বৃহস্পতিবার   ০৯ এপ্রিল ২০২০   চৈত্র ২৫ ১৪২৬   ১৫ শা'বান ১৪৪১

বিশ্ব ভালবাসা দিবস পালন থেকে সবাইকে বিরত থাকতে হবে !!

প্রকাশিত: ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

আশিকুর রহমান হান্নান : ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালবাসা দিবস। ভ্যালেন্টাইন্স ডে। এ দিনটিকে বিশ্বব্যাপী ভালবাসা দিবস হিসেবে পালন করা হয়। প্রেমিক-প্রেমিকা, বন্ধু-বান্ধব, স্বামী-স্ত্রী, মা-সন্তান ভালবাসার বিভিন্ন বন্ধনে আবদ্ধ মানুষেরা এই দিনে একে অন্যকে তাদের ভালবাসা জানান।

 

বর্তমানে বিশ্বে এই দিনটিকে খুবই ঘটা করে, আনন্দ উৎসবের মধ্য দিয়ে পালন করা হয়। ভালবাসা দিবসের এই দিনে প্রিয়জনকে সবাই ফুল ও বিভিন্ন সামগ্রী উপহার দিয়ে থাকেন। একটা সময় এই দিবসটি পাশ্চাত্য সমাজের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল।

 

তবে প্রায় দেড় দশক ধরে আমাদের দেশেও পালিত হয়। এ দিবসের শুরু কীভাবে এ নিয়ে মতভেদ রয়েছে। প্রাচীন রোমে ১৪ ফেব্রুয়ারি ছিল রোমান দেব-দেবীর রানী জুনোর সম্মানে ছুটির দিন। জুনোকে নারী ও প্রেমের দেবী বলে লোকে বিশ্বাস করতো। কারো মতে ১৪ ফেব্রুয়ারি ভালবাসা দিবস হওয়ার কারণ ছিলো এটিই।

 

আবার কেউ বলেন, রোমের সম্রাট ক্লডিয়াস ২০০ খ্রিষ্টাব্দে দেশে বিয়ে প্রথা নিষিদ্ধ করেন। তিনি ঘোষণা দেন, কোনও যুবক বিয়ে করতে পারবে না। যুবকদের জন্য শুধুই যুদ্ধ। তার মতে, যুবকরা যদি বিয়ে করে তবে যুদ্ধ করবে কারা? সম্রাট ক্লডিয়াসের এ অন্যায় ঘোষণার প্রতিবাদ করেন এক যুবক। যার নাম ভ্যালেন্টাইন।

 

অসীম সাহসী এই যুবকের প্রতিবাদে খেপে উঠেছিলেন সম্রাট। রাজদ্রোহের শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদন্ড দেওয়া হয় তাকে। ১৪ ফেব্রুয়ারি ভোরবেলা মাথা কেটে ফেলা হয় তার। ভালোবাসার জন্য ভ্যালেন্টাইনের আত্মত্যাগকে স্মরণ করতে তখন থেকেই এ দিনটিকে পালন করা হয় ভ্যালেন্টাইন দিবস হিসেবে। তবে এটিও সর্বজন স্বীকৃত নয়। এখানেও দ্বিমত আছে।

 

কারও কারও মতে, প্রাচীন রোমে ভ্যালেন্টাইন নামে একজন চিকিৎসক ছিলেন। তিনি রোগীদের প্রতি ছিলেন ভীষণ সদয়। অসুস্থ মানুষের ওষুধ খেতে কষ্ট হয় বলে তিনি তেঁতো ওষুধ ওয়াইন, দুধ বা মধুতে মিশিয়ে খেতে দিতেন। সেই ডাক্তার খ্রিস্টধর্ম গ্রহণ করেন। প্রাচীন রোমে খ্রিস্টধর্ম তখন মোটেও জনপ্রিয় ছিল না। এই ধর্মে বিশ্বাসীদের শাস্তি দেয়া হতো।

 

একদিন রোমের এক কারাপ্রধান তার অন্ধ মেয়েকে ভ্যালেন্টাইনের কাছে নিয়ে এসেছিলেন চিকিৎসার জন্য। ভ্যালেন্টাইন কথা দিয়েছিলেন তিনি তার সাধ্যমতো চিকিৎসা করবেন।

 

