সোমবার   ১৭ জুন ২০১৯   আষাঢ় ৪ ১৪২৬   ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

মহিলা দলের নেত্রী বিনু’র মৃত্যুতে পাঁচ নেতার বিবৃতি

প্রকাশিত: ১১ জুন ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : মহানগর মহিলা দলের যুগ্মআহবায়ক বিনু আক্তারের মৃত্যু নিয়ে মঙ্গলবার বিকেলে গণমাধ্যমে যৌথ বিবৃতি দিয়েছেন বিএনপির চেয়ারপাসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার, মহিলা দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক পারভীন আক্তার, নারায়ণগঞ্জ জেলা মহিলা দলের আহবায়ক নুরুন নাহার, নারায়ণগঞ্জ মহানগর মহিলা দলের আহবায়ক রাশিদা জামাল ও নারায়ণগঞ্জ মহানগর মহিলা দলের যুগ্মআহবায়ক আয়েশা আক্তার দিনা।  

গণমাধ্যমে পাঠানো এ বিবৃতিতে তাঁরা উল্লেখ্য করেন, প্রয়াত নারায়ণগঞ্জ মহানগর মহিলা দলের যুগ্মআহবায়ক বিনু আক্তার ২০১৩ সালে মহানগরে আওয়ামী লীগ সরকারের দুঃশাসনের বিরুদ্ধে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালনকালে সরকারের আজ্ঞাবহ কিছু পুলিশ সদস্যের নিমর্ম নির্যাতনের শিকার হন। 

দীর্ঘদিন চিকিৎসা নিয়েও তিনি শেষ পর্যন্ত না ফেরার দেশে চলে গেছেন। তার এ অকাল মুত্যুর জন্য ওই সময়ের কর্মরত পুলিশ সদস্যরাই দায়ি। আমরা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। সেই সাথে ওই পুলিশ সদস্যদের শাস্তির দাবী জানাচ্ছি।

তৈমূর আলম খন্দকার বিবৃতিতে উল্লেখ্য করেন, শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে পুলিশ সদস্যরা মধ্যযুর্গীয় কায়দা মহিলা দলের নেত্রীকে নিমর্ম নির্যাতন করেছিল। এতে তার মৃত্যু হয়েছে। সংশ্লিষ্ট ওই পুলিশ সদস্যদের আইনের আওতায় আনতে হবে। আমি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

মহিলা দলের কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষে সাংগঠনিক সম্পাদক পারভীন আক্তার বিবৃতিতে উল্লেখ্য করেন, ওই দিনের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে সরকারের আজ্ঞাবহ যে পুলিশ সদস্যরা মহানগর মহিলা দলের যুগ্মআহবায়ক বিনু আক্তারের উপর নিমর্ম নির্যাতন চালিয়েছিল তারা খুনী পুলিশ। 

শেখ হাসিনা তার ক্ষমতা ধরে রাখতে পুলিশকে আজ পেটোয়া বাহিনীতে পরিণত করেছে। পুলিশকে জনগণের প্রতিপক্ষ হিসেবে দাঁড় করিয়েছে দিয়েছে। 

বিনু’র উপর নির্যাতনকারী সংশ্লিষ্ট ওই পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও বিচারের জোর দাবী জানাচ্ছি। সেই সাথে এ ঘটনায় আমি তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। 

নুরুন নাহার উল্লেখ্য করেন, পুলিশের নির্যাতনের কারনে বিনু আক্তারের অকাল মৃত্যু হয়েছে। আমি এর বিচার দাবী করছি। 

রাশিদা জামাল বলেন, পুলিশের গুলিতে মানুষের মৃত্যু হচ্ছে। এটা মেনে নেয়া যায় না। মহিলা দলের নেত্রী বিনুকে পুলিশ হত্যা করেছে। 

আয়েশা আক্তার দিনা যৌথ এ বিবৃতিতে উল্লেখ্য করেন, পুলিশের নিমর্ম নির্যাতনের শিকার হয়ে বিনু আক্তার দীর্ঘদিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করেছেন। শেষ পর্যন্ত সবাইকে কাঁদিয়ে তিনি না ফেরার দেশে চলে গেছেন। আমি হত্যাকান্ডের বিচার দাবী করছি।
 

এই বিভাগের আরো খবর