আইভীর প্রতিদ্বন্দ্বী কে?

প্রকাশিত: ১৯:১৫, ১৩ ডিসেম্বর ২০২১

আপডেট: ১৯:২৮, ১৩ ডিসেম্বর ২০২১

আইভীর প্রতিদ্বন্দ্বী কে?

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের তারিখ যতোই ঘনিয়ে আসছে, ততোই পাল্টে যাচ্ছে সমিকরণ। আলোচিত এ নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ না করার সিদ্ধান্ত নিলেও দলীয় নেতাদের জন্য স্বতন্ত্র নির্বাচনের পথ উন্মুক্ত করে দিয়েছে। অনেকে এটাকে বিএনপির জাতীয় রাজনীতির কৌশল হিসেবে দেখলেও দলীয় নেতা-কর্মীদের আগ্রহের শেষ নেই এ নির্বাচনকে ঘিরে।

ইতিমধ্যে বিএনপি থেকে ৪ জন নির্বাচন করার ঘোষনা দিয়েছে। আবার প্রত্যেকেই দলের সিদ্ধান্ত মেনে নেয়ার কথাও বলছেন। ফলে শেষমেষ, কোথাকার পানি কোথায় গড়ায় তা, নিয়ে চলছে নানা বিচার বিশ্লেষণ। জানা গেছে, আগামী ১৬ জানুয়ারী বহুল আলোচিত নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচন। নির্বাচনকে ঘিরে এবার আগেভাগেই দলীয় প্রার্থী নির্ধারণ করেছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগ। বহু জল্পনা-কল্পনার পর অবশেষে গত ৩ ডিসেম্বর নৌকার মনোনয়ন দেয়া হয়েছে বর্তমান মেয়র সেলিনা হায়াত আইভীকে। বিগত ১৮ বছর ধরে তিনি নগরকর্তার চেয়ারে রয়েছেন। অপরদিকে বিএনপি নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনের বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত জানায়নি এখনো। তবে বিগত ইউপি নির্বাচনের আগে বিএনপি মহাসচিব ফখরুল ইসলঅম আলমগীর বলেছিলেন, এ সরকারের অধিনে কোন নির্বাচনেই যাবেনা বিএনপি। তবে দলের কোন নেতা সতন্ত্র নির্বাচন করলে দল থেকে বাঁধা দেয়া হবেনা। এই ঘোষনার সূত্র ধরেই নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনে আগ্রহ দেখাচ্ছে স্থানীয় বিএনপির শীর্ষ নেতারা। পাশাপাশি বিএনপির প্রার্থীতা নিয়ে চলছে রীতিমতো রাজনৈতিক খেলা। সর্বশেষ তথ্য অনুসারে বিএনপির ৩ শীর্ষ নেতা সিটি মেয়র পদে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। প্রথমে মনোনয়নপত্র কেনেন মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি ও বিগত নির্বাচনে ধানের শীষের প্রার্থী শাখাওয়াত হোসেন খান। একই দিন মনোনয়ন কেনেন সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল। রোববার (১২ ডিসেম্বর) মনোনয়ন কেনেন বিএনপির সাবেক এমপি মুহম্মদ গিয়াসউদ্দিন। এরআগে শনিবার পুরো নগরীজুড়ে চাউর হয় ২০১১ সালের নির্বাচনের মাত্র কয়েক ঘন্টা আগে বসিয়ে দেয়া জেলা বিএনপির আহ্বায়ক তৈমূর আলম খন্দকার নির্বাচনে প্রার্থী হবেন। তৈমূরও  স্বীকার করেছেন তিনি নির্বাচন করবেন এবং দু’একদিনের মধ্যে মনোনয়ন কিনবেন। পরদিন হঠাৎ করেই মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন সাবেক এমপি গিয়াসউদ্দিন। যিনি এরআগে সাফ জানিয়ে দিয়েছিলেন সিটি নির্বাচনে প্রার্থী হবেন না। গিয়াসউদ্দিনের হঠাৎ আবির্ভাবে বিএনপির অনেকেই অস্বস্থি প্রকাশ করেছেন। বলা হচ্ছে, হেভিওয়েট তৈমূরের প্রার্থীতা ঠেকাতে কোন এক মহলের ইশারায় মনোনয়ন কিনেছেন গিয়াসউদ্দিন। যদিও মনোনয়ন কেনার পর প্রতিক্রিয়ায় সাবেক এমপি গিয়াসউদ্দিন বলেছেন, দল যে সিদ্ধান্ত দেবে সেটাই মেনে নিবো। এদিকে নগরবাসীর মাঝেও এনিয়ে তৈরী হয়েছে ধুম্রজাল। শেষ পর্যন্ত কে হবেন আওয়ামীলীগের প্রার্থী আইভীর প্রতিদ্বন্দ্বী? সেটাই আলোচনা হচ্ছে নগরীজুড়ে।