রোববার   ৩১ মে ২০২০   জ্যৈষ্ঠ ১৭ ১৪২৭   ০৮ শাওয়াল ১৪৪১

বাদল কি কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক !

স্টাফ রিপোর্টার

প্রকাশিত: ১৩ মে ২০২০  

বন্দর থানার মদনপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মহিদ ভূঁইয়া ও  সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দিনকে শোকজ করা হয়েছে। ত্রাণ কমিটির নামে টাকা উঠানোর অভিযোগে তাদেরকে শোকজ করেছেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহীদ বাদল। তবে তিনি যে সাংগঠনিক প্যাড ব্যবহার করেছেন সেই প্যাডটি জেলা কমিটির প্যাড নয়।

 

তিনি যে দলীয় প্যাড ব্যবহার করেছেন তা নিয়েই প্রশ্ন উঠেছে জেলা কমিটির নেতৃবৃন্দের  মধ্যে। অপরদিকে, অভিযুক্ত দুইজনকে শোকজ করার ক্ষেত্রে  জেলার সাধারণ সম্পাদক  জেলার নেতৃবৃন্দের সাথে কোন আলোচনা করেনি বলেও অভিযোগ রয়েছে। বাদল একক সিদ্ধান্ত বলে ঐ দুজনকে শোকজ করেছেন বলেও মন্তব্য অনেকের। 


করোনা পরিস্থিতিতে সরকারের দেয়া নির্দেশনা অনুযায়ী বন্দরের মদনপুর ইউনিয়নে ত্রাণ কমিটি করার নির্দেশ দেয়া হয়। সে অনুযায়ী ৯টি ওয়ার্ডে ত্রাণ কমিটি করার সময়,প্রতিটি ওয়ার্ড থেকে ১ হাজার করে টাকা উত্তোলন করার অভিযোগ উঠে ইউনিয়ন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে।  

 

এমন অভিযোগের ভিত্তিতে  জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক বাদল  অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে একটি শোকজপত্র অভিযুক্তদের কাছে পাঠান। কিন্তু এ ব্যাপারে তিনি জেলা কমিটির কারো সাথে কোন আলোচনা  না করায় জেলা নেতৃবৃন্দের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।


জেলা আওয়ামলীগের একজন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন,জেলা কমিটি হওয়ার পর থেকে বাদল অনেক সিদ্ধান্ত নিজের মতো করে নিয়ে থাকে। জেলা কমিটির অন্য নেতৃবৃন্দের সাথে তিনি অনেক সময় আলোচনা না করেই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে থাকেন। মদনপুরে ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দ ত্রাণ কমিটি করার ক্ষেত্রে যদি কোন টাকা উত্তোলন করে থাকে,তবে তা সত্যিই গর্হিত কাজ  হয়েছে।

 

নিয়ম অনুযায়ী নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে অভিযোগ থানা কমিটি জেলা কমিটিকে বিষয়টি অবহিত করবে। জেলার সাধারণ সম্পাদক জেলা কমিটির নেতৃবৃন্দের সাথে আলোচনা করে থানা কমিটির নেতৃবৃন্দের মাধ্যমে অভিযুক্তকে শোকজ করার বিধান রয়েছে। কিন্তু তিনি তা না করে সরাসরি জেলা কমিটির পক্ষ থেকে যে শোকজ  করেছেন তা নিয়ে বিভ্রান্তি রয়েছে।


নেতৃবৃন্দ আরো বলেন,সাধারণ সম্পাদক শোলজে যে প্যাড ব্যবহার করেছেন তা জেলা কমিটির প্যাড নয়। তিনি সরাসরি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্যাড ব্যবহার করেছেন। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের অফিসের প্যাডে ঠিকানা দেয়া হয়েছে নারায়ণগঞ্জের বঙ্গবন্ধু সড়ক। তাহলে কি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রধান কার্যালয় হিসেবে তিনি বঙ্গবন্ধু সড়ককের অফিসটিকে বুঝাতে চেয়েছেন ?

 

 তিনি জেলা কমিটির প্যাড ব্যবহার না করে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্যাড ব্যবহার করায় প্রশ্ন উঠেছে, তিনি কি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক। একক সিদ্ধান্তের যে ভুল হওয়ার কথা তিনি তাই করেছেন। 

 

অপরদিকে বন্দরের মদনপুরের ঘটনায় তিনি থানা কমিটির মাধ্যমে অভিযোগের তদন্ত কমিটি করতে পারতেন। এরপর তদন্ত কমিটির মাধ্যমে শোকজ করা যেতো। কিন্তু তিনি যা করেছেন তা গঠনতন্ত্রের মধ্যে পড়ে কিনা তা অনেকের জানা নেই। এছাড়া শোকজে জেলা সভাপতির কোন স্বাক্ষর নিতেও তিনি কার্পন্য করেছেন বলে আমরা মনে করি।

 

এব্যাপারে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই বলেন, মদনপুর ইউনিয়নে ত্রাণ কমিটি করার ব্যাপারে ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ৯টি ওয়ার্ড থেকে ১ হাজার করে টাকা উত্তোলনের অভিযোগ এসেছে।

 

এব্যাপারে সাধারণ সম্পাদক একটি শোকজ করেছেন বলে আমি জেনেছি। শোকজের বক্তব্য জানার পর বিস্তারিত বলা।  শোকজে জেলা কমিটির  প্যাড ব্যবহার না করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, হয়তো ভুল ক্রমে প্যাডে জেলা কমিটি কথাটি লেখা হয়নি।

এই বিভাগের আরো খবর