মেয়েটির চিকিৎসা চলছিলো এমন সময় হঠাৎ একদিন রোমান সৈন্যরা এসে ভ্যালেন্টাইনকে বেঁধে নিয়ে যায়। ভ্যালেন্টাইন বুঝতে পেরেছিলেন, খ্রিস্টান হওয়ার অপরাধে তাকে মেরে ফেলা হবে। ২৬৯ খ্রিস্টাব্দে বা কারও মতে ২৭০ খ্রিস্টাব্দের ১৪ ফেব্রুয়ারি রোম সম্রাট ক্লডিয়াসের আদেশে ভ্যালেন্টাইনের মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হয়।

 

তার আগে ভ্যালেন্টাইন অন্ধ মেয়েটিকে বিদায় জানিয়ে একটি চিরকুট লিখে রেখে গিয়েছিলেন। তাকে হত্যার পর কারাপ্রধান চিরকুটটি দিয়েছিলেন মেয়েটিকে। তাতে লেখা ছিল, ‘ইতি তোমার ভ্যালেন্টাইন’। মেয়েটি চিরকুটের ভেতরে বসন্তের হলুদ ফুলের আশ্চর্য সুন্দর রং দেখতে পেয়েছিলো কারণ, ইতিমধ্যে ভ্যালেন্টাইনের চিকিৎসায় মেয়েটির অন্ধ দু’চোখে দৃষ্টি ফিরে এসেছিল।

 

ভালবাসার এসব কীর্তির জন্য ৪৯৬ খ্রিস্টাব্দে পোপ জেলাসিয়ুস ফেব্রুয়ারির ১৪ তারিখকে ভ্যালেন্টাইন্স ডে হিসেবে ঘোষণা করেন। সেই থেকে এই দিনটিকে মানুষেরা ভ্যালেন্টাইন্স ডে হিসেবে পালন করে আসছে। ভালবাসা দিবস বা সেন্ট ভ্যালেন্টাইন’স ডে একটি বার্ষিক উৎসবের দিন; যা ১৪ ফেব্রুয়ারি অশ্লীল, বেহায়াপনা প্রেম এবং অনুরাগের মধ্যে উদযাপিত করা হয়।

 

এই দিনে মানুষ তার ভালবাসার মানুষকে ফুল, চিঠি, কার্ড, গহনা প্রভৃতি উপহার প্রদান করে দিনটি উদযাপন করে এবং পাশ্চাত্য বেলাল্লাপনা ও বিজাতীয় অপসংস্কৃতির উচ্ছৃংখল জীবনের সাথে গা ভাসিয়ে দেয়। ভালবাসা পৃথিবীর সবচেয়ে মধুর কোমল দুরন্ত মানবিক অনুভূতি।

 

ভালবাসা নিয়ে ছড়িয়ে আছে কত কত পৌরাণিক উপাখ্যান। সাহিত্য-শিল্প-সংস্কৃতি সর্বত্রই পাওয়া যায় ভালবাসার সন্ধান। ভালবাসার জন্য মানুষ মৃত্যুকে তুচ্ছ করে। রাজা সিংহাসন ত্যাগ করে হাসিমুখে প্রেমিকার হাত ধরে। আজকের এই পাথর সময়ে ঈর্ষা-বিদ্বেষ আর হানাহানির পৃথিবীতে ভালবাসা প্রতিনিয়ত সৃষ্টি করে চলেছে অমর্ত্যলোকের কাহিনী।

 

কিন্তু প্রত্যেক মু’মিনের ভালবাসার একমাত্র প্রধান কেন্দ্র হলো মহান আল্লাহ এবং তাঁর প্রিয় রাসূল (সা.)। পিতা-মাতা, ভাই-বোন, স্বামী-স্ত্রী, ছেলে-মেয়ে, ইত্যাদি সকলের প্রতি ভালবাসার মূল ভিত্তি হবে আল্লাহ ও রাসূলের ভালবাসার পরিপূর্ণতার জন্য।

 

আজকাল অনেক মুসলিমই প্রকৃত বিষয়টি না জেনে নানা রকম বিজাতীয় সংস্কৃতির চর্চা করে থাকে। তারা কেবল তাদের সাংস্কৃতিক নেতাদের মতোই এসব ক্ষেত্রে অন্ধ অনুসারী। তারা এটি খুবই কম উপলব্ধি করে যে, তারা যা নির্দোষ বিনোদন হিসেবে করে তার শিকড় আসলে পৌত্তলিকতায়, যা তারা লালন করে তা কুসংস্কার থেকেই জন্ম।

