শুক্রবার   ১৮ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৩ ১৪২৬   ১৮ সফর ১৪৪১

স্ত্রীর নির্দেশেই মামুনকে শ্বাসরোধ, পা চেপে মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়

প্রকাশিত: ৫ জুলাই ২০১৯  

আড়াইহাজার (যুগের চিন্তা ২৪) : মামুনের স্ত্রী শারমিনের নির্দেশে জাকির একটি লাল রঙের গামছা দিয়ে মামুনের গলায় পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে। এ সময় সেলিম তার দু’পা চেপে ধরে রাখে মৃত্যু নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত।


এরপর স্থানীয় একটি মুরগীর খামার থেকে একটি বস্তা ও আলী হোসেনের দোকান থেকে একটি ব্লেড কিনে জাকিরের পেট কেটে ভুড়ি বের করে। পরে লাশ বস্তাবন্দি করে শহীদুলের বাড়ির পাশের ডোবায় ফেলে দেয়।


আড়াইহাজারে মামুন হত্যা মামলায় গ্রেপ্তারকৃত আসামি সেলিম আদালতে দেওয়া তার জবানবন্দিতে এভাবে হত্যার বিবরণ দেন। সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মিলটন ও কাউসার আলমের আদালতে ১৬৪ ধারায় বৃহষ্পতিবার (৪ জুলাই) এ জবানবন্দি দেয় সেলিম।


আড়াইহাজার থানার এসআই ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ফাইজুর এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, বুধবার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে পুলিশ রূপগঞ্জ এলাকা থেকে সেলিম ও জাকিরকে গ্রেপ্তার করে। সেলিম স্থানীয় জাঙ্গালিয়া এলাকার আব্দুল রশীদের ছেলে এবং জাকির বাড়ৈপাড়া এলাকার আহেদ আলীর ছেলে।


একই মামলায় এজাহারনামীয় অপর আসামি মানিককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সে রূপগঞ্জের বানিয়াদী এলাকার শহীদুল্লাহর ছেলে। ইতিপূর্বে একই মামলায় নিহতের প্রথম স্ত্রী শারমিনকে গ্রেপ্তার করা হয়। সে স্থানীয় উচিতপুরা ইউপির বাড়ৈপাড়া এলাকার আহাদ আলীর মেয়ে।

 

প্রসঙ্গত, ৩ মার্চ পুলিশ স্থানীয় জাঙ্গালিয়ার চেঙ্গাকান্দি শহীদুলের বাড়ির পাশে একটি ডোবার পানি থেকে মামুনের বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করা হয়। সে টাঙ্গাইল জেলার মধুপুরথানাধীন ধনোবাড়ি এলাকার মৃত সামছুল হকের ছেলে। এ হত্যার ঘটনায় নিহতের ভাই বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করেন। 

এই বিভাগের আরো খবর