মঙ্গলবার   ২০ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৫ ১৪২৬   ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

২০ রোজার আগেই শ্রমিকদের পাওনাদি পরিশোধসহ বিভিন্ন দাবিতে মানববন্ধন

প্রকাশিত: ১৫ মে ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : ২০ রমজানের পূর্বেই মে মাসের  বেতন পরিশোধের দাবিসহ বেশ কয়েকটি দাবিতে মানববন্ধন করেছে সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলা। 

আজ মঙ্গলবার (১৫ মে) বিকাল ৫ টায় মাসদাইর চৌধুরী কমপ্লেক্স এর সামনে মানববন্ধনে গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট গাবতলী-পুলিশ লাইন শাখার সভাপতি সাইফুল ইসলাম শরীফের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি আবু নাঈম খান বিপ্লব, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম গোলক, সহ-সভাপতি শহিদুল ইসলাম, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার সাধারণ সম্পাাদক রুহুল আমিন সোহাগ, নারায়ণগঞ্জ জেলার দপ্তর সম্পাদক কামাল পারভেজ মিঠু, গাবতলী-পুলিশ লাইন শাখার সহ-সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলম প্রমুখ। 


নেতৃবৃন্দ বলেন- ঊৎসব বোনাস কোন দয়া নয়, এটা শ্রমিকের অধিকার। নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, প্রতি বছর রোজার শুরুতে শ্রম মন্ত্রনালয় মালিকদের সাথে বৈঠক করে সকল পোষাক শিল্প শ্রমিকের বেতন-ভাতা পরিশোধের আশ্বাস দেয়। কিন্তু মালিকরা ঈদের ছুটির পুর্ব মূহুর্ত পর্যন্ত শ্রমিকদের বোনাস-বেতন পরিশোধ না করে শ্রমিকদের জিম্মি করে।


ঈদের আগ মুহুর্তে শ্রমিকরা যখন স্বজনদের সাথে মিলিত হওয়ার জন্য উদগ্রীব হয় তখন মালিকরা শ্রমিকদের বোনাস না দিয়ে বকশিশ হিসাবে কিছু টাকা দিয়ে আর আংশিক বেতন দিয়ে শ্রমিকদের সাথে প্রতারণা করে। শ্রমিকদের তখন প্রতিবাদ করার কোন সুযোগ থাকে না। 


সরকারও প্রতারক মালিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয় না। পুর্ণ বেতন-ভাতা না পাওয়ায় শ্রমিকরা অল্প ভাড়ায় ঝুঁকি নিয়ে গ্রামে যেতে যেয়ে দুর্ঘটনার শিকার হয়ে মৃত্যুবরণ করে।


এসময় নেতৃবিন্দ বলেন, নেতৃবৃন্দ বলেন, গত ২৪ এপ্রিল রানা প্লাজা ধ্বসের ৬ বছর পূর্তিতে গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট গাবতলী পুলিশ লাইন শাখার উদ্যোগে সরকার ঘোষিত ন্যূনতম মজুরি বাস্তবায়ন, ফাইন নীটওয়্যারের বেআইনীভাবে জোর করে স্বাক্ষর রেখে ছাঁটাইকৃত শ্রমিকদের চাকরিতে পূনর্বহালের দাবিতে এলাকায় মিছিল সমাবেশ করে। 


এতে এলাকার জুট সন্ত্রাসী সুমন, কালাম, রুবেল, সাগর, পারভেজ, রিপন, আরিফ, আলমগীরের নেতৃত্বে ১৫/২০ জন গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট গাবতলী-পুলিশ লাইন শাখার সভাপতি ও জেলার সহ-সভাপতি সাইফুল ইসলাম শরীফের উপর সন্ত্রাসী হামলা চালায়। সন্ত্রাসী বাহিনী ঐদিন রাত ১১ টায় শরীফ বাড়ি ফেরার সময় তার উপর বর্বরোচিত হামলা চালায়। 


হামলায় মারাত্মক আহত হয়ে শরীফ খানপুর ৩০০ শয্যার হাসপাতালে ৫ দিন চিকিৎসাধীন ছিলেন। থানায় মামলা দেয়া হলে পুলিশ গড়িমসি করে এক সপ্তাহ পরে দুর্বল ধারায় মামলা গ্রহণ করে এবং আসামীরা সহজেই জামিন নিয়ে নেয়। 


নেতৃবৃন্দ বলেন, শ্রমিকদের ন্যায়সঙ্গত অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম মালিকরা সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে, কখনোবা নেতাদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে দমন করার চেষ্টা করছে।


মে দিবসের দিন শ্রমিকরা কারখানায় কাজ না করে মে দিবসের মিছিল করায় মালিকরা রি-রোলিং স্টিল মিলস শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সাধারণ সম্পাদক এস এম কাদিরসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়েছে। 


শ্রমিক নেতৃবৃন্দ হামলার শিকার হলে পুলিশ মামলা নিতে গড়িমসি করে আর শ্রমিকরা অধিকার ভোগ করতে চাইলে কোন ঘটনা ছাড়াই শ্রমিক নেতৃবৃন্দের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করে। 

এই বিভাগের আরো খবর