 

এমনকি ইসলাম যা পোষণ করে এসব তার প্রত্যাখ্যান। ভালবাসা দিবস আমেরিকা ও ব্রিটেন বাদে গোটা ইউরোপে মৃত হলেও হঠাৎ করেই তা মুসলিম দেশগুলোয় আবার প্রবেশ করছে। কিন্তু কার ভালবাসা? কেন এ দিবস পালিত হবে?


 আজকের প্রজন্মের কাছে এটি সবচেয়ে কাঙ্খিত দিন। দুনিয়াজুড়ে তারা এ দিনটিকে অত্যন্ত আগ্রহ ও আনন্দের সঙ্গে পালন করে আসছে। তারুণ্যের অনাবিল আনন্দ আর বিশুদ্ধ উচ্ছ্বাসে সারাবিশ্বের মতো ভ্যালেন্টাইনস ডে ক্রেজ আমাদের দেশেও দিন দিন বিপদজনক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে।


পশ্চিমা দেশগুলোর পাশাপাশি প্রাচ্যের দেশগুলোতেও এখন ঐ সংস্কৃতির মাতাল ঢেউ লেগেছে। এমনকি ৯৫ ভাগ মুসলমানের এ প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশেও উচ্ছৃংখল মুসলিম ছেলে-মেয়ে, বুড়ো-বুড়িরাও এ অশ্লীল স্রোতে গা ভাসিয়ে দিয়ে থাকে। হৈ চৈ, উন্মাদনা, রাঙায় মোড়া ঝলমলে উপহার সামগ্রী, নামি রেস্তোরাঁয় ‘ক্যান্ডেল লাইট ডিনার’কে ঘিরে প্রেমিক যুগলের চোখেমুখে এখন বিরাট উত্তেজনা।

 

হিংসা-হানাহানির যুগে ভালবাসার জন্য ধার্য মাত্র এই একটি দিন! প্রেমিক যুগল তাই উপেক্ষা করে সব চোখ রাঙানি। বছরের এ দিনটিকে তারা বেছে নিয়েছে হৃদয়ের কথকতার কলি ফোটাতে। ভালবাসা শব্দটি খুব সহজেই সকলের সহজাত প্রবৃত্তির সাথে মিশে যায়। কেননা জন্মের পর থেকেই মানুষের বেড়ে উঠা এই ভালবাসাকে কেন্দ্র করেই।

 

আর তাই ভালবাসার দিনটিকে নিয়ে সকলের ভাবনাটাও থাকে বিশেষ। এই দিনটির শুরুর গল্পটাও বেশ রঙিন।


আমাদের বাংলাদেশী ভ্যালেন্টাইনরা যাদের অনুকরণে এ দিবস পালন করে, তাদের ভালোবাসা জীবনজ্বালা আর জীবন জটিলতার নাম; মা-বাবা, ভাই-বোন হারাবার নাম; নৈতিকতার বন্ধন মুক্ত হওয়ার নাম। তাদের ভালবাসার পরিণতি ‘ধর ছাড়’ আর ‘ছাড় ধর’ নতুন নতুন সঙ্গী। তাদের এ ধরা-ছাড়ার বেলাল্লাপনা চলতে থাকে জীবনব্যাপী।

 

বছর ঘুরে ১৪ ফেব্রুয়ারি দিনটি আমাদের ভালবাসায় রাঙিয়ে গেলেও, ভালবাসা কিন্তু প্রতিদিনের। জীবনের গতি নির্ধারণ করে ভালবাসা। মানুষ বেঁচে থাকে ভালবাসায়। বছরে মাত্র একটি দিন ও রাত প্রেম সরোবরে ডুব দেয়া, সাঁতার কাটা, চরিত্রের নৈতিক ভূষণ খুলে প্রেম সরোবরের সলিলে হারিয়ে যাওয়ার কি কোনো বুদ্ধিমানের কাজ হতে পারে?

