সোমবার   ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯   ভাদ্র ৩১ ১৪২৬   ১৬ মুহররম ১৪৪১

২০ রোজার মধ্যে শ্রমিকদের মে মাসের বেতন ও বোনাসে দাবিতে সমাবেশ

প্রকাশিত: ২৪ মে ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : ২০ রোজার মধ্যে শ্রমিকদের মে মাসের পূর্ণ বেতন ও বেসিকের সমান বোনাস প্রদান, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট জলার সহসভাপতি সাইফুল ইসলাম শরীফ এর উপর হামলাকারী সন্ত্রাসীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং রি-রোলিং স্টিল মিলস শ্রমিক ফ্রন্ট জেলার সাধারণ সম্পাদক এসএম কাদিরসহ নেতৃবৃন্দের নামে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে সমাবেশ ও শহরে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।


শুক্রবার (২৪ মে) বিকাল ৪ টায় গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার উদ্যোগে চাষাড়া কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে এ  সমাবেশ ও শহরে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।


সংগঠনের জেলার সভাপতি সেলিম মাহমুদের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি আবু নাঈম খান বিপ্লব, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম গোলক, সহসভাপতি সাইফুল ইসলাম শরীফ, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার সভাপতি তৌহিদুল ইসলাম সুজন, রূপগঞ্জ উপজেলার সভাপতি মো.সোহেল, গাবতলী-পুলিশ লাইন শাখার সাধারণ সম্পাদক হাসনাত কবীর, বিসিক শাখার সভাপতি নূর হোসেন, কাঁচপুর শিল্পাঞ্চল শাখার আহ্বায়ক আমানউল্লাহ আমান প্রমুখ।


সমাবেশে বক্তারা বলেনঊৎসব বোনাস কোন দয়া নয়, এটা শ্রমিকের অধিকার। প্রতি ঈদে মন্ত্রীরা বেতন বোনাস পরিশোধের তারিখ ঘোষণা করেন কিন্তু মালিকরা তা মানে না। শ্রমিকরা হাতে সময় রেখে বেতন-বোনাস পরিশোধের দাবি করলেও মালিকরা ঈদের ছুটির পুর্ব মূহুর্ত পর্যন্ত শ্রমিকদের বোনাস-বেতন পরিশোধ না করে শ্রমিকদের জিম্মি করে রাখে। ঈদের আগ মুহুর্তে শ্রমিকরা যখন বাড়িতে যাওয়ার জন্য উদগ্রীব হয় তখন মালিকরা শ্রমিকদের কোথাও অর্ধেক বোনাস দিয়ে, কোথাও বোনাস না দিয়ে বকশিশ হিসাবে কিছু টাকা দিয়ে এবং আংশিক বেতন দিয়ে শ্রমিকদের সাথে প্রতারণা করে। শ্রমিকদের তখন প্রতিবাদ করার কোন সুযোগ থাকে না। সরকারও প্রতারক মালিকদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয় না। 


এ সময় বক্তারা উল্লেখ করেন, গত ২৪ এপ্রিল রানা প্লাজা ধ্বসের ৬ বছর পূর্তিতে গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট গাবতলী পুলিশ লাইন শাখার উদ্যোগে সরকার ঘোষিত ন্যূনতম মজুরি বাস্তবায়ন, ফাইন নীটওয়্যারের বেআইনীভাবে ছাঁটাইকৃত শ্রমিকদের চাকরিতে পূনর্বহালের দাবিতে এলাকায় মিছিল সমাবেশ করে। এতে মালিকদের ইন্ধনে এলাকার জুট সন্ত্রাসী পারভেজ, সুমন, কালাম, রুবেল, সাগর, রিপন, আরিফ, আলমগীরের নেতৃত্বে ১৫-২০ জন গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট গাবতলী-পুলিশ লাইন শাখার সভাপতি সাইফুল ইসলাম শরীফের উপর বর্বরোচিত সন্ত্রাসী হামলা চালায়। হামলায় মারাত্মক আহত হয়ে শরীফ খানপুর ৩০০ শয্য হাসপাতালে ৫ দিন চিকিৎসাধীন ছিলেন। থানায় মামলা দেয়া হলে পুলিশ গড়িমসি করে এক সপ্তাহ পরে দুর্বল ধারায় মামলা গ্রহণ করে। এতে আসামীরা সহজেই জামিন নিয়ে মামলা তুলে নেয়ার জন্য গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট এর স্থানীয় নেতা-কমীদের হুমকি প্রদান করছে। 


বক্তারা আরও বলেন, মে দিবসের দিন শ্রমিকরা কারখানায় কাজ না করে মে দিবসের মিছিল করায় মালিকরা রি-রোলিং স্টিল মিলস শ্রমিক ফ্রন্ট জেলার সাধারণ সম্পাদক এসএম কাদিরসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা দিয়েছে। দুইজন শ্রমিক নেতাকে বিনা দোষে ১৫ দিন কারাগারে রুদ্ধ করে রাখা হয়। শ্রমিকদের ন্যায়সঙ্গত অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে মালিকরা সন্ত্রাসী হামলা চালায় এবং নেতাদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে দমন করার চেষ্টা করছে। শ্রমিক নেতৃবৃন্দ হামলার শিকার হলে পুলিশ মামলা নিতে গড়িমসি করে আর শ্রমিকরা অধিকার ভোগ করতে চাইলে কোন ঘটনা ছাড়াই শ্রমিক নেতৃবৃন্দের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করে। 


নেতৃবৃন্দ ২০ রোজার মধ্যে শ্রমিকদের মে মাসের বেতন ও বেসিক এর সমান বোনাস প্রদান, এসএম কাদিরসহ নেতৃবৃন্দের নামে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, শরীফের উপর হামলাকারী সন্ত্রাসীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান। 

এই বিভাগের আরো খবর