শুক্রবার   ২২ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৮ ১৪২৬   ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

পরিবারের সঙ্গে ঈদ করতে পারবো কী না শঙ্কা আছে : শাহেদ

প্রকাশিত: ১৯ আগস্ট ২০১৮  

যুগের চিন্তা ২৪: শাহেদ আহমেদ। ক্রিকেট পাগল ছেলেটি শৈশবে চেয়েছিলেন সাংবাদিক হতে। তবে সমাজের মানুষের সঙ্গে আরো গভীরভাবে মেশার আকাঙ্খা থেকে জড়িয়ে পড়েন জাতীয়তাবাদী আদর্শের ছাত্র রাজনীতিতে। শিক্ষক পিতার সন্তান সদা হাস্যোজ্জল সাহেদের অবসর কাটে গান শুনে ও ক্রিকেট খেলে। দীর্ঘদিন ছাত্র রাজনীতিতে থাকলেও তার আক্ষেপ সাধারণ শিক্ষার্থীদের কল্যানে তেমন কিছুই করা হয়ে উঠেনি আজও। যুগের চিন্তা ২৪ এর ঈদ আড্ডায় কথা বলেছেন ব্যক্তিগত ও রাজনৈতিক জীবন নিয়ে। জানিয়েছেন তার অজানা অনেক কথা। আসুন এবারের ঈদ আড্ডায় যুগের চিন্তা’র নিজস্ব প্রতিবেদক শিমুল মোহাম্মদকে সঙ্গে নিয়ে কথা বলি এই তরুণ ছাত্রনেতার সঙ্গে।

যুগের চিন্তা: কেমন আছেন?

সাহেদ: দেশের এমন পরিস্থিতিতে মোটেও ভাল নেই।

যুগের চিন্তা: এই পরিস্থিতিতেই কোরবানির ঈদ চলে  এসেছে। এবার ঈদের পরিকল্পনাটা কী?

সাহেদ: গত পাঁচ বছর যাবৎ পূর্ব পরিকল্পনা করে কিছুই করতে পারিনি। এইযে এখানে বসে আছি এটাও খুব ঝুকি নিয়ে। পরিবারের সঙ্গে ঈদটা করতে পারবো কী না সেটা নিয়েও যথেষ্ঠ শঙ্কা আছে।

যুগের চিন্তা: সময়টা এখন ভাল না। চলেন শৈশবে ফিরে যাই। শৈশবের ঈদ কেমন ছিলো?

শাহেদ: শৈশবের ঈদ মানেই নতুন জামা। চাঁদ দেখা নিয়ে কাজিনদের সঙ্গে হৈ হুল্লোর। আর সালামির টাকা যতই হোক সেটা অবশ্যই নতুন টাকা হবে হবে।

যুগের চিন্তা: ঈদে কাকে সবচেয়ে বেশি মিস করবেন?

শাহেদ: বরাবরই তারেক রহমানকে মিস করি। এবার বেগম খালেদা জিয়াকে খুব মিস করবো। ঈদে নামাজ পড়ে তার সঙ্গে দেখা করতে যেতাম। এবার সেটা হবে না।

যুগের চিন্তা: কোরবানিতে কোন রঙ্গের গরু পছন্দ?

শাহেদ: লাল রঙ্গের। একটি গরুর ফার্ম দেয়ার ইচ্ছে ছিলো। সেখানে চার পাঁচটি গরুও আছে এবার সেখান থেকেই গরু কোরবানি দেবো।

যুগের চিন্তা: ঈদ পরবর্তী আন্দোলন পরিকল্পনা কী?

শাহেদ: এখনো কেন্দ্রের কোন নির্দেশনা পাইনি। যেভাবে নির্দেশনা পাবো সেভাবেই আন্দোলন করবো। তার প্রস্তুতি আছে।

যুগের চিন্তা: রাজনীতিবিদরা মাইক্রো ফোন পেলেই নিজের ঢোল নিজে পিটায়। আপনি বরং নিজের দুটো দোষের কথা বলুন।

শাহেদ: (হাসি) আমরাতো এখন আর মাইক ই পাই না! সুনাম করারতো সুযোগই নাই। এমনিতে আমি খুব স্টেট ফরোয়ার্ড। আর সবসময় সৎ থাকার চেষ্টা করি। (এটাতো দোষ না গুনের কথাই বলে ফেললেন।) এই সময়ে এটাই এখন বড় দোষ।

যুগের চিন্তা: নিজের ভাল দিক?

শাহেদ: দলের কাজ সর্বোচ্চ মনযোগ দিয়ে করি। বাকিটা আপনারা বলবেন। (হাসি)

যুগের চিন্তা: রাজনীতিতে কেন আসলেন?

