বৃহস্পতিবার   ১৪ নভেম্বর ২০১৯   কার্তিক ৩০ ১৪২৬   ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

বিআরটিসি’র এসি বাসের তুলনায় জনপ্রিয় ‘ডাবল ডেকার’

প্রকাশিত: ৩০ অক্টোবর ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে চলছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিসি) ডাবল ডেকার (দ্বিতল) বাস। উদ্বোধনের পাঁচদিনের মধ্যেই নগরবাসীর কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে বিআরটিসি ‘ডাবল ডেকার’ বাস। তবে ডাবল ডেকার বাসে যাত্রী বৃদ্ধি পেয়ে চাহিদা কমেছে বিআরটিসির শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত (এসি) বাস সার্ভিস।


চলতি বছর ২২ মে রাজধানীর গুলিস্তানে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের পাশে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিসি) শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বাস সার্ভিসের উদ্বোধন করা হয়। সেই সময় থেকে নগরবাসীর কাছে বিআরটিসি বাসের সার্ভিস সন্তোষজনক। কিন্তু বিআরটিসির ডাবল ডেকার বাস উদ্বোধনে চাহিদা কমেছে বিআরটিসি এসি বাসের।

 

বিআরটিসির ডাবল ডেকার বাস বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম থেকে মেয়র হানিফ ফ্লাইওভার হয়ে নারায়ণগঞ্জ বাস টার্মিনাল পর্যন্ত চলবে। ভাড়া জনপ্রতি ৩০ টাকা। একই রুটে বিআরটিসির এসি বাস বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম- মেয়র হানিফ ফ্লাইওভার-সাইনবোর্ড-চাষাঢ়া-ম-লপাড়া পর্যন্ত সাভির্স দেয়। এ রুটের দূরত্ব ১৮ কিলোমিটার (একই পথে)। এই দূরত্বে জনপ্রতি ভাড়া ৫৫ টাকা।


বিআরটিসি ডাবল ডেকার বাস উদ্বোধনের পর এসি বাসে যাত্রী সংখ্যা কমে গেছে।একদিকে ভাড়াও কম অপরদিকে বিআরটিসি কতৃপক্ষ থেকে বলা হচ্ছে কোথাও না থেমে মাত্র ত্রিশ মিনিটে ঢাকায় পৌঁছবে গাড়িগুলো। ফলে যাত্রীদের স্বল্প খরচে যাতায়াতের চাহিদা পূরণ ও শীতের আভাস পড়ায় বিআরটিসির এসি বাসে যাত্রীর সংখ্যা অনেকাংশেই কমে গেছে।  


সরেজমিনে দেখা যায় মন্ডলপাড়া, ২ নং গেটের এসি বাসের কাউন্টারে যাত্রীর সংখ্যা অনেকটাই কম। অপরদিকে নারায়ণগঞ্জ বাস টার্মিনালে যাত্রীরা ডাবল ডেকার বাসের জন্য অপেক্ষা করছে। বাসের কাউন্টারে মানুষের জটলা সৃষ্টি হয়ে আছে। ত্রিশ মিনিটে ত্রিশ টাকা ভাড়ায় ঢাকার পৌঁছানোর বিষয়টি মানুষের মাঝে সৃষ্টি করেছে ব্যাপক আগ্রহ। তবে রাস্তার অবস্থা বুঝে এর চেয়ে বেশি সময় লাগলেও তাতে আপত্তি নেই যাত্রীদের।


কালিবাজার এলাকার আরিফ রহমান বলেন, আমার অফিস করতে প্রতিদিনই ঢাকায় যেতে হয়। বিআরটিসির এই বাস আধঘন্টার মধ্যে পৌঁছাবে। কিছুটা বেশি সময় লাগলেও সমস্যা নেই। এসি বাসেই যাতায়াত করি কিন্তু এই বাসে ভাড়া কম আর অন্যান্য বাসের তুলনায় সময় কমই লাগে। এজন্য এই বাসে যাচ্ছি।  


আমলাপাড়ার বাসিন্ধা আশা মনি জানান, আমি ঢাকায় কলেজে পড়ি। সপ্তাহে প্রায়ই যাওয়া লাগে। এসি বাসে সুবিধা আছে। কিন্তু দোতলা বাসের উপরে উঠলে এসি লাগে না, এতো বাতাস। দ্রুত যায় আবার টাকাও কম। আমাদের শিক্ষার্থীদের জন্য সুবিধাই হয়েছে। এরকম সার্ভিস থাকলেই হয়। আমাদের প্রত্যাশা বাসের সার্ভিস তারা যেমন বলছে এরকমই থাকবে।  


নারায়ণগঞ্জের ২ নং গেট বিআরটিসি এসি বাসের কাউন্টারের টিকেট বিক্রেতা মো.খোরশেদ বলেন, বিআরটিসির এসি বাসে যাত্রীর সংখ্যা ডাবল ডেকার বাস চলার পর থেকে অনেক কমে গেছে। আগে এই কাউন্টার থেকেই দিনে ৮০০ থেকে ৯০০ যাত্রী  যেত। এখন কমে অর্ধেক হয়ে গেছে। এখন দিনে ৪০০ থেকে ৫০০ যাত্রী যায়। আবার শীত চলে আসতেছে এই কারণেও যাত্রী কমছে।

   
নারায়ণগঞ্জ বাস টার্মিনালে বিআরটিসির কর্মরত সুপাভাইজার ফরহাদ হোসেন বলেন, ডাবল ডেকার বাসের সার্ভিস ভালোই চলছে। প্রতিদিন শুধু বাস টার্মিনালের কাউন্টার থেকে ১২০০ থেকে ১৫০০ যাত্রী যাতায়াত করছে।

 
প্রসঙ্গত, ২৪ অক্টোবর দুপুরে শহরের কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. মনিরুল ইসলাম দ্বিতল বাসের সার্ভিস উদ্বোধন করেন। বাসে জনপ্রতি ভাড়া পড়বে ৩০ টাকা। ৩০ মিনিটে গন্তব্যে পৌঁছে দেয়ার কথা বলছেন কর্তৃপক্ষ। উদ্বোধনের সময় ১০টি ডাবল ডেকার (দ্বিতল) বাস চালু করা হয়। আরও ১০টি বাস নামানো প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। 


ডাবল ডেকার বাসের প্রতিটিতে ৭৫ টি সিট রয়েছে। ঢাকা-নারায়ণগঞ্জে রুটে ডাবল ডেকার সার্ভিসের ৬ টি কাউন্টার বসানো হয়। এগুলো হলে-নারায়ণগঞ্জ ১নং রেল গেট, ২নং রেল গেট, চাষাঢ়া, শিবু মার্কেট ও জালকুড়ি ও বায়তুল মোকারম মসজিদের সামনে।

এই বিভাগের আরো খবর