শুক্রবার   ২৪ মে ২০১৯   জ্যৈষ্ঠ ১০ ১৪২৬   ১৯ রমজান ১৪৪০

রমজানেও রাস্তার পাশে ময়লার স্তুপ, দুর্ভোগে দেওভোগবাসী

প্রকাশিত: ১১ মে ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : নগরীর দেওভোগে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ রাস্তার পাশে প্রতিনিয়তই অবর্জনা ও ময়লার স্তুপ জমে থাকে। ফলে রমজানে সাধারণ মানুষের দুর্ভোগের পাশাপাশি সৌন্দর্য ম্লান ও অধিকহারে পরিবেশ দূষণ হচ্ছে! এলাকাবাসীর প্রত্যাশা ছিলো বছর জুড়ে ময়লার স্তুপ থাকলেও অতন্ত রমজানকে কেন্দ্র করে এ মাসে রাস্তাঘাট পরিচ্ছন্ন থাকবে ।


স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কিছু কিছু অসচেতন মানুষ ও নগরীর পরিচ্ছন্ন কর্মীদের উদাসিনতার কারণেই এমনটা ঘটছে! বাসাবাড়িতে প্রতিদিনের জমানো ময়লা নির্ধারিত স্থানে অথবা ময়লার গাড়িতে না ফেলে রাতের অন্ধকারে রাস্তার পাশে ফেলতেই বেশি পছন্দ করে কিছু অসচেতন মানুষ। আর এতেই তৈরী হচ্ছে আবর্জনার স্তুপ। অপরদিকে পরিচ্ছন্নকর্মীরা নিয়মিত অপসারবণ করছেনা এসব ময়লা।


শনিবার (১১ মে) সরেজমিনে দেখা যায়, নগরীর ১৪নং ওয়ার্ডের ২৯নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পূর্ব দিকের রাস্তায় একটি ময়লায় স্তুপ। আর, সময়মতো ময়লা অপসারণ না হওয়ায় এর ভিতর থেকে দুর্গন্ধও বের হচ্ছে।


তাই এর পাশ দিয়ে মুখে কাপড় চেপে যাতায়ত করছে সাধারণ মানুষ! তাঁদের দাবি সারা বছর যেমন তেমন, অন্তত পক্ষে রমজান মাসে যেন প্রতিদিনের ময়লা প্রতিদিন অপসারণ করে সিটি করপোরেশন।


এছাড়াও শেরে বাংলা রোড, আলী আহম্মদ চুনকা রোড, ভূইয়ারবাগ, গলাচিপা, আল্লামা ইকবাল রোডসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ রাস্তার পাশেই দেখা যায় ময়লার স্তুপ।  


দেওভোগ পানির ট্যাংকি এলাকার বাসিন্দা আসমা বেগম নামে এক পথচারী যুগের চিন্তা ২৪ কে বলেন, রাস্তার পাশে এভাবে ময়লা পড়ে থাকাটা একটা অসস্থিকর বিষয়। তাছাড়া আবার রমজান মাস তাই একটু সমস্যা। মানুষের একটুও জ্ঞান নেই! জ্ঞান থাকলে কি এইভাবে রাস্তার পাশে মানুষ ময়লা ফেলে। বলেন?


দেওভোগ এলাকার আরেক বাসিন্দা সোহেল মিয়া বলেন, আসলে কে বা কারা রাস্তার পাশে ময়লা ফেলে তা আসলে হাতেনাতে ধরতে পারিনা। আর ধরতে পারলেও তাঁরা নানা অজুহাত দেখিয়ে চলে যান। এমন অবস্থায় সিটি করপোরেশন যদি এখানে একটি সাইন বোর্ড লাগিয়ে দেয় যে, এখানে ‘ময়লা ফেলা নিষেধ’ তাহলে ভালো হতো।


এ বিষয়ে, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শফিউদ্দিন প্রধান বলেন, কোন কারণে আমার ওয়ার্ডের মানুষের সমস্যা হোক তা আমি চাইনা। আর আমি যেহেতু বিষয়টা জেনেছি তাহলে দ্রুতই সে স্থানটিতে একটি সাইন বোর্ড স্থাপন করে দিচ্ছি, যাতে করে সেখানে আর কেউ ময়লা আবর্জনা না ফেলে। আর এখন যেই ময়লাগুলো রয়েছে তা আমি লোকজন দিয়ে অপসারণের ব্যবস্থাও করছি।


রাস্তায় প্রতিদিনের ময়লা সিটি করপোরেশন প্রতিদিন তুলে নেয় কিনা মুঠোফোনে তা জানতে চাইলে, সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা আলমগীর হিরন বিষয়টি এড়িয়ে যান।

এই বিভাগের আরো খবর