বুধবার   ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ৭ ১৪২৬   ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪১

ফতুল্লায় কিশোরীকে পালাক্রমে ধর্ষণ, জবানবন্দি রেকর্ড

প্রকাশিত: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : ফতুল্লায় ১৪ বছরের এক কিশোরীকে পালাক্রমে ধর্ষণের দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারা স্বীকারোক্তি মূলক জবান বন্দি দিয়েছে আসামী দুজন।

 

বৃহস্পতিবার (১৩ ফ্রেব্যুয়ারি) বিকালে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আফতাবুজ্জামান ও মাহমুদুল মোহসীনের আদালতে পৃথক ভাবে জবান বন্দি রেকর্ড করা হয়। 


এর আগে গত ১২ ফেব্রুয়ারি কিশোরী সুমনাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে আসামী রনি গং। এ ঘটনায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে তল্লা এলাকা থেকে রনি (১৮) ও হ্রদয় (১৮) কে গ্রেফতার করে। তবে এ মামলায় অপর এক আসামী পলাতক রয়েছে।


রনি ফতুল্লার তল্লা সবুজবাগ এলাকার ব্যাঙ্কার মতি মিয়ার ভাড়াটিয়া মনির হোসেনের ছেলে ও হৃদয় কাঠেরপুর এলাকার জয়নালের বাড়ির ভাড়াটিয়া হাশেমের ছেলে। 


মামলার এজাহার সূএে জানাগেছে কিশোরী ফতুল্লার ভূইগড় এলাকায় পিতা-মাতার সাথে ভাড়াভাড়িতে বসবাস করতো। এদিকে মামলার এক নং আসামী রনির সাথে কিশোরী সুমনার পূর্ব পরিচয় ছিল। 


গত ১১ ফেব্যুয়ারি আনুমানিক রাত নয়টার দিকে রনি ওই কিশোরীকে ফুঁসলিয়ে বাড়ি থেকে বের করে তল্লা সবুজবাগ এলাকায় রনির চাচা মামুন মিয়ার বাড়িতে এনে পালাক্রমে ধর্ষণ করে ভোরে বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। 


পরে কিশোরী তার মায়ের কাছে এ ঘটনার কথা খুলে বলেন। এ ঘটনায় কিশোরীর বাবা সিএনজি চালক জামাল সরদার রনিসহ তিনজনকে আসামী করে ফতুল্লা থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন।


ফতুল্লা মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) শাহাদাত জানান এ ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলা রুজ করার সাথে সাথে আসামীদের গ্রেফতার করার জন্য পুলিশ অভিযান চালায়।


এ অভিযানের ভিওিত্বে আসামী রনি ও হৃদয়কে তল্লা এলাকা থেকে গ্রেফতার করে। এ ঘটনায় আসামীরা নিজেদের দোষ স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারা জবানবন্দি প্রদান করেন। 
 

এই বিভাগের আরো খবর