শনিবার   ২৫ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ১১ ১৪২৬   ২৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

শুদ্ধি অভিযানে আমাদের একজন এমপিকেও ধরেছেন : আব্দুল হাই

প্রকাশিত: ৭ ডিসেম্বর ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই দলে চলমান শুদ্ধি অভিযান প্রসঙ্গে বলেছেন, আজকে আমার নেত্রী দুর্নীতিবাজদেরকে ধরেছেন। ভালো করে ধরেছেন। ছাত্রলীগকে ধরেছেন, এরপরে যুবলীগকে ধরেছেন। আমরা নিজেরাও ভাবতে পারি নাই,ঢাকায় ৬০টি জায়গায় ক্যাসিনো হয়। ক্যাসিনোর নেতাদের ধরলেন, ভালো করে ধরলেন। আমাদের একজন এমপিও আছেন, তাকেও ধরেছেন। নেত্রী বলেছেন; তিনি যেই হোক আমার ঘর থেকে আমার শুদ্ধি অভিযান শুরু করলাম। যারা দুর্নীতি করেছে, সন্ত্রাস করেছে, হাজার হাজার কোটি টাকা পাচার করেছেন তাদেরকে নেত্রী ধরেছেন। দেশবাসী খুশি হয়েছেন। নারায়ণগঞ্জের জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে নেত্রীকে আমি স্বাগত জানাই। এটি চলমান থাকবে। 

 

শনিবার (৭ ডিসেম্বর) বিকেলে ফতুল্লার লামাপাড়ায় নাসিম ওসমান মেমোরিয়াল এমিউজম্যান্ট (নম) পার্কে ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।     

 

আব্দুল হাই বলেন, নতুন প্রজন্মের অনেকে ঝুটের ব্যবসা করে, অনেকে জায়গা দখল করে, অনেকে সন্ত্রসী করে আসলে বঙ্গবন্ধু দেশ স্বাধীন না করলেতো এগুলো করতে পারতেন না। দয়া করে এগুলো বন্ধ করেন।  দেশ স্বাধীন না হলে আমার ডিসি সাহেবরা সচিব হতে পারতেন না, একজন সাধারণ ব্যবসায়ী ব্যাংকের মালিক হতে পারতেন না। এমএ পাশ করে কষ্ট করতে হয়েছে একটা কেরানির চাকুরির জন্য। আজকে দেশ স্বাধীন হয়েছে তাই আমরা শিল্পপতি, গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের মালিক, আমরা হাজার কোটি টাকার মালিক, একেকজন মালেয়শিয়ায় সেকেন্ড হোম করি, লন্ডন, দুবাইতে সেকেন্ড হোম করি। এটা বঙ্গবন্ধু দেশ স্বাধীন করেছে বলেই সম্ভব হয়েছে। 

 

আব্দুল হাই ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাইফুল্লাহ বাদল এবং সেক্রেটারি শওকত আলীকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আপনারা আগামীতে কমিটি করবেন নির্বাচন হবে এবং কাউন্সিল হবে। কাউয়া, হাইব্রিড, বসন্তের কোকিল তারা কিন্তু আপনার দলে। একটা কাউয়াও দেখতে চাইনা। হাইব্রীড নেতাদের দেখতে চাইনা। আপনারা এখনো মেম্বারশীপের কাগজপত্র জমা দেননাই। কমিটি করেন নাই, ওয়ার্ড কমিটি হয় নাই। এগুলো জাতীয় সম্মেলনের পর হবে। এগুলো ছাঁটাই, বাঁছাইয়ের দায়িত্ব আপনাদের। এর দায়ভার জেলা আওয়ামী লীগ নেবেনা। ৪৫টি ইউনিয়নে আমরা ২০০ করে বই দিয়েছি। কোন কিছুর বিনিময়ে আপনারা কাউকে মেম্বারশীপ দেবেননা।  কে কি করছেন, কার আয়ের উৎস কি? এটা কিন্তু ইতিমধ্যেই প্রশাসনের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছে।

 

নাসিক মেয়র আইভীর উপর হামলার ঘটনার পর মামলা দায়ের প্রসঙ্গে হাই বলেন, প্রায় ২২ মাস পরে একটি মামলা হাইকোর্ট থেকে এখানে এসেছে, তো হাইকোর্টের নির্দেশের কারনে জেলা প্রশাসক এবং পুলিশ প্রশাসন  তারা এটা তদন্ত করবেন। এবং আমি আশা করি সঠিক তদন্তই করবেন আর বিচার করবেন আদালত। কারা সেদিন আক্রমন করেছিলো? কেন আক্রমন করেছিলো? কি করনে আক্রমনের অবস্থাটা সৃষ্টি হয়েছিলো? আমাদের নেতাকর্মীদের এখানে আসামী করা হয়েছে এবং অজ্ঞাত রয়েছে (আসামী) ১ হাজার। তাহলে আমরা কি সবাই আসামী? আমি মনেকরি এটার সঠিক তদন্ত হবে। এবং আমার দলের নেতাদের হয়রানি করবেন না। তাহলে কিন্তু আমরা আবার আপনাদের বিরুদ্ধে কথা বলতে বাধ্য হবো। সঠিক তদন্ত হলে সত্য বেরিয়ে আসবে। 

 

ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে নারায়গঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান, জেলা আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি আবু হাসনাত শহীদ মো.বাদল, সহসভাপতি মিজানুর রহমান বাচ্চু, যুগ্ম সম্পাদক ইকবাল পারভেজ, সাংগঠনিক সম্পাদক মীর সোহেল, মহানগর আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি খোকন সাহান, সহসভাপতি বাবু চন্দন শীল, যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, শহর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সাজনু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্বে পূর্বের কমিটির সভাপতি এম সাইফুল্লাহ বাদল ও সেক্রেটারি এম শওকত আলীর নামই সভাপতি ও সেক্রেটারি হিসেবে ঘোষণা করা হয়।  

এই বিভাগের আরো খবর