শনিবার   ০৪ এপ্রিল ২০২০   চৈত্র ২১ ১৪২৬   ১০ শা'বান ১৪৪১

রাজুর বাড়ির নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দিল নাসিক

প্রকাশিত: ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

স্টাফ রিপোর্টার : পাথর বোঝাই ট্রাকের ভারে খানপুর  মেইন রোড এলাকার আরসিসি ঢালাই রাস্তা দেবে যাওয়ার ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে অভিনব  কৌশলের আশ্রয় নিলেন ঘটনার নায়ক বাড়ি মালিক  মো: রাজু। সিমেন্ট গুলে রাস্তার ফাটল ঢেকে দিচ্ছেন।

 

রাজুর এই চালাকীকে মহল্লাবাসী শাক দিয়ে মাছ ঢাকার সাথে তুলনা করে বলেছেন, লেবার খরচ বাঁচাতে বাড়ি মালিক এই অঘটন ঘটালেন। এই এলাকার লোকজন বাড়িঘরের কাজ করলে ট্রাকে করে মাল এনে মাল বোঝাই ট্রাকটি হাসপাতালের কর্ণারে রাখে।

 

সেখান থেকে ঠেলাগাড়ি যোগে লেবার দিয়ে মহল্লার ভেতরে নিজের বাড়ি পর্যন্ত মাল নেয়া হয়। সবাই এ নিয়ম  মেনেই বাড়ি ঘরের কাজ করেন। এবারই প্রথম চালাকীর আশ্রয় নিলেন বাড়ি মালিক রাজু। এতটা কিপ্টামী স্বভাব ভাল নয়। সামান্য লেবার খরচ বাঁচানোর জন্য রাজু মিয়া রাস্তার ক্ষতি করলেন। এ কারণে মহল্লাবাসী তার প্রতি ধিক্কার জানিয়েছে।

 

জানাগেছে, বালু ও সিমেন্ট গুলে রাস্তাটির ফাটল অংশ বন্ধ করা হচ্ছে। এভাবে এই গুরুত্বপূর্ন রাস্তাটি মেরামত করে রাজু দায় সারতে চাচ্ছে। তবে রাস্তাটি যেভাবে দেবে ফাটল দেখা দিয়েছে মেরামত করতে হলে দেবে যাওয়া ও ফাটল অংশ ভেঙ্গে মাটি দিয়ে লেভেল সমান করে আরসিসি ঢালাই করা হলে পূর্বের অবস্থায় চলে আসবে এমনটাই জানাগেছে।

 

তবে রাজু যেভাবে রাস্তাটি মেরামতের উদ্যোগ নিয়েছে কঠোর হুঁশিয়ারী করেছেন ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শওকত হাশেম শকু। তিনি বলেন, জনগনের ট্যাক্সের টাকায় এই রাস্তা করা হয়েছে। কারো একার জন্য না। এই রাস্তা মেরামত না করা পর্যন্ত রাজু তার ভবনের কোন কাজ করতে পারবে না।

 

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের রাস্তা কেটে পানির লাইন নেওয়ারও অভিযোগ রয়েছে রাজুর বিরুদ্ধে। শকু আরো বলেন, আজ সিটি কর্পোরেশনের ইঞ্জিনিয়ার ও আমি রাস্তাটি পরিদর্শন করবো। জনগনের এই রাস্তার যে ক্ষতি সাধন করেছে রাজু সিটি কর্পোরেশনের আইন অনুয়ায়ী জরিমানা করা হবে। এছাড়া রাস্তাটি মেরামত করতে যা যা প্রয়োজন সব কিছুই রাজুকে করতে হবে।

 

এদিকে, এলাকাবাসীর অভিযোগ লেবার খরচ বাঁচাতে রাজু মহল্লায় পাথর ভর্তি ট্রাক ঢোকানোর কারনে রাস্তাটির আজ এ অবস্থা। তারা আরো জানান, কিছুদিন আগে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন এই রাস্তাটি আরসিসি ঢালাই করেছে। এরই মধ্যে রাস্তাটির ব্যাপক ক্ষতি সাধন করে রাজু। আইনত সে অপরাধী। তার বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া জরুরী।