শাহেদ: ছাত্র রাজনীতিতে একটা ব্যক্তিত্ব আছে। যদিও বর্তমানে ছাত্র রাজনীতি বলতে হেলমেট মাথায় সন্ত্রাসী করা, চাদাবাজি করা। আমরা যখন ছাত্র রাজনীতি শুরু করি তখনও ছাত্র রাজনীতির একটা আদর্শ ছিলো।

যুগের চিন্তা: কেমন করে বিএনপির রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়লেন, রাজনীতির পথচলাটা কেমন ছিলো?

যুগের চিন্তা: অনেক পরিশ্রম অনেক ধৈর্য্য নিয়ে পথ চলতে হয়েছে। নাইন-টেনে পড়তেই তারেক রহমানের প্রতি ভাললাগা শুরু হয়।  ইন্টারমিডিয়েট প্রথমবর্ষে পড়া কালিন মেরিএন্ডারসনে এক অনুষ্ঠানে তারেক রহমানের সঙ্গে কোনভাবে একবার হাত মিলাই। তারপর থেকেই রাজনীতির প্রতি এক প্রকার নেশা তৈরী হয়ে যায়। সেথেকেই ছাত্র রাজনীতির শুরু।  ২০০২-২০০৩ সালে  ১২ নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের সভাপতি হয়ে দায়িত্ব নেয়া শুর।  তারপর নারায়ণগঞ্জ কলেজের সাংগঠনিক সম্পাদক। সামর্থের সর্বোচ্চটুকু দিয়ে সংগঠন করার চেষ্টা করেছি। কাজ করতে করতে মহানগরের যুগ্ম আহ্বায়ক এবং বর্তমানে সভাপতি।

যুগের চিন্তা: রাজনীতিবিদ না হলে কী হতেন?

শাহেদ: সাংবাদিক হতাম (হাসি)। আমি ক্রিকেট পাগল মানুষ ছিলাম। তার বাইরে সাংবাদিকতাকে পেশা হিসেবে নেয়ার ইচ্ছে ছিলো।

যুগের চিন্তা: বর্তমান প্রজন্ম মানেই হচ্ছে আই হেইট পলিটিক্স, এর পেছনে আপনাদের দায় কতটুকু?

শাহেদ: শতভাগ দায় আছে। এখন আর ছাত্রদের কল্যানে ছাত্র রাজনীতি নেই বরং তা একটি রক্ষী বাহিনী বা লাঠিয়াল বাহিনী হিসেবে তৈরী হয়েছে।

যুগের চিন্তা: অভিযোগ আছে ছাত্রদল ছাত্রদের অধিকার সংশ্লিষ্ট কাজ করে না। এটা কেন?

শাহেদ: সেভাবে সুযোগই নেই। ছাত্রদের অধিকার আদায়ের জন্য ক্যাম্পাসে কাজ করতে হয়। আমরাতো ক্যাম্পাসেই প্রবেশ করতে পারি না। আসলে আমাদের দেশে এই সংস্কৃতিটাই নেই।

যুগের চিন্তা: আপনার পরিবার নিয়ে বলুন।

শাহেদ: আবার বাবা, মা আমরা দুই ভাই একবোন।

যুগের চিন্তা: পূর্ণাঙ্গ কমিটি কেন্দ্রে জমা দিয়েছেন। এমন অনেক উদাহরণ আছে কেন্দ্রে জমা দেয়ার পরেও দীর্ঘদিন যাবৎ কমিটি ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। এবার এর সম্ভাবনা কতটুকু?

শাহেদ: এই কমিটি নিয়ে সিনিয়র অনেকেই হস্তক্ষেপ করতে চেয়েছেন। আমরা তাদের পাত্তা দিইনি। সাধারণ সম্পাদকসহ সবাইকে সঙ্গে নিয়েই কমিটি করেছি। শীর্ষ বিএনপি ও সাবেক ছাত্রদল নেতাদের মতামত নিয়েছি। আশা করছি এ কিমিটি নিয়ে কোন সমস্যা হবে না। তারপরেও যদি কোন কারনে এই কমিটি ঝুলিয়ে রাখা হয় তবে আমি শাহেদ মহানগর ছাত্রদলের কমিটি থেকে পদত্যাগ করবো।

যুগের চিন্তা: ঈদের পরের আন্দোলনের জন্য মহানগর ছাত্রদল কতটুকু প্রস্তুত?