 

ইসলামী নৈতিকতা ও ইসলামী আদর্শের প্রতি উদাসীনতার কারণে সমাজে অশান্তি, অরাজকতা ও বিচ্ছৃংখলা বেড়েই চলেছে। ভেঙ্গে পড়েছে সামাজিক বন্ধন, পারস্পারিক সহানুভূতি, সৌহার্দ্যতা ও পারস্পারিক শ্রদ্ধাবোধ।


১৪ ফেব্রুয়ারি, সম্প্রতি যাকে আমরা বিশ্ব ভালবাসা দিবস হিসেবেই বেশী চিনি। আজকাল বাংলাদেশের যুব সমাজে দিবসটি ঘটা করে পালন করে থাকলেও হয়তো ইহার পিছনের প্রকৃত ঘটনাটি অনেকেই আমরা জানিনা। পাশ্চাত্যের ক্ষেত্রে জন্মদিনের উৎসব, ধর্মোৎসব সবক্ষেত্রেই ভোগের বিষয়টি মুখ্য। তাই গির্জা অভ্যন্তরেও মদ্যপানে তারা কসুর করে না।

 

এই ভ্যালেন্টাইন দিবসের চেতনা বিনষ্ট হওয়ায় ১৭৭৬ সালে ফ্রান্স সরকার কর্তৃক ভ্যালেইটাইন উৎসব নিষিদ্ধ করা হয়। ইংল্যান্ডে ক্ষমতাসীন পিউরিটানরাও একসময় প্রশাসনিকভাবে এ দিবস উদযাপন নিষিদ্ধ ঘোষণা করে। এছাড়া অস্ট্রিয়া, হাঙ্গেরি ও জার্মানিতে বিভিন্ন সময়ে এ দিবস প্রত্যাখ্যাত হয়।

 

সম্প্রতি পাকিস্তানেও ২০১৭ সালে ইসলামবিরোধী হওয়ায় ভ্যালেন্টাইন উৎসব নিষিদ্ধ করে সেদেশের আদালত। বর্তমানকালে, পাশ্চাত্যে এ উৎসব মহাসমারোহে উদযাপন করা হয়। যুক্তরাজ্যে মোট জনসংখ্যার অর্ধেক প্রায় ১০০ কোটি পাউন্ড ব্যয় করে এই ভালবাসা দিবসের জন্য কার্ড, ফুল, চকোলেট, অন্যান্য উপহার সামগ্রী ও শুভেচ্ছা কার্ড ক্রয় করতে, এবং আনুমানিক প্রায় ২.৫০ কোটি শুভেচ্ছা কার্ড আদান-প্রদান করা হয়।

 

পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদে জানা গেছে, বাংলাদেশের ফুলচাষীরা ২০২০ সালের ভ্যালেন্টাইন ডে উপলক্ষে দুইশত কোটি টাকার ফুল বিক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছেন।


বছরের ৩৬৫ দিনের মধ্যে ৩৬৪ দিন মানুষকে ধোঁকায় ফেলে শয়তান যতটা না বিজয়ী হয়, তার চেয়ে শয়তান বেশি বিজয়ী হয় ১ টা দিনে। সেই দিনটার কথা আপনাদের কারো অজানা নয়, ‘বিশ্ব ভালবাসা দিবস’ নামে যে দিবস সারা পৃথিবীতে পরিচিত। এটা এমন একটা দিন, যে দিনে কিছু যুবক-যুবতী এমন সব অনাচার-অশ্লীলতায় লিপ্ত হয়, যার কারণে পুরো পৃথিবীটাই একটি অসভ্য ভুমিতে পরিণত হয়।

 

বিভিন্ন পার্ক, অন্ধকার রেস্টুরেন্টের ছোট্ট কেবিন গুলো একেকটা যেন ‘আইয়্যামে জাহেলিয়াতের’ বেশ্যাখানায় পরিণত হয়। বাবা-মায়ের আদরের ছেলেটি অন্য কোনো ভাইয়ের লক্ষী বোনকে নিয়ে এমন বেলাল্লাপনায় মেতে উঠে। যা একটি সভ্য দেশ কখনো মেনে নিতে পারে না, কিন্তু দূর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য, আমরা নিজেদেরকে ‘মুসলিম’ বলে দাবী করি, কিন্তু ঐটা একটা নামকাওয়াস্তে লেবাস মাত্র।

 

