পাচারের ৩ বছর পর দেশে ফিরলো ৩৭ কিশোর-কিশোরী

প্রকাশিত: ২০:৩৪, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১

পাচারের ৩ বছর পর দেশে ফিরলো ৩৭ কিশোর-কিশোরী

তিন বছর পর যশোরের বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে দেশে ফিরেছে ভারতে পাচার হওয়া ৩৭ বাংলাদেশি কিশোর-কিশোরী। সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) বিকালে ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে তাদের হস্তান্তর করে। পাচার প্রতিরোধ নিয়ে কাজ করা এনজিও সংস্থা ‘জাস্টিস অ্যান্ড কেয়ার’ এসব কিশোর-কিশোরীকে আইনি সহায়তা দেওয়ার ব্যবস্থা করবে। পাশাপাশি তাদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির উদ্যোগও নেবে। ফেরত আসাদের মধ্যে ২১ জন কিশোর ও ১৬ জন কিশোরী। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এসব কিশোর-কিশোরীর বাড়ি কুমিল্লা, খুলনা, যশোর, গোপালগঞ্জ, বাগেরহাট, মুন্সিগঞ্জ, সাতক্ষীরা, ঠাকুরগাঁও, সুনামগঞ্জ, নড়াইল, রাজশাহী, বরিশাল ও কুড়িগ্রাম জেলায়। প্রত্যেকের বয়স ১২-১৮ বছরের মধ্যে। দুই থেকে তিন বছর আগে ভালো চাকরির কথা বলে বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে তাদের ভারতে পাচার করা হয়। জাস্টিস অ্যান্ড কেয়ারের কর্মকর্তা মুহিত হোসেন বলেন, অভাব-অনটনের সুযোগ নিয়ে বিভিন্ন সময় ভালো কাজের কথা বলে এদের ভারতে পাচার করে দালালরা। পরে তাদের বিভিন্ন ঝুঁকিপূর্ণ কাজে ব্যবহার করা হয়। ভারতীয় পুলিশ পাচারকারীদের কাছ থেকে তাদের উদ্ধার করে আদালতে পাঠায়। সেখান থেকে আশ্রয় হয় ভারতীয় এনজিও সংস্থার লিলুয়া, ধ্রুব আশ্রম, কিশোরালয় ও সুকন্যা নামে শেল্টার হোমে। পরে উদ্ধার হওয়া ব্যক্তিরা বাংলাদেশি কিনা যাচাই করা হয়। প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের আনুষ্ঠানিকতা শেষে ভারত সরকারের দেওয়া বিশেষ ট্রাভেল পারমিটের মাধ্যমে তাদের দেশে আনা হয়। বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহসান হাবিব বলেন, বিভিন্ন সময়ে টাকা-পয়সা রোজগারের আশায় দালালের মাধ্যমে ভারতে যায় তারা। সেখানে বিভিন্ন বাসাবাড়িতে কাজের সময় পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে এবং বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়। সাজার মেয়াদ শেষে তাদের দেশে ফেরত পাঠিয়েছে ভারতীয় পুলিশ।