মঙ্গলবার   ২২ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৬ ১৪২৬   ২২ সফর ১৪৪১

শামীম ওসমান, সেলিম ওসমান ও এসপিতে জমজমাট ইয়ার্ণ মাচেন্ট নির্বাচন

প্রকাশিত: ২২ জুন ২০১৯  


স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : বাংলাদেশ সুতা ব্যবসায়ীদের সংগঠন ইয়ার্ণ মাচেন্ট এসোসিয়েশনের পরিচালনা পর্ষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শান্তিপূর্ণভাবে শেষ হয়েছে। এখন চলছে ভোটগণনা।

 

শনিবার (২২ জুন) সকাল ৯ থেকে বিকেল  ৪টা পর্যন্ত ইয়ার্ণ মার্চেন্ট এসোসিয়শন কার্যালয়ে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। ভোটগ্রহণ চলাকালে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান, নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ সেলিম ওসমান এবং পুলিশ সুপারের উপস্থিতি নির্বাচনে আলাদামাত্রা তৈরি করে। নির্বাচনে ইয়ার্ণ মার্চেন্ট এসোসিয়শনের এলিট ফোর্স ছাড়াও পুলিশ সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। 

 

দীর্ঘ সাতবছর পর ৯৩৬ জন ভোটারের অংশগ্রহণে দুই বছর মেয়াদী নির্বাচনে সভাপতি, সিনিয়র সহসভাপতি, সভাপতিসহ ১৮ জন সদস্য নির্বাচিত করার লক্ষে  এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এবারের নির্বাচনে দুটি প্যানেল অংশগ্রহণ করেন। সাবেক সভাপতি এম সোলায়মানের নেতৃত্বাধীন প্যানেলটিকে এমপি সেলিম ওসমান আগেই সমর্থন দিয়েছেন। তবে লিটনসাহার নেতৃত্বাধীন প্যানেলটি এমপি শামীম ওসমানের অনুসারী। 

 

সেলিম ওসমান নির্বাচন চলাকালীন নির্বাচনী পরিবেশ ঠিক রাখতে কিছুক্ষণ পর পর ইয়ার্ণ মার্চেন্ট এসোসিয়শন ভবনের ভেতর থেকে মাইকিং করেন। সেলিম ওসমান মাইকে বলেন, নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করতে এসে দেখলাম বহিরাগত বেশ কিছু মানুষ সাধারণ সদস্যরা যখন ভোট দিতে আসছেন তাদেরকে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে। তিনি বলেন, অনেকের গলায় আমি ব্যাচ দেখেছি। তাদেরকে আমি প্রশ্ন করেছি উনি সদস্য কিনা! উনি সদস্যনা। এখবর পাওয়ার পর আমি এখানে এসেছি। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে তাই খবর দেয়া হয়েছে। সাদা পোষাকে বেশ কিছু পুলিশকেও আনা হয়েছে। কাউকেই ছাড় দেয়া হবেনা। কোন ভোটার অভিযোগ করলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। ভালোবেসে বা টাকা খেয়ে অনেকে ডিস্টার্ব করছেন। সংযত হওয়ার কারণ আমি দেখিনি। অন্যথায় আইনের প্রয়োগ হবে। এখানে কেউ ক্ষমতা খাটাতে পারবেনা।   

 

তবে পুলিশ সুপার কিংবা সাংসদ শামীম ওসমান নির্বাচন পরিদর্শনে আসলেও কোন বক্তব্য রাখেননি। 

 

সাবেক সভাপতি এম সোলায়মানের নেতৃত্বাধীন প্যানেলে রয়েছেন, এম সোলায়মান, আব্দুল মান্নান মিঞা, আব্দুল্লাহ আল হোসেন বাপ্পি, হুমায়ুন কবীর, সাইদুর রহমান মোল্লা, দেবদাস সাহা, আজহার হোসেন, হাবিব ইব্রাহীম, মিন্টু চন্দ্র সাহা, সাইদুর রহমান, মহিউদ্দিন তুরান, আব্দুল কাদির, মাহফুজুর রহমান খান মাহফুজ, মকবুল হোসেন, কামরুল হাসান, খায়রুল কবীর, অসীম কুমার সাহা, ফয়সাল আহাম্মদ দোলন। 

 

সাবেক সভাপতি লিটন সাহার নেতৃত্বাধীন প্যানেলে রয়েছেন, লিটন সাহা, অশোক মহেশ্বরী, মোজাম্মেল হক,  সেলিম রেজা, মজিবুর রহমান, আমিন উদ্দিন, সিরাজুল হক হাওলাদার, আকবর হোসেন, সঞ্জীত রায়, তাজুল ইসলাম, মোস্তফা এমরানুল হক মুন্না, জয় কুমার সাহা, মোহাম্মদ মুসা, মুকুল হোসেন মল্লিক, মজিবর রহমান, মাওলানা নাজমুল হুদা বিন মাহিদ, মেহেদী হাসান, আফসার আহমেদ।

 

নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যানের দায়িত্বে রয়েছেন বিকেএমইএ’র প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মঞ্জুরুল হক। সদস্য হিসেবে রয়েছেন রাশেদ সারোয়ার ও ফারুক বিন ইউসুফ পাপ্পু।
 

এই বিভাগের আরো খবর