মঙ্গলবার   ২০ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৫ ১৪২৬   ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

৩০০ শয্যা হাসপাতালে মাদকসেবীদের হামলা, আহত ৭

প্রকাশিত: ৮ মে ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : নগরীর ৩০০ শয্যা হাসপাতালে মাদক সেবন কালে বাধা দেয়ায় হাসপাতালের ভিতরে হামলা চালিয়েছে মাদক সেবীরা। হামলায় হাসপাতালের ৭ জন বিভিন্ন শ্রেনীর কর্মচারী আহত হয়েছে। 


তারা হলেন- হাসপাতাল তত্ত্বাবধায়কের সহকারী মো. সোহেল, ওয়ার্ড মাস্টার শেখ আনসার আলী, পিয়ন মোবারক, অফিসের সহায়ক মাসুম ও রাকিব, পরিচ্ছন্ন কর্মী মন্নু লাল, ৪র্থ শ্রেনীর কর্মচারীর সভাপতি রাজিয়া। এদের মধ্যে ওয়ার্ড মাস্টার শেখ আনসার আলী গুরুতর আহত হয়েছেন। 


এ সময় হাসপাতালের অন্যান্য কর্মচারীরা একজোট হয়ে এগিয়ে আসলে মাদকসেবী হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। তবে পালানোর সময় মোহন (২৮) নামে এক মাদকাসক্ত হামলাকারীকে আটক করে তারা। বুধবার (৮ মে) সকালে হাসপাতালের এন্ডোস্কপি এক্সরে কক্ষের সামনে এ হামলার ঘটনার ঘটে। খবর পেয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) রিপন ঘটনাস্থলে গেলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আটক হামলাকারী মাদকাসক্ত মোহনকে পুলিশে সোপর্দ করে।


এ ঘটনায় চিকিৎসা শেষে আহত ওয়ার্ড মাস্টার আনসার আলী বাদী হয়ে আটক হামলাকারী মোহনের নাম উল্লেখ করে আরো ৪/৫ জনকে অজ্ঞাত আসামী করে নারায়ণগঞ্জ সদর থানায় একটি মামলা করেন।


হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবু জাহের এই বিষয়ে বলেন, হাসপাতালের বিশাল বড় প্রাঙ্গন হওয়ার কারণে মাদক সেবনের জন্য হাসপাতালের আনাচে কানাচে স্থানগুলো বেছে নিচ্ছে। হাসপাতাল কোয়াটারের নিচে বসেই মাদক সেবন করে। 


কোয়াটার থেকে কর্মচারীরা যারা রাতে হাসপাতালে কাজের জন্য আসে যায়। বিশেষ করে নারী কর্মচারীদের বিভিন্ন কটু ও অশ্লালীন মন্তব্যের শিকার হতে হয়। অন্ধকার দিয়ে আসার সময় নার্সদের সাথে খারাপ আচরণ করে। বিকৃত ভাষার কথা বলে।    


কিছু বললেই বলে আমরা খানপুরের স্থানীয়। হাসপাতাল থেকে বের হলেই মারবে বলে হুমকি জানায়। এর আগেও অনেকেরে মারধর করছে। এগুলো বন্ধ না হলে তো আমার হাসপাতাল নিরাপদ না। হাসপাতালের কর্মচারী সহ হাসপাতালের রোগীদের জন্য নিরাপদ নাহ। এগুলোর সমাধান না হলে ডাক্তাররা কেমনে সেবা দিবো বলেন তো।   


মাদকাসক্ত সন্ত্রাসী থেকে হাসপাতালকে নিরাপদ করার দাবি করে তিনি বলেন, দ্রুত এগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা দরকার। যারা এগুলোর সাথে জড়িয়ে আছে তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসন থেকে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করে সমস্যা সমাধান করলে সকলেই উপকৃত হবে। 


নারায়ণগঞ্জ সদর থানার মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা রুজু করা হয়েছে। 
উল্লেখ্য, গত ৬ মে ও  ৭ মে যুগের চিন্তা ২৪ ডটকম ও যুগের চিন্তা পত্রিকায় হাসপাতালের মাদকসেবী ও মাদকাসক্তদের উৎপাতের ভয়াবহতা উল্লেখ করে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। 


ওই প্রতিবেদন জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. মাসুম বিল্লাহ এই সমস্যার নিরসনের আশ্বাস দিয়ে বলেছিলেন, হাসপাতালে মাদকাসক্ত নিরসন কিংবা নিরাপত্তার জন্য দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। প্রচলিত আইন অনুযায়ী মোবাইল কোর্ট করার যে নিয়ম রয়েছে কিংবা যেভাবে এই সমস্যার নিরসন করা যাবে সেই ভাবেই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 
 

এই বিভাগের আরো খবর