবে’

প্রকাশিত: ১৮:৩৬, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

ডিসেম্বর-জানুয়ারির মধ্যেই ড্যাপ চূড়ান্ত করা হবে’

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছেন, আগামী ডিসেম্বর বা জানুয়ারির মধ্যে ডিটেইল্ড এরিয়া প্ল্যান-ড্যাপ চূড়ান্ত করে গেজেট আকারে প্রকাশ করা হবে।বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) স্থানীয় সরকার বিভাগের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত ডিটেইল্ড এরিয়া প্ল্যান-ড্যাপ’র উল্লেখিত ভূমি ব্যবহারের শ্রেণী পরিবর্তন সংক্রান্ত আবেদনসমূহ যাচাই বাছাই পূর্বক মন্ত্রী সভা কমিটির নিকট সুপারিশ প্রণয়নের লক্ষে গঠিত কারিগরি কমিটির সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। স্থানীয় সরকার মন্ত্রী ও ড্যাপ বাস্তবায়ন রিভিউ কমিটির আহ্বায়ক জানান, ‘ড্যাপ চূড়ান্ত করার লক্ষে ইতোমধ্যে সকল পক্ষের সঙ্গে যেমন নগর পরিকল্পনাবিদ, স্থাপত্যবিদ, রিহ্যাব, বিএলডিএসহ বিভিন্ন স্টেকহোল্ডার এবং ড্যাপ সংশ্লিষ্ট সকলের সঙ্গে সভা করে তাদের মতামত ও পরামর্শ নেওয়া হয়েছে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী ডিসেম্বর অথবা জানুয়ারির মধ্যেই ড্যাপ চূড়ান্ত করে গেজেট আকারে প্রকাশ করা হবে।’ ড্যাপের আহ্বায়ক হওয়ার পর একটি মন্ত্রিসভা কমিটির সভা আয়োজন করা হয়েছিল এবং অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে উল্লেখ করে মো. তাজুল ইসলাম বলেন, করোনার মহাসংকটের কারণে ইচ্ছা থাকলেও আর মন্ত্রিসভার আয়োজন করতে না পারলেও বিভিন্ন সময় বিভিন্নভাবে ছোট করে অনেক সভা করেছি। এখন করোনা পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হওয়ায় আমরা আবার কাজ শুরু করেছি। ড্যাপকে চূড়ান্ত করে গেজেট প্রকাশ করার জন্য প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে। আমরা দ্রুত শেষ করতে চাই। ডিসেম্বর অথবা জানুয়ারির মধ্যেই শেষ করার জন্য কাজ করছি। দ্রুত শেষ করার জন্য সকলে পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। মন্ত্রী বলেন, ঢাকা শহরে কোটিরও বেশি মানুষ বসবাস করে। এই শহরের সঠিক পরিকল্পনা ছাড়া এবং বিধি-বহির্ভূতভাবে অনেক অবকাঠামো নির্মাণ হয়েছে যা রাজধানীর সৌন্দর্য মলিন করে দিয়েছে। এ প্রসঙ্গে মন্ত্রী আরও বলেন, এই শহরে নকশা অনুযায়ী ভবন নির্মাণ হয় না। আবার সরকারি খাল-বিল দখল করে বড় বড় বিল্ডিং নির্মাণ করা হয়। কোনও অবস্থাতেই এসব আর করতে দেওয়া যাবে না। নকশা এবং বিল্ডিং কোড মেনে ভবন নির্মাণ করতে হবে। ভবন নির্মাণে প্রকৌশলীসহ সংশ্লিষ্টদের সবচেয়ে বেশি সচেতন হয়ে ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান তিনি। তিনি বলেন, ঢাকাকে আধুনিক, দৃষ্টিনন্দন ও বসবাসের উপযোগী করে গড়ে তোলার জন্য যে সমস্ত বিষয়গুলো আমলে নেওয়া দরকার তা পর্যালোচনা করে ড্যাপে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এটি চূড়ান্ত করার পর বাস্তবায়িত হলে ঢাকার অনেক পরিবর্তন আসবে। সভায় গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শহীদ উল্লা খন্দকার, ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাকসিম এ খান এবং ড্যাপের প্রকল্প পরিচালক আশরাফুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।