সোমবার   ০৪ মার্চ ২০২৪   ফাল্গুন ২১ ১৪৩০

২ জন গ্রেফতার, ১০০ পিছ ইয়াবা উদ্ধার: মাসদাইরে নারী পুলিশ কর্মকর্তার কাছ থেকে আসামী ছিনতাইয়ের চেষ্টা

প্রকাশিত: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭   আপডেট: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭

যুগেরচিন্তা২৪.কম: কে বলে নারী অবলা ! মাদকের ডেরায় ঢুকে পান্ডাদের মুখে পড়েন এসআই নাজনীন। পান্ডারা তাকে সর্বশক্তি প্রয়োগ করে ৩০ মিনিট অবরূদ্ধ করে রাখে। আসামী ছিনিয়ে নেয়ার চেস্টা ও চালায়। ৩০ মিনিট পর কৌশলে দুই মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করে নিয়েই সেই মাদকের আস্তানা থেকে বেরিয়ে আসতে সক্ষম হন এসআই নাজনীন। তাদের কাছ থেকে ১০০পিছ ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনা গতকাল শুক্রবার ভোরে ফতুল্লার মাসদাইর তালা ফ্যাক্টরী এলাকায় ঘটে। গ্রেপ্তারকৃত মাদক ব্যবসায়ী দেলোয়ার হোসেন (২৮) মাসদাইর তালা ফ্যাক্টরী এলাকার মৃত জসিম উদ্দিনের ছেলে ও একই এলাকার মৃত শের আলীর ছেলে আলম বাদশা (৪০)। প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার ভোর সাড়ে ৩টায় ফতুল্লা মডেল থানার পুলিশের এসআই নাজনীন সহ আরো দু’জন পুলিশ সদস্য এসে মাসদাইর তালা ফ্যাক্টরী এলাকার মাদক ব্যবসায়ী দেলোয়ারকে আটক করে তার দেহ তল্লাশী করে। এসময় একজন নারীসহ মাদক ব্যবসায়ী আলম বাদশাসহ আরো কয়েকজন লোক এসে পুলিশের কাজে বাধা দেয়। পরে তারা এসআই নাজনীনকে হুমকি দিয়ে বলে এখান থেকে কাউকে নিতে দেয়া হবেনা। এক পর্যায়ে নাজনীনসহ পুলিশ সদস্যদের সাথে খারাপ আচরণসহ অবরূদ্ধ করে রাখে। এসময় পুলিশ প্রতিবাদ করতে গিয়ে পুলিশের সাথে মাদক ব্যবসায়ীদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে কৌশলে পুলিশ দেলোয়ার ও আলম বাদশাকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায়। ফতুল্লা মডেল থানার পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) নাজনীন আক্তার ঘটনার সত্যতা স্বীকার বলেন, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ৩টায় মাসদাইর তালা ফ্যাক্টরী এলাকায় ডিউটিকালে দেলোয়ার নামের একজনকে রাস্তায় সন্দেহে হলে তাকে আটক করে তার দেহে তল্লাসী চালিয়ে মাদক পাওয়া যায়। পরে তাকে যারা শেল্টার দেয় এবং একজন নারীসহ আরো কয়েকজন এসে তাকে নিয়ে যেতে দিবে না হুমকি দিতে থাকে এবং থানার কয়েকজন অফিসারের নাম বলে হুমকি দেয়। এসময় তাদের সাথে আমার বাকবিতন্ডা হয়। পরে আলম বাদশাকে আটক করেও তার কাছ থেকে পাওয়া যায় মাদক। এতে করে এলাকার কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ীদের পক্ষে নিয়ে (যারা মাদক ব্যবসায়ীদের শেল্টার দেয়) পুলিশের সাথে খারাপ ব্যবহার করে। একপর্যায়ে তারা পুলিশের কাছ থেকে আসামী ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টাও করে। পরে কৌশলে মাদক ব্যবসায়ী দেলোয়ার ও আলম বাদশাকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে আসা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে ১০০ পিছ ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে ফতুল্লা মডেল থানায় মাদক আইনে মামলা দায়ের করা হয়।
এই বিভাগের আরো খবর