শনিবার   ২৪ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৮ ১৪২৬   ২২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

নূর হোসেনের সেই নীলাকে সিআইডির জিজ্ঞাসাবাদ

প্রকাশিত: ২৪ মার্চ ২০১৯  

স্টাফ রিপোর্টার (যুগের চিন্তা ২৪) : সাত খুন মামলার মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামী নূর হোসেনে আলোচিত প্রেমিকা কথিত স্ত্রী সাবেক কাউন্সিলর জান্নাতুল ফেরদৌস নীলাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে সিআইডি। 


রোববার (২৪ মার্চ) বিকেলে নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ফাহমিদা খাতুনের আদালতে মাদক ব্যবসায়ী জুয়েল হত্যা মামলায় তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। 


মামলাটির অধিকতর তদন্তের স্বার্থে তদন্তকারি কর্মকর্তা জেলা সিআইডির সহকারী পুলিশ সুপার মো. ছরোয়ার জাহান সরকার এ জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

নীলাকে জিজ্ঞাসাবাদের বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন নারায়ণগঞ্জ কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক হাবিবুর রহমান।


উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ২৬ অক্টোবর সিদ্ধিরগঞ্জ আজিবপুর গ্রাম থেকে অজ্ঞাত পরিচয়ে মস্তক বিহীন লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। 
এঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করার পর জানতে পারে লাশটি নোয়াখালি জেলার মাসুমপুর গ্রামের ফিরোজ খানের ছেলে খায়রুল ইসলাম জুয়েলের (৩০)।


আদালত সূত্র থেকে জানা গেছে, জুয়েল হত্যা মামলায় কিলার লঞ্চো সোহেল, কালা সোহাগ ও মনা ডাকাত গ্রেফতার হয়। তারা এই হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে পৃথক জবানবন্দি প্রদান করেছিলেন। 


জবানবন্দিতে তারা জানিয়েছিলেন, মাদক ব্যবসার দেনা পাওনা নিয়ে নীলার সঙ্গে জুয়েলের বিরোধ ছিলো। এর জেরে নীলার নির্দেশে খায়রুল ইসলাম জুয়েলকে গলা কেটে হত্যা করে দেহ ও মাথা পৃথক দুটি স্থালে ফেলে দেওয়া হয়।


এ ঘটনায় ৮জনকে অভিযুক্ত করলেও নীলাসহ ১৭জনকে হত্যার দায় থেকে অব্যাহতির আবেদন করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন জেলা সিআইডির পরিদর্শক মো. নূরুন নবী।


তবে, এই ১৭জনের মধ্যে ১৩ জনের নাম স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে ছিলো। এতে অধিকাংশ আসামীকে কেন অব্যাহতির আবেদন করা হয়েছে এর ব্যাখ্যা চার্জশীটে তদন্তকারী কর্মকর্তা বিস্তারিত উল্লেখ করেনি। 


আদালত মনে করেছেন এ চার্জশীটটি স্পষ্ট নয় এবং দাখিলকৃত চার্জশীট সন্তোষজনক বলে প্রতীয়মান হয় না।


সূত্রটি আরও জানায়, আসামীদের জবানবন্দি ন্যায় বিচারের একটি গুরুত্বপূর্ন দলিল হওয়ায় ২০১৬ সালের ২১ জুলাই নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট অশোক কুমার দত্তের আদালত মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য জেলা সিআইডিকে নির্দেশ দেন।
 

এই বিভাগের আরো খবর