আবারও শীর্ষ করদাতার স্বীকৃতি পেলো বিএটি বাংলাদেশ

প্রকাশিত: ১৯:৫০, ১৩ ডিসেম্বর ২০২১

আবারও শীর্ষ করদাতার স্বীকৃতি পেলো বিএটি বাংলাদেশ

২০২০-২০২১ অর্থবছরে শীর্ষ করদাতা হিসেবে ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো (বিএটি) বাংলাদেশকে সম্মাননা দিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড-এনবিআরের বৃহৎ করদাতা ইউনিট। সর্বোচ্চ কর প্রদানে অবদান রাখায় বিএটিকে এই পুরস্কারে ভূষিত করা হয়েছে। রবিবার (১২ ডিসেম্বর) ঢাকা রিজেন্সি হোটেলে এ উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বিএটি বাংলাদেশ এই সম্মাননা গ্রহণ করে। বৃহৎ করদাতা ইউনিট-মূসকের কমিশনার ওয়াহিদা রহমান চৌধুরী এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে শীর্ষ করদাতাদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। বিএটি বাংলাদেশের পক্ষ থেকে ব্যবস্থাপনা পরিচালক শেহ্‌জাদ মুনীম ও হেড অব এক্সটার্নাল অ্যাফেয়ার্স শেখ শাবাব আহমেদ এই সম্মাননা গ্রহণ করেন। গত  অর্থবছরে (২০২০-২১) বিএটি মূসক ও সম্পূরক শুল্ক বাবদ প্রায় ২৫ হাজার কোটি টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দিয়েছে। অভ্যন্তরীণ রাজস্বের সবচেয়ে বড় উৎস হলো মূসক। গত অর্থবছরে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড মূল্য সংযোজন কর বাবদ প্রায় ৯৭ হাজার কোটি টাকা সংগ্রহ করেছে। এরমধ্যে বৃহৎ করদাতা ইউনিট- মূসক একাই প্রায় ৪৯ হাজার কোটি টাকা সংগ্রহ করে, যা মোট মূসক আদায়ের প্রায় ৫০ শতাংশ। মূসকের মোট আয়ের অর্ধেকেরও বেশি অবদান রেখেছে বিএটি বাংলাদেশ। এছাড়া কোম্পানিটি প্রায় ৯০০ কোটি টাকা আয়কর দিয়েছে। সব মিলিয়ে বিএটি অভ্যন্তরীণ রাজস্ব খাতের প্রায় ১০% সরকারি কোষাগারে জমা প্রদান করে, যা জাতীয় পর্যায়ে যেকোনও কোম্পানির চেয়ে বেশি। শীর্ষ করদাতার স্বীকৃতি পাওয়া প্রসঙ্গে বিএটি বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শেহ্‌জাদ মুনীম বলেন, ‘এলটিইউ-ভ্যাট গত দুই বছরে ব্যাপক পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে গেছে। করদাতা কোম্পানিগুলো এবং এলটিইউ’র মধ্যে একটি সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে উঠেছে, যা দেশের জন্য একটি ইতিবাচক লক্ষণ। বর্তমান কমিশনারের নেতৃত্বে প্রতিষ্ঠানটি করদাতাদের সমাধানদাতা হিসেবে কাজ করে যাচ্ছে। করদাতা এবং কর আদায়কারীদের মধ্যে একটি সুস্থ সম্পর্কই দেশকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাবে। এ প্রয়াস আমরা এখন দেখতে পাচ্ছি।’