পৃথিবীর প্রায় সব মুসলিম নামধারী দেশ গুলোতে ‘ভালবাসা দিবসের’ নাম দিয়ে তরুন-তরুনীরা ব্যাভিচারে মেতে উঠে। এ ক্ষেত্রে সরকার গুলো যেন নিরব। সরকারের যেনো এখানে কিছুই করার নেই! বিশ্ব ভালবাসা দিবস, এটি এমন একটি দিবস, যে দিনে কিছু মেয়ে পতিতা হবে, কিছু মেয়ে প্রতারিত হবে, কিছু ছেলে খারাপ কাজে জড়িত হবে।

 

আপনার পরিবার যে আক্রান্ত হবে না, তার কি কোনো গ্যারান্টি আছে? আপনারা হয়তো জানেন, এই বিশ্ব ভালবাসা দিবসকে কেন্দ্র করে সারা পৃথিবীতে প্রতিবছর প্রায় ৯০,২৪০ জন নারী তাদের গর্ভপাত করে। কি লির্লজ্জতা?

 

এটা কি আইয়্যামে জাহেলিয়াত নয়? তাই এই দিনটিকে কোনো মতেই বিশ্ব ভালবাসা দিবস বলা যাবে না, ১৪ ই ফেব্রুয়ারি দিবসের নাম হবে ”বিশ্ব বেহায়া দিবস”। এই দিবসের সঙ্গে কোনো মুসলিমের সম্পর্ক থাকতে পারে না। কারন মুসলিমদের প্রতিটি দিনই ভালবাসার।” আদ্দিনু ওয়ান্ নাসিহা” ”দ্বীন মানেই হলো কল্যাণ কামনা (ভালবাসা, উপকার)”, সুবহানাল্লাহ।

 

কোরআনের প্রত্যেকটি পাতায় পাতায় কেবল ভালবাসার কথা। মা-বাবাকে কিভাবে ভালবাসতে হবে, আত্মীয়- স্বজনকে কিভাবে ভালবাসতে হবে, স্ত্রী-পুত্র-কন্যাকে কিভাবে ভালবাসতে হবে, প্রতিবেশী, মুসলিম-অমুসলিম বন্ধু-বান্ধব সহ এমনকি মাতা-পিতার বন্ধুদের সাথে কি আচরণ করতে হবে, সব খুলে খুলে আল্লাহ সুবহানাহু তা’আলা তার নিয়ম শুদ্ধ আমাদের শিখিয়ে দিয়েছেন।

 

এটা মুসলমানের কোনো প্রয়োজন নাই, এটা প্রয়োজন ঐ দেশে, যে দেশের জীবনে, পরিবারে, সমাজে কোনো ভালবাসা নাই। যে দেশের ছেলে- মেয়েরা ১৮ বছর পার হলেই মা- বাবাকে ছেড়ে গার্লফ্রেন্ডকে নিয়ে লিভ-টুগেদার করে, সেই দেশের জন্য ভালবাসা দিবসের প্রয়োজন থাকতে পারে। যেই দেশে বার্ধক্যে বাবা মাকে বৃদ্ধাশ্রমে যেতে হয়, সেই দেশে নির্দিষ্ট একটি দিন ভালবাসার নামে বেহায়াপনার জন্য প্রয়োজন হতে পারে।

 

আমাদের মতো শান্তির দেশ, ভালবাসার দেশে ‘ভালবাসা দিবসের’ মতো ‘বেহায়া দিবসের’ কোনো প্রয়োজন নাই। ১৪ই ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালবাসা দিবস, যা পালনে অবনতি ছাড়া উন্নতি নাই। ভালবাসা দিবস পালন করা ইসলামে সম্পূর্ণ হারাম।

 

বিশ্ব ভালবাসা দিবস পালন থেকে সবাইকে বিরত থাকতে হবে। তাই আসুন বিশ্ব ভালবাসা দিবস পালন করা থেকে সকলেই বিরত থাকি। আল্লাহ আমাদের সকলকে হেফাজত করুন।

লেখক-

আশিকুর রহমান হান্নান

সাংবাদিক, চ্যানেল জিটিভি, সারাবাংলা ডট নেট ও দৈনিক সারাবাংলা।

ই-মেইল-ashiqpress@gmail.com

এই বিভাগের আরো খবর