সোমবার   ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯   ভাদ্র ৩১ ১৪২৬   ১৬ মুহররম ১৪৪১

সিদ্ধিরগঞ্জের সেই দুই ব্যক্তির ছবি ফেসবুকে, তোলপাড় সংবাদে ভিন্নমত

প্রকাশিত: ১৯ মে ২০১৯  

যুগের চিন্তা ২৪ : দৈনিক যুগের চিন্তা পত্রিকা ও যুগের চিন্তা ২৪ ডটকম অনলাইন নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত সংবাদে ভিন্ন প্রকাশ করেছেন সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবলীগের আহ্বায়ক ও নাসিক প্যানেল মেয়র-২ মাতিউর রহমান মতি ও যুবলীগ নেতা কাজী আমির হোসেন। 
 
এ প্রসঙ্গে তারা বলেন, পবিত্র ওমরাহ হজ¦ পালন করার জন্য তারা উভয়ে পবিত্র মক্কায় অবস্থান করছেন। সেখানে ওমরাহ পালনসহ নামাজ-রোজা আদায়ের পাশাপাশি আল্লাহ তায়ালার কাছে দেশ এবং দেশের মানুষের জন্য দোয়া করার এক পর্যায়ে তারা উভয়ে একটি ছবি তুলে ফেইসবুকে আপলোড করেন। 
 
কেননা এ ছবি দেখে দেশের অন্যানরাও যেন ওমরাহ পালন করতে উদ্বুদ্ধ হয় এবং আাল্লাহ তায়ালার পবিত্র ঘরে ক্বাবা শরীফে আল্লাহতায়ালার প্রিয় বান্দারা যায় সে জন্য ঐ ছবি তারা উভয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে আপলোড করেন। এতে দোষের কিছু হয়নি, তাছাড়া এতে তোলপাড় হওয়ারও কিছু নেই।
 
মতিউর রহমান মতি সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবলীগকে সুসংগঠিত করে রেখেছেন। তিনি বিগত সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ার পাশাপাশি নাসিকের প্যানেল মেয়র-২ নির্বাচিত হন। 
 
অপরদিকে তিনি আদমজী ইপিজেডে লাইসেন্স করে সরকারের ভ্যাট ও আয়কর পরিশোধ করে যথানিয়মে আদমজী ইপিজেডের অন্যান্য বৈধ ব্যবসায়ীদের মত ব্যবসা করে আসছেন। এতে তিনি কখনো অন্যায় বা বেইনী কোন ব্যবসা করেননি। 
 
কোন প্রকার অপরাধমূলক কর্মকান্ডের সাথে কখনো জড়িত ছিলাম না উল্লেখ করে মতিউর রহমান মতি বলেন, অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে গিয়ে বিগত দিনগুলোতে আমাকে অনেক মামলায় আসামীও করেছে আমার প্রতিপক্ষ। আদমজী ইপিজেড, মেঘনা-পদ্মা ডিপোসহ সরকারী প্রতিষ্ঠানগুলোতে কেউ কোন প্রকার অবৈধ হস্তক্ষেপ করতে পারেনা বলেও উল্লেখ করেন মতিউর রহমান মতি।
 
অপরদিকে নাসিক ১০ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি যুবলীগ নেতা কাজী আমির হোসেনও এ সংবাদের ভিন্নমত প্রকাশ করে বলেন, আরামবাগ জামে মসজিদ কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও উজ্জীবন যুব কল্যান সামাজিক সংগঠনের উপদেষ্টা করেছেন। 
 
তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে কোন প্রকার হত্যা বা মাদকের মামলা নেই। জীব হত্যা মহাপাপ উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি কখনো কারো সাথে খারাপ আচরণ করিনি। তবে আমি সর্বদা মাদকের বিরুদ্ধে, মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিলাম। এ কারণে কোন মাদক ব্যবসায়ীরা আমার প্রতি ক্ষুব্দ হয়ে আমার বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের মিথ্যা তথ্য পরিবেশন করে আমার বিরুদ্ধ এ সংবাদ করা হতে পারে। 
 
তিনি উল্লেখ করেন, আমি খারাপ হলে অবশ্যই দেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আমার বিরুদ্ধে অবশ্যই কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতো। আমার বাড়িতে মাদকের কোনো জলসাঘর বসেনা। 

তাছাড়া তিনি স্থানীয় মসজিদ মাদ্রাসা সহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথেও তিনি জড়িত রয়েছেন। কাজী আমিরের নামে থানায় কোন মামলা নেই বলে তিনি দাবি করেন বলেন, তার বাড়িতে মিথুন নামে কেউ থাকেনা।
 

এই বিভাগের আরো খবর