মঙ্গলবার   ২২ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৬ ১৪২৬   ২২ সফর ১৪৪১

সিদ্ধিরগঞ্জে সংঘর্ষের ঘটনায় পাল্টাপাল্টি মামলা, গ্রেফতার ১১

প্রকাশিত: ১৯ জুন ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : সিদ্ধিরগঞ্জে গামের্ন্ট মেয়েদের উত্তক্ত্যের প্রতিবাধ করায় নাসিক ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মতিউর রহমান মতি ও সাবেক কাউন্সিলর সিরাজ গ্রুপরে মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। 

 

বুধবার (১৯ জুন) বিকাল ৪ টায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় উভয় গ্রুপে পাল্টাপাল্টি মামলা দায়ের করেছে। মামলা নং- ৩৪/৩৫। দুই মামলায় ৩৯ জনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত ৪৫ জনকে আসামী করা হয়েছে। 

 

এদিকে পুলিশ উভয় গ্রুপের ১১ জনকে গ্রেফতার করেছে।  গ্রেফতাকৃতরা হলো- বর্তমান কাউন্সিলর মতিউর রহমান মতি গ্রুপের সদস্য আক্তার হোসেন (২৯), মিজান (২৭), রবিন (২০), বিল্লাল হোসেন (২০), নুর হোসেন (২১) ও  শামীম (২৯) এবং সাবেক কাউন্সিলর সিরাজ মন্ডলের সহযোগী স্বপন (৪০), ফিরোজ আহমেদ (৩৩), শাহাদাত হোসেন শাকিল (৩১), আব্দুল হান্নান (৩৫), মিজানু রহমান (২৬) কে গ্রেফতার করেছে।  সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা  (ওসি) শাহীন পারভেজ মামলা ও গ্রেফতারের সত্যতা  নিশ্চিত করেছেন। 

 

এদিকে বিকাল ৪ টার দিকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠায় পুলিশ। আদালত গ্রেফতারকৃতদের জেল হাজতে প্রেরণ করে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে নাসিক ৬নং ওয়ার্ডের সুমিলপাড়া, এসও, আইলপাড়া এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করেছে।

 

জানা গেছে, নাসিক ৬নং ওয়ার্ড সুমিলপাড়া রেললাই চৌরাস্তা এলাকায় গার্মেন্টর্স মেয়েদের প্রতিদিন উক্তক্ত্য করে আসছিলো মতির গ্রুপের অস্ত্রধারী ক্যাডার একাধিক মামলা আসামী পানি আক্তার গ্রুপের সহযোগী শামীম।

 

মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার দিকে মেয়েদের উত্তক্ত্য করে শামীম। এতে বাধা দেয় ছোট মিজান ও তার লোক জন। এ খবর পেয়ে পানি আক্তার ও তার ৫০-৬০ জন সহযোগীরা চাপাটি, রানদা, রট, লাটিসোটা নিয়ে মিজান গ্রুপের উপর হামলা চালায়। 

 

এ সময় উভয় গ্রুপের মধ্যে কয়েক দফা ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এতে ১০/১৫ জন আহত হয়। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। এ ঘটনায় উভয় পক্ষ্য থানা লিখিত অভিযোগ দিলে পুলিশ উভয় গ্রুপের ১১ জনকে গ্রেফতার করে। 

 

এদিকে এলাকাবাসী জানিয়েছে, মারামারি করেছে পানি আক্তার  ছোট  মিজান গ্রুপের  তার সহযোগীরা। এ মামলায় এখন আওয়ামীলীগ, যুবলীগের নেতাকর্মীদের আসামী করা হয়েছে। যারা ঘটনার সাথে জড়িতনা তারাও আসামী হয়েছে। এতে করে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশের ভাবমূর্তি জনগনের কাছে ক্ষুন্য হয়েছে। 

 

এদিকে একটি সূত্রে জানিয়েছে, মঙ্গলবার রাতে ও বুধবার মতি গ্রুপের এক ক্যাডার পূর্বে যুবদল (বিএনপি) করতো, এ বর্তমানে সিদ্ধিরগঞ্জ  মেঘটনা তেল ডিপোর নিয়ন্ত্রণ কর্তা এক শ্রমিক নেতা ওসি শাহীন পারভেজকে ম্যানেজ করে ঘটনার সাথে জড়িত না তাদের আসামী করেছে। 

 

এদিকে সাবেক কাউন্সিলর সিরাজ মন্ডলের সহযোগী জসিম উদ্দিন বাদী হয়ে ২৫ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত ২৫-৩০ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছে।যার মামলা নং ৩৪। 

 

অপর দিকে বর্তমান কাউন্সিলর মতিউর রহমান মতির সহযোগী শাহ আলম বাদী হয়ে সাবেক কাউন্সিলর সিরাজ মন্ডল গ্রুপের ১৬ জনের নামে এবং অজ্ঞাত ১০-১৫ জনের বিরুদ্ধে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেছে। যার নং ৩৫। 

 

এর আগেও চলতি বছরের ৩ জানুয়ারি বর্তমান কাউন্সিলর মতি নতুন বাজার এলাকায় ইসমাঈল গংদের জমি দখল নিতে গিয়ে ও সাবেক কাউন্সিলর গ্রুপের লোক জনের হাতে রক্তত্ত জখম হয়। এ নিয়েও তখন পাল্টাপাল্টি মামলা হয়েছিলো। 

 

এদিকে মামলা দুটি’র তদন্ত সিদ্ধিরগঞ্জ থানার অপারশেন ওসি জসিম উদ্দিন জানান, গ্রেফতারকৃতদের ৭ দিনের রিমান্ড চেয়েছি। এ ঘটনার সাথে কারা কারা জড়িত তার দ্রুত রহস্য উৎঘাটন করা হবে। এবং বাকি আসামীদের গ্রেফতার করা হবে। 

এই বিভাগের আরো খবর