শনিবার   ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৩০ ১৪২৬   ১৬ রবিউস সানি ১৪৪১

যেখানে অন্যায় সেখানেই হস্তক্ষেপ করবো : এসপি হারুন (ভিডিও)

প্রকাশিত: ৭ আগস্ট ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : নারায়ণগঞ্জ মানুষের স্বপ্ন পূরণে কাজ করছে পুলিশ এমন মন্তব্য করে  পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেছেন, ‘এখানকার মানুষের স্বপ্ন তারা স্বস্তিতে থাকতে চায়। আমরা পুরোপুরি সেটি নিশ্চিত করতে পারছি কিনা জানিনা তবে আমাদের চেষ্টা ও আন্তরিকতা কোন কমতি নেই। স্বামী-স্ত্রীর পারিবারিক কলহ, অপহরণ, বাসভাড়া নিয়ে সাধারণ মানুষের পক্ষে প্রতিটি সেক্টরে কাজ করছি। আমরা ন্যায়ের পথে আছি। যেখানে অন্যায় হবে সেখানেই আমরা হস্তক্ষেপ করবো। ঈদগাহ মাঠ নিয়ে কোন্দলের সংবাদে আমরা সেখানে হস্তক্ষেপ করেছি। তালতলায় রাস্তায় গরুর হাট বসেছিলো আমরা সেটিকে তুলে দিয়েছি। নৌপথে চাঁদাবাজি রোধেও আমরা কাজ করছি।  সবকিছু মিলেয়ে আমরা চাই সাধারণ মানুষ স্বস্তিতে থাকুক।’

 

বুধবার (৭ আগস্ট) দুপুরে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ এর নতুন কার্যালয়ের উদ্বোধন শেষে প্রেসব্রিফিং এ তিনি এসব কথা বলেন। 

 

পুলিশ সুপার বলেন, বাংলাদেশের সব জেলাতেই ডিবি জেলা পুলিশ সুপারের সরাসরি তত্ত্বাবধানে থেকে বড় বড় অপরাধ নিয়ন্ত্রণ ও আসামি ধরা হয়। কিন্তু ব্যতিক্রম ছিলো নারায়ণগঞ্জ জেলাতে। এখানে ডিবি পুলিশের কার্যালয়টি ছিলো একটি বিচ্ছিন্ন জায়গায়। যার কারণে প্রায়শই ডিবির বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ আসতো। পুলিশ সুপার বা সিনিয়ির অফিসারাদের সরাসরি তত্ত্বাবধানে না থাকায় এমনটি হতো বলে অনেকে মনে করেন।

 

ডিবি কার্যালয়টি পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের সংযুক্ত করার উদ্দেশ্য সম্পর্কে এসপি হারুন বলেন, ‘আমাদের উদ্দেশ্য ছিলো আমরা সরাসরি ডিবিকে রক্ষণাবেক্ষণ করবো। তাদের কার্যদর্শন করবো। এতে সাধারণ মানুষের বিচার পাওয়ার যায়গাটা আমরা নিশ্চিত করতে পারবো। সাধারণ মানুষকে আরো নিবিড়ভাবে সেবাটা দিতে পারবো। হাজারো গণমাধ্যমকর্মীর মাঝে যেমন কয়েকজন বিপথগামী হয়ে যেতে পারেন ঠিক তেমনি পুলিশের কয়েজনও ভুলত্রুটি করতে পারেন। সুস্পষ্ট অভিযোগ থাকলে আমি তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবো।’

 

গণমাধ্যমকর্মীদের সহযোগিতার কারণে পুলিশের সকল কার্যক্রম সফলভাবে সম্পন্ন করা যাচ্ছে উল্লেখ করে পুলিশ সুপার বলেন,নারায়ণগঞ্জের কোন পুলিশ যে কারো বিরুদ্ধে মামলা নিবে, কারো বিরুদ্ধে অভিযোগ নেবে এমন সৎ সাহসটি ছিলোনা। এখন নারায়ণগঞ্জ পুলিশ অভিযান পরিচালনা করতে শিখেছে, অপরাধীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে শিখেছে। সাধারণ মানুষের সমর্থন পুলিশের কাছে এসেছে। পুলিশ সে কাজটি করতে পেরেছে। আগামীতে ডিবির কার্যক্রমকে আরো গতিশীল করা হবে। প্রতিদিন তাদের কার্যদর্শন করবো। ডিবির কার্যালয়টি দূরে থাকার কারণে এতোদিন আমরা কাজের ফিডব্যাক নিতে পারছিলামনা। এখন সেটি অনায়াসেই নিতে পারবো। সাধারণ মানুষকে স্বস্তি দেয়ার লক্ষ্যেই আমরা কাজ করছি। 

 

ঈদে মানুষকে গতঈদের মতো স্বস্তি দেয়ার উদ্দেশ্যে পুলিশ কাজ করছে জানিয়ে পুলিশ সুপার বলেন, মানুষ যাতে চাঁদাবাজি কিংবা ছিনতাইয়ের কবলে না পড়েন, মানুষ যাতে স্বস্তিতে বাড়ি যেতে পারেন  তার জন্য ট্রাফিক পুলিশ রাস্তায় কাজ করছে, হোন্ডা মোবাইল প্রতিনিয়ত মুভমেন্ট করছে। কোথাও যাতে কোন সমস্যার সম্মুখিন না হন সেজন্য পুলিশ কাজ করছে। বঙ্গবন্ধু সড়কসহ আশেপাশের সড়কের ফুটপাতে হকাররা বসে যাতে সাধারণ মানুষকে  দুর্ভোগে ফেলতে না পারে, যানজট সৃষ্টি না করতে পারে তার জন্য আমাদের পর্যাপ্ত পরিমাণ টহল পুলিশ রয়েছে। আমরা একদিকে গরুর হাটে নিরাপত্তা দেয়া, যানজট নিরসন, স্বস্তিতে সাধারণ মানুষ যাতে বাড়ি ফিরতে পারে সেলক্ষ্যে পুলিশ কাজ করছে। প্রায় ১ হাজার পুলিশ শুধু রাস্তাতেই দায়িত্ব পালন করছে।

 

নারায়ণগঞ্জ, কাঁচপুর, ভুলতা, সাইনবোর্ড, রূপগঞ্জের ৩০০ ফিটএলাকাসহ কোথাও যাতে মানুষ দুর্ভোগে না পড়ে সেজন্য আমরা কাজ করছি। এরজন্য সকলের সহযোগিতা চাই। কারো অভিযোগ থাকলে আমাদের জানান। কোথাও যদি পুলিশের কেউ গাড়ি থামিয়ে চাঁদা নিচ্ছে এমন সংবাদ থাকে আমাদের জানান। 

 

সংবাদ সম্মেলনে জেলা পুলিশের কমর্কর্তা ও গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। এর আগে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে ডিবির নতুন কার্যালয়ের উদ্বোধন করেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।
 

এই বিভাগের আরো খবর