বৃহস্পতিবার   ২৩ মে ২০১৯   জ্যৈষ্ঠ ৮ ১৪২৬   ১৮ রমজান ১৪৪০

শামীম ও সেলিম ওসমানের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে আমরা ভয় পাইনা : এড.মাসুম

প্রকাশিত: ৮ মার্চ ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : শামীম ওসমান ও সেলিম ওসমানের বিরুদ্ধে অতীতে খুনের শিকার হওয়ার ব্যক্তিদের স্বজনরা মুখ খুলতে ভয় পেলেও ত্বকীর হত্যাকান্ডের পর সবাইকে নিয়ে মুখ খুলতে ভয় পাননা বলে মন্তব্য করেছেন নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি এডভোকেট মাহবুবুর রহমান মাসুম। তিনি বলেন, দীর্ঘ  ছয় বছর যাবৎ একই বক্তব্য রেখে যাচ্ছি ত্বকী হত্যার বিচার চাই, ত্বকী হত্যার বিচার চাই। যখনই ত্বকী হত্যার বিচার চাইতে দাড়াই তখনই  চোখের সামনে আসে চঞ্চল হত্যা, বুুলু হত্যা, মিঠু হত্যার কথা। তাদের  পরিবার আজও সন্তান হত্যার বিচার চাইতে সাহস পায় না। কিন্তু আমরা পাইনা। কেননা, ওসমান পরিবার আইনের উর্ধ্বে না। সংসদ সদস্যরাও আইনের উর্ধ্বে না। সকলের উর্ধ্বে আইন। তাই আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করার জন্য ত্বকী হত্যার বিচার চাই এবং যে পর্যন্ত এ বিচার সম্পন্ন না হবে  আমাদের এ আন্দোলন চলবেই।

শুক্রবার (৮ মার্চ)  বিকেলে  ডিআইটি এলাকায়  তানভীর মোহাম্মদ ত্বকীর ষষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকীতে সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের উদ্যোগে আয়োজিত সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ত্বকীর পিতা ও সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের আহবায়ক রফিউর রাব্বি। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক তত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও মানবাধিকার কর্মী সুলতানা কামাল।  

প্রেসক্লাবের সভাপতি আরো বলেন, ওসমান পরিবারকে যে ছাড় দেয়া হচ্ছে। এছাড় সারা জীবন থাকবে সেটা আমরা চাই না। যে দেশে ৭ই মার্চের মত ঐতিহাসিক দিন রয়েছে, যেখানে বঙ্গবন্ধুর মুক্তি ভাষন রয়েছে,৭১ এর ইতিহাস রয়েছে সে দেশে বিচারহীনতার  সংস্কৃতি কেন থাকবে! কেন আইনের শাসন থাকবে না। কেন?  আইনের শাসন কি শুধু সাধারণ মানুষের জন্য।

শামীম ওসমানের পরিবারের জন্য নয়! মনে রাখবেন মিথ্যা কথা বলে মানুষকে প্রলুদ্ধ করে রাজনীতিতে প্রতিষ্ঠা পাওয়া যায় কিন্তু সত্য কখনও চাপা থাকে না। এ ওসমান পরিবার কেন আইনের হাত থেকে বেঁচে যাচ্ছে। ১৩৪ ধারায়  এ হত্যার সাথে সম্পৃক্তরা ত্বকী হত্যাকান্ডের সকল বিবরণ দিয়ে গেছে। প্রমানিতও হয়ে গেছে ত্বকী হত্যায় ওসমান পরিবারের সম্পৃক্ততা রয়েছে। তাহলে কিসের এত বিলম্ব!

গোয়েন্দা সংস্থার লোকজনদের উদ্দেশ্যে এড.মাসুম বলেন, আপনারা রির্পোট দেন। সংসদে কথা বলুন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে বলুন। তবে যাকেই বলুন নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীকে দিতে হবে। জনগণের রায় আপনাকে মানতেই হবে। যদি না মানেন রাজনীতির একটাই শেষ কথা রাজনীতির ইতিহাসে কাউকে ক্ষমা করে না।  আপনাকে ক্ষমা করবে কিনা তার বিবেচনা আপনি করবেন।

প্রধানমন্ত্রীর প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি বলেন, আপনার নির্দেশ  না পেলে ত্বকী হত্যার বিচার  হবে না। এটা সারাদেশ জেনে গেছে । তাহলে আপনি কেন ত্বকী হত্যার বিচারের নির্দেশ দিচ্ছেন না? সৃষ্টি কর্তার দোহাই দিয়ে বলছি আপনি একবার বলুন ত্বকী হত্যার বিচার হোক।

নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সাবেক সভাপতি ভবানী শংকর রায়ের সঞ্চালনায়  সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি হালিম আজাদ, খেলাঘর আসর নারায়ণগঞ্জ  জেলা  সভাপতি রথিন চক্রবর্তী, নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি জিয়াউল ইসলাম কাজল, সমাজতান্ত্রিক দল বাসদেও জেলা সভাপতি নিখিল দাস, নাগরিক  কমিটির জেলা সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, ন্যাপ ও নাগরিক কমিটির   জেলা সভাপতি এড. এবি সিদ্দিকী,  গণতান্ত্রিক আইনজীবি সমিতির জেলা সভাপতি এড. আওলাদ হোসেন, কমিউনিস্ট পার্টির জেলা সাধারণ সম্পাদক  শিবনাথ চক্রবর্তী, গণসংহতির জেলা সমন্বয়ক তরিকুল সুজন বক্তব্য রাখেন।

সমাবেশ শেষে ডিআইটি থেকে চাষাঢ়া শহীদ মিনার পর্যন্ত বিক্ষোভ মিছিল শেষে জাতীয় সঙ্গীতের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শেষ হয়।

 

এই বিভাগের আরো খবর