 

হাসপাতাল রোডে পাথর ভর্তি ট্রাক আনলোড করে ঠেলাগাড়ি দিয়ে সে পাথর আনতে পারতো। লেবার খরচ বাঁচাতে রাজু রাতের অন্ধকারে  পাথর ভর্তি ট্রাক ঢুকিয়ে এই রাস্তার বেহাল দশা করেছে। তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হলে অন্যেরা সর্তক হবে এমনটাই মনে করছেন এলাকাবাসী।  

 

উল্লেখ্য, গত বুধবার বাড়ি নির্মান করার জন্য পাথর ভর্তি একটি ট্রাক মহল্লায় ঢোকার কারনে  নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১২নং ওয়ার্ডের খানপুর মেইন রোড এর বিআরটিসি বাস ডিপোর পিছনের একটি রাস্তার অংশ দেবে যায়। এতেকরে ওই রাস্তাটির কয়েকটি অংশে ফাটল দেখা দিয়েছে।

 

খানপুর মেইনরোড এর স্থানীয় মো.  মোস্তফা মিয়ার পুত্র রাজুর বিরুদ্ধে এই রাস্তা ভাঙ্গার অভিযোগ উঠেছে। রাস্তা ভাঙ্গা সহ দেবে যাওয়ার খবর পেয়ে গত বুধরার সিটি কর্পোরেশনের ইঞ্জিনিয়ার সহ ১২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শওকত হাশেম শকু ওই রাস্তাটি পরিদর্শন করেছেন।

 

সরেজমিনে দেখাগেছে, এই রাস্তাটি আরসিসি ঢালাই দিয়ে করা হয়েছিল। কিন্তু রাস্তাটি দিয়ে পাথরের ট্রাক য়াওয়ার পর রাস্তাটি কয়েক অংশ ফেটে দেবে গেছে। এছাড়া আরসিসি ঢালাই উঠে গিয়ে রাস্তাটি বেহাল। এই রাস্তাটি খানপুরবাসীর জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ন। তাই ওই এলাকার মানুষের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।

 

কেন পাথর ভর্তি ট্রাক এই রাস্তায় আনা হল এ নিয়ে গতকাল রাজুর বিরুদ্ধে সমালোচনা ছিল সকলের মুখে। এই রাস্তাতো রাজুর একার না, এই রাস্তা খানপুরবাসীর সকলের। তাই এই রাস্তা মেরামতসহ জরিমানার দাবী উঠেছে রাজুর বিরুদ্ধে।

 

জানাগেছে, খানপুর মেইনরোড এর স্থানীয় মো.  মোস্তফা মিয়ার পুত্র রাজু বাড়ি নির্মাণ করার জন্য পাথর ভর্তি একটি ট্রাক তার বাড়ির সামনে নিয়ে আসে। এরপর সিটি কর্পোরেশনের রাস্তার উপর ওই পাথর রেখে বাড়ির নির্মাণ কাজ শুরু করে দেয়।

 

কোন নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে রাস্তায়  যত্রতত্র ইট-পাথর-বালু ফেলে রেখেছেন রাজু। আইন অনুযায়ী রাস্তায় ইট বালু সিমেন্ট ও পাথরসহ বিভিন্ন নির্মান সামগ্রী রাখা বেআইনি। কিন্তু তারপরও এ বিধান মানা হচ্ছে না।

 

স্থানীয়রা বলছেন, বিভিন্ন এলাকার রাস্তায় ও ফুটপাত দখল করে দীর্ঘদিন  যাবৎ নির্মাণ সামগ্রী ইট, বালু, কংক্রিট ইত্যাদি রাস্তার উপর মজুদ করে রেখে ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে। ফলে ওই রাস্তায় যানজট লেগেই থাকে। এরপরও নির্মাণাধীন ভবন মালিকদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নিতে দেখা যায় না। 

এই বিভাগের আরো খবর