শুক্রবার   ২২ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৮ ১৪২৬   ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

প্রতি মিনিটে কী ঘটেছে  মানব দেহে ?

প্রকাশিত: ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

ডেস্ক রিপোর্ট (যুগের চিন্তা ২৪) :অনেক আজব মানুষের শরীর। পা থেকে মাথা পর্যন্ত এম অনেক কিছু আছে যা জেনে সত্যিই অবাক হতে হয়। মানুষের দেহ সংক্রান্ত অনেক চমকে যাওয়ার মতো তথ্য রয়েছে যা আমাদের অজানা। আমাদের আজকের এই প্রতিবেদনে জানবো প্রতি মিনিটে কী ঘটছে আমাদের এই দেহে !

 

১) একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের সুস্থ, স্বাভাবিক, বিশ্রামরত অবস্থায় গড়ে মিনিটে ৭২ বার হৃদস্পন্দন হয়।

২) একজন বয়স্ক লোক প্রতি মিনিটে ১২-১৮ বার শ্বাস-প্রশ্বাস গ্রহণ করে। শ্বাস-প্রশ্বাস ৩ মিনিট ২০ সেকেন্ড বন্ধ থাকলে মানুষ মারা যেতে পারে।

৩) মানবদেহের অতি বিস্ময় পাকস্থলী। এখানে প্রতি মিনিটে তৈরি হচ্ছে ৫ হাজার কোটি কোষ। তারা আবরণ সৃষ্টি করে পাকস্থলীকে দিচ্ছে।

৪) দেহে রয়েছে দুটি কিডনি। কিডনি দুটি প্রতি মিনিটে ১.৩ লিটার রক্ত ছাঁকছে এবং প্রস্রাব আকারে বের করে দিচ্ছে।

 

৫) মানবদেহে রক্ত সঞ্চালন ৫ মিনিট বন্ধ থাকলে মানুষের মৃত্যু ঘটে।

৬) মানবদেহে প্রতিদিন ৫ লিটার পানির প্রয়োজন। দেহ প্রতিদিন ২.৩ লিটার পানি ত্যাগ করে।

৭) মানুষের শরীরের প্রতি ঘন্টায় গড়ে ৯০০ কোটির মতো লোহিত রক্ত কোষের জন্ম হয়।

৮) মস্তিষ্কের প্রতি ঘন মিলিমিটার Tissue বা কলার মধ্যে ৫০০০-এর মতো নার্ভ কোষ থাকে।

 

৯) সবচেয়ে দ্রুত নার্ভ সেকেন্ডে ১২০ মিটারের বেশি গতিবেগে সংবাদ প্রেরণ করতে পারে।

১০) খালি চোখে মানুষ ২২ লক্ষ আলোক-বর্ষ দূরত্ব অবধি দেখতে পায়, অর্থাৎ ২.১ * ১০১৭ কিলোমিটার দূরের বস্তু। এই দূরত্ব অ্যালড্রোমিডা ছায়াপথের, যা আমাদের ছায়াপথের মতো কু-লিত, যদিও আয়তনে তার প্রায় দ্বিগুণ।

১১) মানুষের খালি চোখে ৮০ কিলোমিটার দূরে জ্বালানো দেশলাই কাঠির আগুনের শিখা সনাক্ত করতে পারে।

১২) প্রায় চল্লিশ মিনিট নিচ্ছিদ্র অন্ধকারে থাকার পর মানুষের চোখ আলোর প্রতি ২৫০০০ গুণ বেশি প্রতিক্রিয়াশীল হয়ে ওঠে।

 

১৩) কোনও কিছুর সাহায্য ছাড়াই মানুষের চোখ প্রায় এক কোটি বিভিন্ন রঙের স্তর সনাক্ত করতে পারে।

১৪) মানুষের গলা বা কন্ঠনালীর ব্যাপারে এই সত্যটা হজম করা শক্ত যে আমাদের সারাজীবনে আমরা প্রায় ৪০ টন খাবার খাই এবং চার লক্ষ কুড়ি হাজার ঘন মিটারের মতো বাতাস নিঃস্বাস-প্রশ্বাসে ব্যবহার করি।

১৫) মানুষের শরীরের ক্ষুদ্রতম কোষগুলি থাকে cerebellum বা লঘু মস্তিষ্কে এবং তাদের আয়তন ০.০০৫ মিলিমিটারের মতো।Ovum বা ডিম্ব কোষ কোষেদের মধ্যে সবচেয়ে বড়, যার অবস্থান  Ovary অর্থাৎ ডিম্বাশয় বা অন্ডকোষে। তার আয়তন এই মাপের ‘য়’এর ফুটকির মতো।

১৬) মানুষের শরীরে হাড়ের সংখ্যা মোট ২০৬।

 

১৭) সবচেয়ে ছোট Stirrup  - কানের হাড়, যা দৈর্ঘে ২.৬ থেকে ৩.৪ মিলিমিটারের মতো।

১৮) ঊর্বাস্থি বা ঊরুর হাড়  (Femur) সবচেয়ে লম্বা, ৫০ সেন্টিমিটারের মতো দীর্ঘ হতে পারে।