শাহেদ: ঈদের আগেই পূর্ণাঙ্গ কমিটি আসবে আশা করছি। আমরা আগে থেকে অনেক বেশি গোছালো। দল যেভাবে চায় সেভাবে অন্দোলন করার জন্য মহানগর ছাত্রদল সম্পূর্ণভাবে প্রস্তুত।

যুগের চিন্তা: সুষ্ঠু নির্বাচনে হলে নারায়ণগঞ্জে কয়টা আসন প্রত্যাশা করছেন?

শাহেদ: ইনশাল্লাহ জেলার পাঁচটি আসনই পাবো।

 যুগের চিন্তা: পেছনের শক্তি কী?

শাহেদ: জনগণ। শতভাগ নয়, যদি ৪০ ভাগও সুষ্ঠু নির্বাচন হয় তবে নারায়ণগঞ্জে পাঁচটি আসন অমরাই পাবো।

যুগের চিন্তা: নির্বাচনের আগে বিএনপির দূর্বলতা?

শাহেদ: তেমন দূর্বলতা নেই। সাংগঠনিক যে দূর্বলতাটুকু ছিলো সেটাও তারেক রহমানের হস্তক্ষেপে দূর হয়েছে।

যুগের চিন্তা: কারাবারণ করেছেন?

শাহেদ: হ্যা, প্রায় ১৫ টার মতো মামলা আছে। দুইবার কারা বরণ করেছি। মিথ্যা মামলায় কারাবরণ করেছি। আসলে প্রশাসনিক ব্যবস্থাটা এমনভাবে নষ্ট হয়েছে যে আমাদের জীবনের কোন মূল্য নেই। কেবল মামলাই না, ব্যক্তিগতভাবে আমি যে কোন সময় অপমৃত্যুর জন্যও প্রস্তুত।

যুগের চিন্তা: অবসরে কী করতে পছন্দ করেন?

শাহেদ: ক্রিকেট খেলতে পছন্দ করি, আর গান শুনি।  বাংলা হিন্দী ইংলিশ সব ধরনের গানই শুনি।

যুগের চিন্তা: ছাত্র রাজনীতিতে আপনার ব্যর্থতা সফলতা বলুন।

শাহেদ: ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও নানান কারনে ছাত্রদের কল্যানে তেমন কোন কাজ করতে পারিনি এটা ব্যর্থতা। আর তেমন কোন সফলতা নেই। মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি এটাই একটা সফলতা। হ্যা, আরো একটা সফলতা হলো নারায়ণগঞ্জ মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি হওয়ার পর সিনিয়র জুনিয়র সকলেই স্বতস্ফুর্তভাবে সমর্থন দিয়েছে এটা একটা বড় অর্জন।

যুগের চিন্তা: সর্বশেষ যে নিরাপদ সড়কের আন্দোলন হয়ে গেলো সেখানে অংশগ্রহণকারীদের বিরুদ্ধে একটি অজ্ঞাতনামা মামলা দেয়া হয়েছ্ েএই মামলা নিয়ে ছাত্রনেতা হিসেবে আপনার মন্তব্য কী?

শাহেদ: আমর জানা মতে নারায়ণগঞ্জে মামলা হওয়ার মতো কোন ঘটনাই ঘটেনি। এই আন্দোলনে আমরা ইচ্ছেকৃতভাবেই আসিনি সাধারণ শিক্ষার্থীদের উপর হামলা হবে বলে। তারপরও তাদের বিরুদ্ধে মামলা দেয়া হয়েছে। এটা অন্যায় । ছাত্র সংগঠন হিসেবে এখানে ডান বাম যে কোন ছাত্রসংগঠনের অংশ গ্রহণ করা ন্যায় সংগত। আমাদেরও থাকা উচিৎ ছিলো। কিন্তু সাধারণ শিক্ষার্থীদের কথা ভেবে অংশগ্রহণতো দূরের কথা আন্দোলন নিয়ে ফেসবুকে একটা স্ট্যাটাসও দেইনি।

যুগের চিন্তা: নারায়ণগঞ্জের ছাত্রদের উদ্দেশ্যে যদি কিছু বলতে চান।

শাহেদ: আমরা চাই ভাল শিক্ষার্থীরা ছাত্র রাজনীতিতে আসুক। ঘরে বসে আই হেইট পলিটিক্স বললে কাজ হবে না। রাজনীতিতে এসেই রাজনীতিটা পরিবর্তন করতে হবে। অন্যথায় মুক্তি নেই।

যুগের চিন্তা: ধন্যবাদ সময় দেয়ার জন্য।

শাহেদ: যুগের চিন্তাকেও অনেক অনেক ধন্যবাদ। নারায়ণগঞ্জবাসীকে মহানগর ছাত্রদলের পক্ষ থেকে ঈদের শুভেচ্ছা।

এই বিভাগের আরো খবর