ভোট বয়কট করলেন খোদ চেয়ারম্যান!

প্রকাশিত: ১৫:৩৮, ২৮ নভেম্বর ২০২১

ভোট বয়কট করলেন খোদ চেয়ারম্যান!

মুন্সীগঞ্জের মোল্লাকান্দি ইউনিয়নে আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী মহসিনা হক কল্পনা নির্বাচন বয়কটের ঘোষণা দিয়েছেন। রবিবার (২৮ নভেম্বর) দুপুরে মোল্লাকান্দির নিজ বাসভবনে সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি ভোট বয়কটের ঘোষণা দেন। তিনি মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান। মহসিনা হক কল্পনা বলেন, ভোট সুষ্ঠু হচ্ছে না। সন্ত্রাস দিয়ে তাণ্ডব করে ও প্রশাসন নিরব থাকার কারণে সুষ্ঠু ভোট না হওয়ায় আমি ভোট বয়কট করলাম। আমি পুনরায় নির্বাচনের দাবি করছি। চেয়ারম্যান প্রার্থী কল্পনা অভিযোগ করেন, অনেক কেন্দ্রে আমার এজেন্ট ভয়ে যেতে পারেনি। প্রতিপক্ষ রিপন পাটোয়ারী (নৌকা প্রতীকের প্রার্থী) বহিরাগত লোকজন দিয়ে এজেন্টদের হাত-পা ভেঙে দেওয়ার হুমকি দিয়েছে। এতে এজেন্টরা কেন্দ্রে যেতে পারেনি। আমিও চাই না কেউ নির্বাচন করতে গিয়ে প্রাণ হারাক। তিনি আরও বলেন, নৌকার নির্বাচন করেছেন বিএনপির লোকজন। সময় গেলে বোঝা যাবে কী হবে। আমরা আওয়ামী লীগ করেও নির্যাতিত। তিনি অভিযোগ করেন, প্রতিপক্ষের লোকজন কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকা পুলিশকে এক লাখ করে টাকা দিয়েছে। আমি এই অভিযোগও প্রশাসনকে জানিয়েছিলাম। প্রশাসন আমাকে বলেছিলো বিষয়টি দেখবে। এসব অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ হাসিব সরকার বলেন, সারা উপজেলার মধ্যে এই ইউনিয়নে সর্বোচ্চ আইনশৃংখলা বাহিনী নিয়োগ করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোনও অভিযোগ পাইনি। আপনার কাছেই প্রথম শুনলাম। যদি কোনও প্রার্থীর অভিযোগ থাকে তাহলে আমার কাছে বা রিটার্নিং অফিসারের কাছে অভিযোগ করতে বলুন। আমরা ব্যবস্থা নেবো। রিটার্নিং অফিসার ডা. সেরাজ আহম্মেদ বলেন, আমি প্রেসব্রিফিং দেখেছি। তিনি প্রশাসনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন কিন্তু রিটার্নিং অফিসারের বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ করেননি। তিনি কি আমার নামে কিছু বলছে? চেয়ারম্যান প্রার্থী মহসিনা হক কল্পনা আমার কাছে কোনও লিখিত বা মৌখিক অভিযোগও করেননি। তাছাড়া, আজও আমি মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের প্রায় প্রতিটা কেন্দ্রে গিয়েছি। কেউ আমাকে কোনও অভিযোগ করেননি। ভোর থেকে ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে ককটেল বিস্ফোরণ সম্পর্কে তিনি বলেন, এটা দেখা পুলিশের কাজ। প্রসঙ্গত, তৃতীয় ধাপে মুন্সীগঞ্জের দুই উপজেলার মোট ২১টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ হচ্ছে। সকাল ৮ টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত কোনো বিরতি ছাড়াই একটানা ভোট অনুষ্ঠিত হবে।