১৯) মানুষের শরীরের মধ্যে প্রায় ২০০ টির মতো বিভিন্ন Joint বা সন্ধি আছে।

২০) একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের শরীরের মোট ত্বকের আয়তন ২০ বর্গফুট এবং ওজন ৩ কেজির মতো।

 

২১) মানুষের শরীরের ধমনী ও শিরার মতো রক্তবাহ (blood vessel) আছে এক লক্ষ কিলোমিটারের মতো।

২২) একজন গড়পড়তা মানুষের সারা জীবনে হৃৎপিন্ড ২০ কোটি লিটার রক্ত পাম্প করে এবং ২৫ কোটি বার স্পন্দিত হয়।

২৩) মানুষের পৌষ্টিক নালী বা অন্ত্র (Alimentary canal) প্রায় ৯ মিটার দীর্ঘ।

২৪) একজন গড়পড়তা মানুষের শরীর থেকে দিনে ১৪ বারের মতো মোট ৫০০ মিলিলিটার গ্যাস নির্গত হয়।

 

২৫) যারা বিন, বরবটি, মটরশুঁটি ইত্যাদি প্রচুর পরিমানে খায় তাদের শরীরে ঘন্টায় প্রায় ১৭০ মিলিমিটারের মতো গ্যাস তৈরি হয়।

২৬) মানুষের শরীরের Liver বা যকৃতের মধ্যে প্রায় ৫০০ রকমের রাসায়নিক প্রক্রিয়া ঘটে।

২৭) Kidney বা বৃক্কের মধ্যে দিয়ে সারাদিনে ২০০০ লিটারের মতো রক্ত প্রবাহিত ও পরিশ্রুত হয়।

২৮) আমাদের আঙুলগুলো এমনই সংবেদনশীল যে ০.০২ মাইক্রোমিটার (এক মিটারের দশ লক্ষ ভাগের এক ভাগ) কম্পন বা স্পন্দন অনুভব করতে পারে।

 

২৯) আমাদের আঙুলের নখ সাধারণত সপ্তাহে আধ মিলিমিটার বাড়ে এবং মাথার চুল সপ্তাহে বাড়ে ৩ মিলিমিটারের মতো।

৩০) আমাদের শরীরের হাড্ডি Granite এর মতই শক্তিশালী। একটা ম্যাচ বক্স সাইজের হাড্ডির ব্লক ৯ টন পর্যন্ত ওজন ধারণ করতে সক্ষম! চিন্তা করে দেখুন – এটি কংক্রিটের চাইতেও চারগুণ বেশী শক্তিশালী!

৩১) আমাদের নখ শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত বৃদ্ধি পেতে ৬ মাস সময় নেয়!

৩২) আমাদের মানবদেহের সবচেয়ে বড় অংশ হলো আমাদের চামড়া। একজন পূর্ণ বয়স্ক পুরুষের শরীরে ২০ স্কয়ার ফিটের মত চামড়া থাকে। আর চামড়া প্রতিনিয়ত বদলাতে থাকে। একজন মানুষ তার জীবনকালে ১৮ কেজির কাছাকাছি চামড়া ছাড়ে অর্থাৎ পড়ে যায়।

 

৩৩) আপনি যখন ঘুমান, প্রতিবার ঘুমানোর সময় আপনি ৮ মিলিমিটার লম্বা হন। কিন্তু ঠিক তার পরের দিন আপনি আবার সেই আগের উচ্চতায় পৌছে যান। এটির কারন হলো আপনার কার্টিলাজের ডিস্কগুলো গ্রাভিটির কারণে সঙ্কুচিত হয়ে যায় যখন আপনি বসে বা দাড়িয়ে থাকেন।

৩৪) প্রতিটি কিডনী ১০ লাখেরও বেশী ফিল্টার ধারণ করে যা প্রতি মিনিটে ১ লিটার পর্যন্ত রক্ত ফিল্টার বা পরিশোধন করে এবং দিনে ১.৫ লিটার পর্যন্ত ইউরিন শরীর থেকে ছেকে বের করে দেয়।

৩৫) আমাদের চোখে ফোকাস করার জন্য যে মাংসপেশী আছে তা দিনে ১ লক্ষ বারের মত নড়াচাড়া করে। আপনার চোখের মত এরকম একটা ওয়ার্কআউট যদি আপনি করতে চান, তাহলে আপনাকে ৮০ কিমি হাটতে হবে।

৩৬) ৩০ মিনিটে আমাদের শরীর থেকে যে পরিমান তাপ নির্গত হয়, তা দিয়ে আধা গ্যালন পানি অনায়াসেই ফুটানো সম্ভব।

৩৭) আমাদের মগজের ৯০% পর্যন্ত তথ্য আমাদের চোখ সরবরাহ করে।"

এই বিভাগের আরো খবর