স্ত্রীসহ নাসিক কাউন্সিলর মতির বিরুদ্ধে দুদকের চার্জশিট

নিজস্ব সংবাদদাতা

প্রকাশিত: ১২:৪০, ২৩ ডিসেম্বর ২০২২

স্ত্রীসহ নাসিক কাউন্সিলর মতির বিরুদ্ধে দুদকের চার্জশিট

সিদ্ধিরগঞ্জে একাধিক হত্যা, দাঙ্গা, অস্ত্র, ডাকাতিসহ ২২ মামলা ও এক সময়ের ইন্টারপুলের আসামী দূর্ধষ সন্ত্রাসী নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর মতিউর রহমান মতি ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রায় সাড়ে ২৩ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ ও সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে চার্জশিট দাখিল করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

বৃহস্পতিবার (২২ ডিসেম্বর) আদালতে তাদের বিরুদ্ধে পৃথক চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দুদক সচিব মো. মাহবুব হোসেন।

দুদক সচিব বলেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ০৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মতিউর রহমান ও তার স্ত্রী রোকেয়া রহমানের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে।

তদন্ত প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়, ওয়ার্ড কাউন্সিলর মতিউর রহমানের (মতি) বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধান করার পর সম্পদ বিবরণীর নোটিশ জারি করলে ২০২১ সালের ৭ সেপ্টেম্বর সম্পদ বিবরণী দাখিল করেন। তার দাখিল করা সম্পদ বিবরণী অনুযায়ী, স্থাবর সম্পদের মূল্য ৫ কোটি ৬৫ লাখ ১ হাজার ২২৪ টাকা ও অস্থাবর সম্পদ ৩ কোটি ৯৭ লাখ ৪০ হাজার ৮০৩ টাকাসহ মোট ৯ কোটি ৬২ লাখ ৪২ হাজার ২৭ টাকার স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদ এর ঘোষণা দেন। কিন্তু তদন্তকালে স্থাবর-অস্থাবর মিলিয়ে ১৫ কোটি ৩৩ লাখ ৮ হাজার ৮৬ টাকার সম্পদ অর্জনের তথ্য পাওয়া যায়। যার মধ্যে গোপন করা সম্পদের পরিমাণ ৬ কোটি ৬২ লাখ ৮২ হাজার ৭৫৩ টাকা। এছাড়া মতিউর রহমানের বিভিন্ন ব্যাংকে ৭৪ কোটি ৯৬ লাখ ৪০ হাজার ১১৪ টাকা জমা ও উত্তোলন করার তথ্য পাওয়া গেছে তদন্তে।

অন্যদিকে কাউন্সিলর মতিউর রহমানের (মতি) স্ত্রী রোকেয়া রহমানের বিরুদ্ধে ৮ কোটি ১৪ লাখ ৮৫ হাজার ৯১৯ টাকার অভিযোগ আনা হয়েছে দাখিল করা চার্জশিটে। এর মধ্যে গোপন করা সম্পদের পরিমাণ ২ কোটি ৪২ লাখ ৫৯ হাজার ৩৩২ টাকা। এছাড়া তদন্তকালে বিভিন্ন ব্যাংকে বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় ১ কোটি ৭৬ লাখ ১৬ হাজার ৯৪ টাকা জমা ও উত্তোলনের তথ্য পাওয়া গেছে।

আসামিদের বিরুদ্ধে দুদক আইন ২০০৪ এর ২৬ (২) ও ২৭(১) ধারায় এবং মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন, ২০১২ এর ৪(২) ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে।

এদিকে মতির বিরুদ্ধে দুদকের মামলার চার্জশিটের খবর ছড়িয়ে পড়লে ৬নং ওয়ার্ডজুড়ে স্বস্তির বাতাস বইছে। অনেকেই বলছেন মতি ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে আরও তদন্ত করলে আরো অনেক সম্পদের তথ্য বেরিয়ে আসবে।